রবিবার, ২১ জুন, ২০২০ ০০:০০ টা

৬ মন্ত্রীর যত সাফল্য

সাদেক হোসেন খোকা

১৯৯১ সালে জাতীয় নির্বাচনে জয়ী হয় বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি। যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান সাদেক হোসেন খোকা। প্রকৃত ক্রীড়া সংগঠককেই ক্রীড়াঙ্গনের অভিভাবক করা হয়। তিনি দায়িত্ব পালনকালে ক্রীড়াঙ্গনে যেমন সাফল্য আছে ব্যর্থতাও কম নয়। বড় সাফল্য বলতেই ফুটবলের নাম চলে আসে। ১৯৯৫ সালে মিয়ানমারে অনুষ্ঠিত চার জাতি চ্যালেঞ্জ কাপে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হয়। ফাইনালে মিয়ানমারকে ২-১ গোলে পরাজিত করে মোনেম মুন্নার নেতৃত্বে জাতীয় দল। আন্তর্জাতিক ফুটবলে দেশের বাইরে বাংলাদেশের এটিই ছিল প্রথম শিরোপা। এ ছাড়া সাফ গেমসে বিমল তরফদারের দ্রুততম মানব হওয়াটাও ছিল বড় প্রাপ্তি। ১৯৯৩ সালে ঢাকায় সেবার সাফ গেমস অনুষ্ঠিত হয়। ’৯৪ সালে ঢাকায় প্রথম সার্ক ক্রিকেট আয়োজিত হয়। পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার মতো শক্তিশালী দলকে পেছনে ফেলে রানার্স-আপ হয় বাংলাদেশ। ফাইনালে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে ভারতের কাছে হেরে যান আকরাম খানরা।

 

ওবায়দুল কাদের

১৯৯৬ সালে জাতীয় নির্বাচনে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় আসে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। যুব, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান ওবায়দুল কাদের। বাংলাদেশে ক্রীড়াঙ্গনে নির্বাচন চালু করেন তিনি। ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশ ব্যর্থতার গণ্ডি থেকে বেরিয়ে আইসিসি ট্রফিতে চ্যাম্পিয়ন হয়। ফাইনালে শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে কেনিয়াকে পরাজিত করেন আকরাম খানরা। এ ট্রফি জেতায় ১৯৯৯ সালে স্বপ্নের বিশ্বকাপে বাংলাদেশের অভিষেক হয়। স্কটল্যান্ড তো বটেই, অভিষেক আসরে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন পাকিস্তানকে পরাজিত করে। অবশ্য এর আগেই ১৯৯৭ সালে ক্রিদেশীয় ক্রিকেটে কেনিয়াকে হারিয়ে ওয়ানডেতে প্রথম জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। ২০০০ সালে স্বপ্নের টেস্ট মর্যাদা লাভ করে বাংলাদেশ। সে বছরের নভেম্বরেই ঢাকায় ভারতের বিপক্ষে অভিষেক ম্যাচ খেলে। ওবায়দুল কাদের দায়িত্বে থাকা অবস্থায় ১৯৯৯ সালে সাফ গেমসে ফুটবলে প্রথম সোনা জেতে বাংলাদেশ।

 

ফজলুর রহমান পটল

২০০১ সালে বিএনপির নেতৃত্বে চারদলীয় জোট জাতীয় নির্বাচনে জয়ী হয়। মন্ত্রিপরিষদ গঠিত হলে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান নাটোরের সংসদ সদস্য ফজলুর রহমান পটল। ২০০২ ও ২০০৩ সালে টানা বড় দুই সাফল্য আসে তিনি দায়িত্বে থাকা অবস্থায়। ২০০২ সালে ম্যানচেস্টারে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথ গেমসে শুটিংয়ে সোনা জেতেন আসিফ হোসেন খান। পরের বছর ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয় দক্ষিণ এশিয়ার বিশ্বকাপ খ্যাত সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবল। ঘরের মাঠেই বাংলাদেশ প্রথম ও শেষবারের মতো এ টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়। ফাইনালে মালদ্বীপে বিপক্ষে নির্ধারিত সময়ে ম্যাচ ১-১ গোলে ড্র থাকলেও টাইব্রেকারে স্বপ্নের শিরোপা জেতেন রজনীকান্ত বর্মণরা। সেমিফাইনালে ভারতকে হারিয়েছিল স্বাগতিকরা। ২০০৫ সালে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম জয়ের মুখ দেখে বাংলাদেশ। চট্টগ্রামে সুমনের নেতৃত্বে বাংলাদেশ পরাজিত করে জিম্বাবুয়েকে।

 

আহাদ আলী সরকার

প্রতিমন্ত্রী বদল হলেও এলাকা ঠিকই থেকে গেছে। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোট সরকার গঠন করে। এবারও যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান নাটোরের সংসদ সদস্য আহাদ আলী সরকার। তিনি দায়িত্বে থাকা অবস্থায় বড় চমক ছিল ২০১১ সালে বাংলাদেশে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের আয়োজন। ঢাকা ও চট্টগ্রামে দুই ভেন্যুতে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। যদিও স্বাগতিক হিসেবে বিশ্বকাপে সুবিধা করতে পারেনি। কিন্তু ইংল্যান্ডকে প্রথমবারের মতো হারান সাকিবরা। শক্তিশালী নিউজিল্যান্ডকে ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করে বাংলাদেশ। এখানেই ক্রিকেটে বাংলাদেশ চলে যায় অন্য উচ্চতায়। ২০১০ সালে ঢাকায় এস এ গেমসে ফুটবলে সোনা জেতে বাংলাদেশ। ফাইনালে আফগানিস্তানকে ৪-০ গোলে পরাজিত করে। সেবারই গেমস ইতিহাসে নিজেদের সর্বোচ্চ ১৮টি সোনা জেতে বাংলাদেশ।

 

বীরেন শিকদার

২০১৪ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোট নির্বাচনে জয়ী হয়ে পুনরায় সরকার গঠন করে। নতুন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান বীরেন শিকদার। তিনি দায়িত্বে থাকা অবস্থায় ফুটবলে জাতীয় দলের সাফল্য ছিল না। তবে অনূর্ধ্ব-১৫ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। ক্রিকেটে সাফল্য ছিল ভালোই। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে যৌথভাবে আয়োজিত বিশ্বকাপে মাশরাফির নেতৃত্বে বাংলাদেশ দারুণ পারফরম্যান্স শো করে। ইংল্যান্ডের মতো শক্তিশালী দেশকে হারিয়ে বাংলাদেশ কোয়ার্টার ফাইনালে জায়গা করে নেয়। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ বাংলাদেশের হয়ে প্রথম সেঞ্চুরির কৃতিত্ব পান। তিনি ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শতক হাঁকান। সে বছরই পাকিস্তানকে হোয়াইটওয়াশ, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার মতো বরুদ্ধে ওয়ানডেতে সিরিজ জেতে বাংলাদেশ। বীরেন শিকদার দায়িত্ব থাকা অবস্থায় টি-২০ নারী এশিয়া কাপে ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ।

 

জাহিদ আহসান রাসেল

জাতীয় বা যে কোনো দল হোক না বাংলাদেশের ক্রিকেটে বড় প্রাপ্তি হচ্ছে যুব বিশ্বকাপে শিরোপা জয়। আর তা হয়েছে বর্তমান যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল দায়িত্বে থাকা অবস্থায়। ফাইনালে ভারতকে হারিয়ে স্বপ্নের শিরোপা জেতে যুবারা। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচনে টানা তৃতীয়বার জয়ী হয় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোট সরকার গঠন করে। যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান জাহিদ আহসান রাসেল। ওয়ানডে ক্রিকেটে আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টেও প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ শিরোপা জেতে। এসএ গেমসে বাংলাদেশ যেন নেপালে সোনা আহরণের উৎসবে মেতে ছিল। নিজেদের রেকর্ড ভেঙে ১৯টি সোনার পদক জেতে বাংলাদেশ। এর মধ্যে আবার আরচ্যারি দশে দশ। ১০টি ইভেন্টেই আরচাররা সোনা জিতে চমক দেখান।  ভারোত্তোলনে মাবিয়া আক্তার সীমান্ত পুনরায় সোনা জিতে চমক দেখান।

এই রকম আরও টপিক