শিরোনাম
বুধবার, ১ নভেম্বর, ২০২৩ ০০:০০ টা

অনন্য উচ্চতায় মেসি

ক্রীড়া ডেস্ক

অনন্য উচ্চতায় মেসি

পেপ গার্ডিওলা একবার বলেছিলেন, মেসির জন্য আলাদা ব্যালন ডি’অর থাকা উচিত। এর কারণও বলেছিলেন তিনি। মেসির মতো পরিপূর্ণ ফুটবলার ইতিহাসেই কেউ নেই। বর্তমানের কেউ তো তার কাছাকাছি মানেরও নয়। গার্ডিওলা ঠিকই বলেছিলেন। মেসির পায়ে ফুটবল বিশ্ব বহু আগেই যে আত্মসমর্পণ করেছে! সেই ২০০৫ সাল থেকে শুরু। এরপর টানা ১৮টা বছর লিওনেল মেসি খেলেছেন দুরন্ত ফুটবল। বার বার নিজেকেই ছাড়িয়ে গেছেন তিনি। ইতিহাসের রেকর্ডগুলোকে নিয়ে ছেলেখেলাই করেছেন। নতুন নতুন উচ্চতায় পৌঁছে গেছেন আর্জেন্টাইন তারকা। এসবের স্বীকৃতিও তার কম নয়। সোমবার গভীর রাতে তিনি অষ্টম ব্যালন ডি’অর ট্রফি হাতে নিয়ে আরও একটি নতুন মাইলফলক স্থাপন করলেন। পৌঁছে গেলেন এক অনন্য উচ্চতায়।

ব্যালন ডি’অর ট্রফি দেওয়া শুরু হয় ১৯৫৬ সালে। সেবার স্টেনলি ম্যাথুস ৪১ বছরেরও বেশি বয়সে ট্রফিটি জয় করেন। এখনো তার রেকর্ডটা কেউ ভাঙতে পারেননি। মেসি দ্বিতীয় বয়স্ক ফুটবলার হিসেবে ব্যালন ডি’অর ট্রফি হাতে নিলেন (৩৬ বছর)। কেবল এই একটা রেকর্ডই নয়, আরও কত নতুন নতুন পাতা খুললেন তিনি! একজন ফুটবলারের পক্ষে টানা ১৪ বছর একই রকমের ফর্মে থাকাটাই এক অবিশ্বাস্য ব্যাপার। অথচ ১৪ বছর ধরে আটটি ব্যালন ডি’অর জয় করলেন মেসি।

এবারের ব্যালন ডি’অর ট্রফিটা মেসির হাতেই উঠছে, এটা প্রায় নিশ্চিতই ছিল। ইউরোপের মিডিয়াগুলো মেসির হাতে তা তুলেই দিয়েছিল। সোমবার রাতে এটাই সত্যি হলো। ডেভিড বেকহামের হাত থেকে ট্রফিটি হাতে নেন মেসি। দিদিয়ের দ্রগবাও ছিলেন মঞ্চে। এরপর সংক্ষিপ্ত এক বক্তব্য দেন মেসি। সেখানে ধন্যবাদ দেন জাতীয় দলের সতীর্থদের। গত নভেম্বর-ডিসেম্বরে বিশ্বকাপ জয়ের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘আমি এর আগে ২০২১ সালে কোপা আমেরিকা জয় করেছি। সেবার ব্যালন ডি’অর ট্রফিও জয় করি। সেটা ছিল দারুণ একটা মুহূর্ত। তবে এবারের ব্যালন ডি’অর ট্রফিটি স্পেশাল। এটা এসেছে বিশ্বকাপ জয়ের পর।’ মেসির চোখ এবার সামনের বছর আমেরিকার মাটিতে অনুষ্ঠেয় কোপা আমেরিকার দিকে। সেই ট্রফিটাও জিততে চান তিনি। এরপরও কি খেলবেন মেসি! আপাতত বর্তমান নিয়েই থাকতে চান আর্জেন্টাইন তারকা।

প্যারিসের ব্যালন ডি’অর অনুষ্ঠানে সেরা নারী ফুটবলারের ট্রফি পেয়েছেন স্পেনের মেয়ে আইতানা বোনমাতি (ব্যালন ডি’অর ফেমিনিন)। সেরা তরুণ ফুটবলারের পুরস্কার পেয়েছেন জুড বেলিংহ্যাম (কোপা ট্রফি)। সেরা গোলরক্ষক হয়েছেন আর্জেন্টিনার এমিলিয়ানো মার্টিনেজ (ইয়াসিন ট্রফি)। সেরা স্ট্রাইকারের পুরস্কার জয় করেছেন আরলিং হলান্ড (গার্ড মুলার ট্রফি)। ব্রাজিলের ভিনিসাস জুনিয়র পেয়েছেন সক্রেটিস অ্যাওয়ার্ড। এ ছাড়া সেরা ক্লাবের পুরস্কার পেয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি।

সর্বশেষ খবর