শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:২০

ডমিঙ্গোর ব্যাটিং অর্ডার

চারে মুমিনুল, তিনে শান্ত ওপেন করবেন সাইফ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ডমিঙ্গোর ব্যাটিং অর্ডার
রাসেল ডমিঙ্গো, কোচ

পারিবারিক কারণে টি-২০ সিরিজ খেলতে পাকিস্তান যাননি মুশফিকুর রহিম। নিষিদ্ধ বলে সুযোগ হয়নি সাকিব আল হাসানের। দুই দেশসেরা ক্রিকেটারের অনুপস্থিতি হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানের অভাব কোনোভাবেই পূরণ করতে পারেননি অন্যরা। রাওয়ালপিন্ডিতে টেস্ট খেলতে আজ মুমিনুল হকের নেতৃত্বে ঢাকা ছাড়বে ক্রিকেট দল। এবারও নেই দুই সিনিয়র। তাদের অভাব পূরণ করতে ললাটে চিন্তার ভাঁজ পরিষ্কার কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর। দুজনের অভাব পূরণ করতে টিম ম্যানেজমেন্ট পুরোপুরি নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে তরুণদের উপর। পাকিস্তান যাওয়ার আগে টাইগার কোচ ডমিঙ্গো গতকাল মিডিয়ার মুখোমুখিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে ব্যাটিং অর্ডার কেমন হবে, তার আভাস দিয়েছেন। জানিয়েছেন, যেহেতু মুশফিক খেলছেন না, তার জায়গায় চার নম্বরে ব্যাট করবেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। শুধু মুমিনুলের ব্যাটিং অর্ডারই নয়, তিন, পাঁচ, ছয় ও সাতে কারা ব্যাটিং করবেন, সেটাও জানিয়েছেন। তিনে বাঁ হাতি নাজমুল হোসেন শান্ত, পাঁচে মোহাম্মদ মিথুন, ছয়ে টি-২০ অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ এবং সাতে লিটন দাসকে খেলাবেন বলে জানিয়েছেন। কোচের ঘোষণায় দেখা যাচ্ছে রাওয়ালপিন্ডি  টেস্টে সাত ব্যাটসম্যান নিয়ে খেলবে মুমিনুল বাহিনী। টেস্ট শুরু হবে ৭ ফেব্রুয়ারি।

বাংলাদেশ সর্বশেষ পাকিস্তান সফর করেছিল ২০০৮ সালে। গত এক যুগে একবারও পাকিস্তানমুখী হয়নি। এবারও বিসিবির অটল অবস্থানে সফর ভেস্তে যেতে বসেছিল। আইসিসি সভাপতি শশাঙ্ক মনোহরের ইচ্ছায় সফর করতে রাজি হয় বাংলাদেশ। খেলে আসে টি-২০ সিরিজ। আজ যাচ্ছে টেস্ট সিরিজের প্রথমটি খেলতে। দ্বিতীয় টেস্ট করাচিতে এপ্রিলের ৫ তারিখে। টেস্ট সিরিজকে সামনে রেখে বিসিবি যে দল ঘোষণা করেছে, সেখানে জায়গা হয়নি মুস্তাফিজুর রহমানসহ চার ক্রিকেটারের। তবে দলে ফিরেছেন সাইফ হাসান, নাজমুল শান্ত।

বাঁহাতি ব্যাটসম্যানদের আধিক্য বেশি বাংলাদেশের স্কোয়াডে। সে ধারণায় পাকিস্তানি কোচ মিসবাহ উল হক দলে ভিড়িয়েছেন অফ স্পিনার। প্রতিপক্ষ কোচকে পাল্টা জবাব দিতেই হয়তো ডমিঙ্গো ব্যাটিং অর্ডার জানিয়েছেন। ওপেনার হিসেবে অটোমেটিক চয়েজ তামিম ইকবাল। দারুণ ফর্মে তামিম বিসিএলে মাত্র খেললেন ৩৩৪ রানের হার না মানা এক ইনিংস। তার সঙ্গী হবেন ডান হাতি সাইফ হাসান। তিনে শান্ত, চারে অধিনায়ক মুমিনুলকে খেলানোর কথা বললেন কোচ, ‘মুমিনুলকে চারে এবং শান্তকে তিনে খেলাতে চাই। মিথুন ও মাহমুদুল্লাহ, লিটন পাঁচ, ছয় ও সাতে ব্যাটিং করবেন। এটাই হতে পারে রাওয়ালপিন্ডি টেস্টের ব্যাটিং লাইন আপ।’

কোচের চাওয়ায় যদি চারে ব্যাটিং করেন মুমিনুল, তাহলে তিনি দুই টেস্ট পর আবার চারে ব্যাট করবেন। ৩৭ টেস্টের ৭১ ইনিংসের মধ্যে অধিকাংশ সময়ই মুমিনুল ব্যাট করেছেন তিনে বা ওয়ান ডাউনে। সর্বশেষ চারে ব্যাট করেছেন চট্টগ্রাম টেস্টে আফগানিস্তানের বিপক্ষে এবং রান করেছিলেন ৫২। অভিষেকের পর প্রথম ৯ টেস্টের  ১৭ ইনিংসে চারে ব্যাট করেন তিনি। এরপর ১০ নম্বর টেস্টে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো তিনে ব্যাট করেন। সব মিলিয়ে টেস্ট ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত চারটি পজিশনে ব্যাট করেছেন দেশের অন্যতম সফল ব্যাটসম্যান। তিনে ব্যাট করেছেন  সবচেয়ে বেশি ৫০ ইনিংসে। চারে ব্যাটিং করেন ১৯ বার এবং পাঁচে ও আটে একবার করে। তিন নম্বরে ৫০ ইনিংসে রান করেছেন ৩৪.০২ গড়ে ১৬৬৭। সর্বোচ্চ ১৭৬ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এবং একই টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসেও সেঞ্চুরির ইনিংস ছিল ১০৫ রানের। তিন নম্বর পজিশনে সেঞ্চুরি ৫টি এবং হাফ সেঞ্চুরি ৭টি। একটি মাত্র ইনিংসে ব্যাট করেন পাঁচে। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটিতে রান করেছিলেন ৩ এবং আট নম্বর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে করেছিলেন ২৯। সব মিলিয়ে সবচেয়ে সফল চার নম্বর পজিশনে। ১৯ ইনিংসে অপরাজিত তিনটি। রান করেছেন ৫৯.৮৭৫ গড়ে ৯৯০। সর্বোচ্চ ১৮১, চট্টগ্রামে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। সেঞ্চুরি ৩টি এবং হাফ সেঞ্চুরি ৬টি।


আপনার মন্তব্য