শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২২:১৯

রেকর্ড

বাংলা চ্যানেল ডাবল ক্রসের রেকর্ড তাহরিনার

আয়ুবুল ইসলাম, কক্সবাজার

বাংলা চ্যানেল ডাবল ক্রসের রেকর্ড তাহরিনার

বাংলা চ্যানেল সাঁতরে দ্রুততম সময়ে ডাবল ক্রসের রেকর্ড গড়লেন ভারতীয় মেয়ে তাহরিনা নাসরিন। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া জেলার এই জলমানবী আট ঘণ্টা ১৩ মিনিট সময় নিয়ে কক্সবাজারের টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ থেকে সেন্টমার্টিনের ‘বাংলা চ্যানেল’ হিসেবে খ্যাত জলপথ দুবার পাড়ি দিয়েছেন।

গত ১৫ ডিসেম্বর ভোর ৬টা ১২ মিনিটে তিনি সেন্টমার্টিন থেকে সাঁতার শুরু করে ৩ ঘণ্টা ৪৭ মিনিট সময় নিয়ে ১৬.১ কিলোমিটারের বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়ে শাহপরীর দ্বীপ পৌঁছেন। এরপর বিরতিহীনভাবে ফের সেন্ট মার্টিনের উদ্দেশে সাঁতার শুরু করেন। ফিরতি সাঁতারে তিনি চার ঘণ্টা ২৬ মিনিট সময় নিয়ে বেলা ২টা ২৫ মিনিটে সেন্টমার্টিন পৌঁছেন। এ সময় দ্বীপে অপেক্ষমাণ আয়োজক এভারেস্ট একাডেমির সদস্য ছাড়াও পর্যটকসহ স্থানীয় বাসিন্দারা করতালিতে তাকে অভিবাদন জানান।

তাহরিনার এই সাঁতার অভিযানের আয়োজক এভারেস্ট  একাডেমির সিইও রাফাহ উদ্দীন সিরাজি বলেন, প্রথম নারী হিসেবে তাহরিনা বাংলা চ্যানেল ডাবল ক্রস (৩২.২ কি.মি) সাঁতারটি সম্পন্ন করেছেন। এ ক্ষেত্রে তিনি ৮ ঘণ্টা ১৩ মিনিট সময় নিয়ে দ্রুততম সময়ে ডাবল ক্রসের রেকর্ডটিও নিজের করে নেন। এর আগে এই চ্যানেলটি ২০১৮ সালে ৯ ঘণ্টা ১০ মিনিটে ডাবল ক্রস করেছিলেন ভারতের পুরুষ সাঁতারু সাম্পান্না রমেশ। তাহরিনা বলেন, আমি ভাবতেও পারিনি বাংলা চ্যানেল ডাবল ক্রসে দ্রুততম সময়ের রেকর্ডটি নিজের করতে পারা। প্রতিকূল আবহাওয়ায় সাগরের বড় ঢেউ, মাছধরার জাল সব বাধা অতিক্রম করেও দ্রুততম সময়ে বাংলা চ্যানেল ডাবল ক্রসের রেকর্ড অর্জন করতে পারায় আমি উচ্ছ্বসিত। তাহরিনা আরও বলেন, এর আগে আমি ২০১৫ সালে বিশ্বের প্রথম মুসলিম নারী হিসেবে ইংলিশ চ্যানেল জয় করেছিলাম। এ ছাড়া ২০১৮ সালে দ্রুততম নারী হিসেবে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়েছিলাম। সেবার প্রতিজ্ঞা করেছিলাম চ্যানেলটি ডাবল ক্রস করার। আজকে আমার ইচ্ছা পূরণ হয়েছে। আমার বাবাসহ যারা অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। মেয়ের সাফল্যে উচ্ছ্বসিত তাহরিনার বাবা শেখ আফসার আহমেদ বলেন, ছোটবেলা থেকে তাহরিনা দুরন্তপনা স্বভাবের ছিলেন। পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া উলুবেড়িয়ার নিমদিঘীতে বাড়ির সামনে দুটি বড় পুকুর। দুই বছর বয়সে সেখানেই সাঁতার শিক্ষার হাতেখড়ি তার।


আপনার মন্তব্য