শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ৮ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ জানুয়ারি, ২০২১ ২৩:৪১

টানা তিন ফাইনালে কিংস

রাশেদুর রহমান

টানা তিন ফাইনালে কিংস
ছবি : রোহেত রাজীব

ফেডারেশন কাপের সেমিফাইনাল। আবাহনীর বিপক্ষে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয়ার্ধে খেলতে নামে বসুন্ধরা কিংস। দ্বিতীয়ার্ধের খেলা শুরুর আগে স্প্যানিশ কোচ অস্কার ব্রুজোন দলে দুটি পরিবর্তন আনেন। সুফিল ও বিপলুর পরিবর্তে মাঠে পাঠান মতিন মিয়া ও রানাকে। এখানেই খেলার ধরনটা বদলে যায় কিংসের। রবসন একটু পিছিয়ে নিচ থেকে খেলতে শুরু করেন। ফরোয়ার্ড লাইনে বাড়তি শক্তি যোগ করেন মতিন মিয়া। ১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে থাকা বসুন্ধরা কিংস ম্যাচটা জয় করে ৩-১ গোলে।

দুই বছরের কিছু বেশি সময় আগে ফেডারেশন কাপের ফাইনালে আবাহনীর মুখোমুখি হয়েছিল বসুন্ধরা কিংস। সেবার ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেও ৩-১ গোলের পরাজয়ে ফেডারেশন কাপ জেতা হয়নি অস্কার ব্রুজোনের শিষ্যদের। এবার সেমিফাইনালে সেই পরাজয়ের প্রতিশোধই নিল বসুন্ধরা। পাশাপাশি মোহামেডান, আবাহনী ও শেখ জামালের পর চতুর্থ দল হিসেবে ফেডারেশন কাপে টানা তৃতীয়বারের মতো ফাইনাল নিশ্চিত করল কিংস।

ম্যাচটা চলছিল দুর্দান্ত গতিতে। দুটো দলই দারুণসব আক্রমণ করছিল। কখনো সংঘবদ্ধ। কখনো একক আক্রমণে দর্শকদের মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধি করছিল। কিংসের রবসন, রাউল আর জনাথন ত্রয়ীকে সামলাতে পারছিল না আবাহনী। বিপরীত দিকে আবাহনীর বেলফোর্ট কিংসের ডিফেন্সে ফাটল ধরাচ্ছিলেন। ম্যাচের ৩১তম মিনিটে ডান দিক দিয়ে আবাহনীর আক্রমণে যায়। বেলফোর্টের ছোট পাসে বল পেয়ে ডি বক্সের ভিতর থেকে কৌণিক শটে গোল করে আবাহনীকে এগিয়ে দেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ফ্রান্সিসকো রদ্রিগেজ। আকাশি নীল জার্সিধারীরা উৎসবে মেতে উঠে।

ম্যাচের ৫১তম মিনিটে সমতায় ফিরে বসুন্ধরা কিংস। দ্বিতীয়ার্ধে বদলি নামা আলমগীর কবির রানার পাসে বল পেয়ে জোরালো শটে গোল করেন ব্রাজিলের জনাথন ফার্নান্দেজ। তার শট ক্রসবারে লেগে গোল লাইন ক্রস করে ড্রপ খেয়ে ফিরে এলে হেডে বল জালে জড়ান রাউল। তাৎক্ষণিকভাবে মনে হচ্ছিল, গোলটা বুঝি রাউলের। এমনকি তার নামও টিভি স্ক্রিনে ফুটে উঠে। কিন্তু রিপ্লেতে দেখা যায়, গোলটা মূলত জনাথন ফার্নান্দেজের। এরপর নির্ধারিত সময়ে গোল না হওয়ায় ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত ত্রিশ মিনিটে।

ম্যাচের ১১১তম মিনিটে  মধ্য মাঠ থেকে মতিন মিয়াকে লম্বা পাস দেন ফার্নান্দেজ। ডি বক্সের ডান প্রান্তে বল রিসিভ করেন মতিন মিয়া। তার ক্রসে বল পান রাউল। গোলরক্ষক শহিদুল আগেই সামনে এগিয়ে যাওয়ায় আবাহনীর ডিফেন্ডাররা রাউলকে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু মাত্র কয়েক গজ দূর থেকে গোল করেন আর্জেন্টাইন ফুটবলার। ১২০ মিনিটে জীবনের গোল অফসাইডের কারণে বাতিল হয়ে যায়। এরপর খেলার অন্তিম মুহূর্তে আরেকটি গোল করে জয়ের ব্যবধান বাড়ান বসুন্ধরা কিংসের ব্রাজিলিয়ান তারকা জনাথন ফার্নান্দেজ। রবসনের মাইনাসে বল পেয়ে ঠান্ডা মাথায় জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেন তিনি।

দারুণ উত্তেজনাপূর্ণ একটা ম্যাচ হলো। সেমিফাইনাল হলেও দর্শকরা ফাইনালের স্বাদ নিয়েই বাড়ি ফিরলেন! রবিবার ফাইনালে বসুন্ধরা কিংস মুখোমুখি হবে সাইফ স্পোর্টিংয়ের। সেমিফাইনালে সাইফ ৩-০ গোলে হারিয়েছে চট্টগ্রাম আবাহনীকে।

 

ম্যাচের হাইলাইটস

জীবনকে তপুর উপহার

আন্তর্জাতিক ফুটবল অথবা ইউরোপ ও আমেরিকায় ক্লাব ফুটবলে সাধারণত ম্যাচ শুরুর আগে দুই অধিনায়ক নিজেদের মধ্যে পতাকা বদল করেন। কখনো কখনো বাড়তি কিছু উপহারও থাকে। গতকাল বসুন্ধরা কিংসের অধিনায়ক তপু বর্মণ এমনই এক উপহার দিলেন আবাহনীর অধিনায়ক নাবিব নেওয়াজ জীবনকে। পতাকার সঙ্গে ছিল ক্লাবের নামাঙ্কিত মাফলারও। বিপরীতে কিছু দিতে পারেননি জীবন।

 

গ্যালারিতে বাদ্যযন্ত্র

ফুটবলের সঙ্গে মিউজিকের সম্পর্ক বেশ পুরনো। যে কোনো ম্যাচেই বাদ্য-বাজনার উপস্থিতি উত্তাপ বাড়িয়ে দেয় বহুগুণে। গতকাল দেশসেরা দুই ক্লাব ফেডারেশন কাপের সেমিফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে। এখানেও মিউজিক ম্যাচের উত্তেজনা বাড়িয়েছে। পশ্চিম গ্যালারিতে বসুন্ধরা কিংসের সমর্থকদের সারাক্ষণই মাতিয়ে রেখেছে একটি ব্যান্ড দল। কিংসের খেলার ছন্দের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাদ্য বাজিয়েছে তারা।

 

বিস্মিত খালিদ

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ের খেলা চলছে। কিংসের ডি বক্সের সামনে হ্যান্ডবল করেন ফ্রান্সিসকো রদ্রিগেজ। রেফারি বাঁশি বাজানোর পরও ফ্রান্সিসকো বল নিয়ে এগুতে থাকেন। কিংসের খালিদ শাফিই তাকে বাধা দিয়ে বল হাতে নিলে তেড়ে আসেন রদ্রিগেজ। দুজনের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি হয়। রেফারি ছুটে এসে হলুদ কার্ড দিয়ে দেন খালিদকে। বিস্মিত হয়ে যান খালিদ। প্রতিবাদ জানিয়ে রদ্রিগেজকে হলুদ কার্ড দেওয়ার দাবি জানান তিনি।

 

গোল তুমি কার!

ম্যাচের ৫১তম মিনিট। সমতায় ফিরে বসুন্ধরা কিংস। রানার পাসে বল পেয়ে জোরালো শটে গোল করেন ব্রাজিলের ফার্নান্দেজ। তার শট ক্রসবারে লেগে গোল লাইন ক্রস করে ড্রপ খেয়ে ফিরে এলে হেডে বল জালে জড়ান রাউল। তাৎক্ষণিকভাবে মনে হচ্ছিল, গোলটা বুঝি রাউলের। এমনকি তার নামও টিভি স্ক্রিণে ফুটে উঠে। কিন্তু রিপ্লেতে দেখা যায়, গোলটা মূলত জনাথন ফার্নান্দেজের।

 

রাউলের চারে চার

বসুন্ধরা কিংসের আর্জেন্টাইন ফুটবলার রাউল বেসেরা। ফেডারেশন কাপে চার ম্যাচ খেলে প্রতি ম্যাচেই গোল করলেন তিনি। গতকাল সেমিফাইনালে জয়সূচক গোলটি করেন তিনি। এর আগে গ্রুপ পর্বে চট্টগ্রাম আবাহনী এবং রহমতগঞ্জের বিপক্ষে একটি করে গোল করেন রাউল। তার গোলেই চট্টগ্রাম আবাহনীকে হারিয়েছিল কিংস। কোয়ার্টার ফাইনালে রাউল গোল করেন শেখ জামালের বিপক্ষে।


আপনার মন্তব্য