শিরোনাম
মঙ্গলবার, ২ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ টা
শেষ টি-২০ আজ

সোহানের ইনজুরি নেতৃত্বে মোসাদ্দেক

মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ম্যাচ জেতানোর পর যেন উপহার হিসেবে পেলেন অধিনায়কত্বের দায়িত্ব!

ক্রীড়া প্রতিবেদক

সোহানের ইনজুরি নেতৃত্বে মোসাদ্দেক

ক্যারিয়ারে এর চেয়ে ভালো উপহার আর কী হতে পারে? মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ম্যাচ জেতানোর পর যেন উপহার হিসেবে পেলেন অধিনায়কত্বের দায়িত্ব! দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচে জয় উপহার দেওয়ার নায়ক মোসাদ্দেক আজ শেষ ম্যাচে নেতৃত্ব দেবেন টাইগারদের। তিনি বাংলাদেশের নবম টি-২০ অধিনায়ক। এর আগে টি-২০ ক্রিকেটে টাইগারদের নেতৃত্ব দিয়েছেন শাহরিয়ার নাফিস, মোহাম্মদ আশরাফুল, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাশরাফি বিন মর্তুজা, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, লিটন দাস ও নুরুল হাসান সোহান। মোসাদ্দেকের হাতে নেতৃত্ব তুলে দেওয়া হয়েছে সোহানের ইনজুরিতে। দ্বিতীয় ম্যাচে হাসান মাহমুদের বল গ্রিপ করতে যেয়ে বাঁ হাতের তর্জনীতে ব্যথা পান সোহান। আঙ্গুলে চিড় ধরায় ৩ সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকতে হবে উইকেটরক্ষক ব্যাটারকে। ফলে জিম্বাবুয়ে সফর পুরোপুরি মিস করবেন সোহান। তার পরিবর্তে ব্যাটিং শক্তি বাড়াতে নেওয়া হয়েছে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে। ফর্ম হারানোয় সাবেক অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহকে তিন ম্যাচের টি-২০ স্কোয়াডে রাখা হয়নি। সাবেক অধিনায়ক অবশ্য ওয়ানডে সিরিজ খেলতে এখন হারারেতে অবস্থান করছেন।

পারফরম্যান্সের বিচারে প্রথম টি-২০ ম্যাচের সঙ্গে দ্বিতীয় ম্যাচের বিস্তর ফারাক। ভেন্যু এক, উইকেট এক, এমনকি প্রতিপক্ষও এক- তারপরও দ্বিতীয় ম্যাচে নুরুল সোহান, লিটন দাস, মোসাদ্দেকদের পারফরম্যান্স ছিল পুরোপুরি ইউটার্ন। প্রথম ম্যাচে অগোছালো টাইগাররা দ্বিতীয় ম্যাচে ছিল আত্মবিশ্বাসী। বাজে বোলিং, ফিল্ডিং ও ব্যাটিংয়ের খেসারত গুনেছে প্রথম ম্যাচ হেরে। দ্বিতীয় ম্যাচে অলরাউন্ডিং পারফরম্যান্সে তুলে নেয় সহজ জয়। নুরুল হাসান সোহান তার অধিনায়কত্বে প্রথম জয় পেলেও দুর্ভাগ্য তার। কিপিংয়ে বাঁ হাতের তর্জনীতে ব্যথা পান। সোহান না থাকলেও মোসাদ্দেকের নেতৃত্বে দ্বিতীয় ম্যাচ জয়ের আত্মবিশ্বাস নিয়ে আত্মবিশ্বাসী টাইগাররা আজ মাঠে নামছে। বাংলাদেশ সময় বিকাল ৫টায় শুরু হবে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচ। আজ একাদশে একটি পরিবর্তন আসতে পরে। ওপেনার মুনিম শাহরিয়ারকে সাজঘরে বসে থাকতেও হতে পারে। ক্যারিয়ারের ৫ ম্যাচে একবার মাত্র দুই অংকের রান করেন। সেটা আবার অভিষেক ম্যাচে। এছাড়া সর্বশেষ ৪ ম্যাচে তার স্কোর যথাক্রমে ৭, ৪, ২ ও ৪। আজ ওপেন করতে পারেন এনামুল হক বিজয়। অভিষেক হতে পারে উইকেটরক্ষক ব্যাটার মোহাম্মদ পারভেজ হোসেন ইমনের। অফ স্পিন অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজকে দেখলেও অবাক হওয়ার কিছু নেই। অভিজ্ঞ মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকেও দেখা যেতে পারে।

প্রথম ম্যাচ ২০৬ রান তাড়া করতে দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ের অভাবে হেরেছিল ১৭ রানে। অবশ্য বোলিংও ছিল নির্বিষ। দ্বিতীয় ম্যাচে নতুন বলে বোলিং করে জিম্বাবুয়েকে একাই গুঁড়িয়ে দেন মোসাদ্দেক। প্রতিপক্ষের শুরুর ৫ উইকেটের সবগুলো তুলে নেন নিজের ৪ ওভারের স্পেলে। ২৪ বলের স্পেলে ২০ রানের খরচে নেন ৫ উইকেট। স্পেলের ১৫ বলই ছিল ডট। তার স্পেল যৌথভাবে টাইগারদের দ্বিতীয় সেরা। মোসাদ্দেকের ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ের ম্যাচে দারুণ ছন্দময় ব্যাটিং করেন লিটনও। ১৩৬ রান তাড়া করতে লিটন খেলেন ৩৩ বলে ৬ চার ও ২ ছক্কায় সাজানো ৫৬ রানের আক্রমণাত্মক ইনিংস। প্রথম ম্যাচে দারুণ খেলতে থাকা লিটন রান আউট হয়েছিলেন শিক্ষানবীসের মতো। সেই ধাক্কা সামলে দ্বিতীয় ম্যাচে দারুণ ব্যাটিং করেন। এছাড়া শেষ দিকে আফিফ হোসেন ২৮ বলে ৩০ ও নাজমুল শান্ত ২১ বলে ১৯ রান করেন। পেস বোলিংয়ে মুস্তাফিজুর রহমান ও হাসান মাহমুদ ভালো করেছেন। সিরিজ জিততে আজ অলরাউন্ডিং পারফরম্যান্সের বিকল্প নেই মোসাদ্দেক বাহিনীর।

সর্বশেষ খবর