২৮ মার্চ, ২০২২ ১৪:১৪

'মেধা ও হৃদয় দিয়ে স্বাধীনতাকে উপলব্ধি করতে হবে'

অস্ট্রেলিয়া প্রতিনিধি

'মেধা ও হৃদয় দিয়ে স্বাধীনতাকে উপলব্ধি করতে হবে'

সিডনিতে অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ অস্ট্রেলিয়া এবং বঙ্গবন্ধু পরিষদ অস্ট্রেলিয়ার যৌথ উদ্যোগে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষে এক আলোচনা সভা এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়েছে। গত ২৭ মার্চ (রবিবার) অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ড. খায়রুল চৌধুরীর সভাপত্বিতে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা গামা কাদির এবং বঙ্গবন্ধু পরিষদ অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি আব্দুল জলিল।

বঙ্গবন্ধু পরিষদ অস্ট্রেলিয়ার সাধারণ সম্পাদক নির্মাল্য তালুকদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ড. আবুল হাসনাৎ মিল্টন, ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. শফিকুল আলম, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ অস্ট্রেলিয়ার সহ-সভাপতি ডা. লাভলী রহমান, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ অস্ট্রেলিয়ার সাধারণ সম্পাদক নোমান শামীম, ঢাকা মহানগর (উত্তর) বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ফাহাদ অভি, অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাকির প্রধানীয়া, অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ মশিউর রহমান হৃদয়, অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দা তাজমিরা আক্তার, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অস্ট্রেলিয়ার প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও যুবলীগ নেতা অপু সারোয়ার, যুবলীগ নেতা বীর খান, প্রমুখ।

সভার শুরুতে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। তারপর দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালনের মাধ্যমে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মুক্তিযুদ্ধের ত্রিশ লক্ষ শহীদসহ গনতান্ত্রিক আন্দোলনের সকল শহীদ এবং বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা মুজিবসহ পনেরোই আগস্ট ও তেসরা নভেম্বরের সকল শহীদদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা হয়।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, কেবল উপভোগ নয়, মেধা ও হৃদয় দিয়ে স্বাধীনতাকে উপলব্ধি করতে হবে। দীর্ঘ আন্দোলেনর পরিণতিতে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বে আমরা একটা স্বাধীন দেশ পেয়েছিলাম। আর আজ তাঁর কন্যা, বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিশ্বের বুকে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বর্তমান বিশ্বায়নের যুগে প্রবাসী হিসেবে আমাদের স্ব স্ব অবস্থান থেকে বাংলাদেশের উন্নয়নে গঠনমূলক ভূমিকা রাখতে হবে। বিদেশে বসে যারা ডিজিটাল প্রযুক্তির অপব্যবহার করে বাংলাদেশ বিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত, তাদের হুশিয়ার করে দিয়ে বক্তারা বলেন, এসব অপকর্ম করে করে সতেরো কোটি মানুষের দেশ বাংলাদেশকে দাবায়ে রাখা যাবে না।

অনুষ্ঠানে অস্ট্রেলিয়ায় গামা কাদিরের কমিউনিটিতে দীর্ঘ ৪০ বছর বিরামহীন নেতৃত্ব দেয়ার অবদানের স্বীকৃতি জানায় আওয়ামী পরিবার। এর অংশ হিসেবে অস্ট্রেলিয়ায় আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা এবং কমিউনিটিতে সর্বজন শ্রদ্ধেয় গামা আব্দুল কাদিরকে সম্বর্ধনা প্রদান করা হয়। উপস্থিত সবাই দাঁড়িয়ে এক মিনিট করতালি দিয়ে তাকে বিশেষভাবে সম্মানিত করেন।

আলোচনা সভার শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়। সঙ্গীত শিল্পী এবং সঙ্গীত শিক্ষক রোকসানার পরিচালনায় ‘কিশলয় কচিকাঁচা’ সাংস্কৃতিক সংগঠনের শিশু-কিশোরদের স্বাধীনতাযুদ্ধ চলাকালীন মন মাতানো গানে উপস্থিত দর্শক-শ্রোতা উজ্জীবিত এবং বিমোহিত হন। এছাড়াও সঙ্গীত পরিবেশন করেন ইভানা, মারিয়া, শাহানা চৌধুরী এবং রকি। কবিতা আবৃত্তি করেন আরিফ। সঙ্গীত ব্যবস্থাপনায় ছিলেন মিঠু। মন মাতানো নৃত্য পরিবেশন করেন সিডনির বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী অর্পিতা সোম। নৈশভোজের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানটির সমাপ্তি ঘটে।
 
বিডি প্রতিদিন/হিমেল

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর