Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১৪

খুলনায় ‘তুরুপের তাস’ নতুন প্রার্থীরা

মাঠ গোছাতে ব্যস্ত বড় দুই দলের চার নতুন মুখ

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

খুলনায় ‘তুরুপের তাস’ নতুন প্রার্থীরা

একাদশ সংসদ নির্বাচন ঘিরে খুলনায় বড় চ্যালেঞ্জ নিয়েছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। ছয়টি আসনের বিপরীতে এবার দুই দলের চারজন নতুন প্রার্থী মাঠে রয়েছেন। প্রবীণদের পাশাপাশি নির্বাচনী মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন এসব নবীন প্রার্থী।

আওয়ামী লীগ নেতাদের দাবি, খুলনার উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্য ও রাজনীতিতে ক্লিন ইমেজ ব্যক্তিদের প্রার্থী করা হয়েছে। অন্যদিকে নতুন প্রার্থীদের নির্বাচনের মাঠে নতুন চমক বলছে বিএনপি। আর বিশ্লেষকদের মতে, নানাভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ এবারের নির্বাচনে নতুন প্রার্থীরাই হতে পারেন রাজনৈতিক দলগুলোর ‘তুরুপের তাস’।

জানা যায়, খুলনা-২ ও ৬ আসনে আওয়ামী লীগের একেবারেই নতুন দুই প্রার্থী ভোটের মাঠে লড়বেন। এর মধ্যে খুলনা-২ আসনে বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুষ্পুত্র শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল এবং খুলনা-৬ আসনে প্রার্থী হয়েছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মো. আকতারুজ্জামান বাবু।

এ ছাড়া খুলনা-৩ আসনে বিএনপির প্রার্থী হয়েছেন ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাবেক নেতা রকিবুল ইসলাম বকুল ও খুলনা-৪ আসনে রয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় তথ্যবিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল। এর মধ্যে হেলাল ঢাকা-১৮ আসনে এর আগে নির্বাচন করলেও নিজ জš§স্থানে এটাই প্রথম নির্বাচনে অংশ নেওয়া। নতুন প্রার্থীরা এলাকায় কর্মী-সমর্থকদের পাশাপাশি ভোটারদের কাছে টানতে আলোচনা সভা, মতবিনিময় ও উঠান বৈঠকে অংশ নিচ্ছেন।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন বলেন, খুলনা অঞ্চলের ধারাবাহিক উন্নয়নে আমরা মনে করেছি এখানে বঙ্গবন্ধু পরিবারের একজন সদস্যের জনপ্রতিনিধি হওয়া প্রয়োজন। এ কারণে খুলনা-২ আসনে শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েলকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। তিনি এরই মধ্যে খুলনায় জমি দখল, চাঁদাবাজ, মাদক ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। তরুণ ভোটাররা বঙ্গবন্ধু পরিবারের এ সদস্যকে আপন করে নিয়েছেন। তিনি এই আসনে বিজয়ী হলে খুলনা-২ আসন হবে নৌকার ঘাঁটি।

দলের তরুণ প্রার্থী নিয়ে মহানগর বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, আমরা এই নির্বাচনকে নিয়েছি গণতন্ত্র মুক্তির আন্দোলন হিসেবে। এখানে দলের অনেক ত্যাগী নেতাকে ছাড় দিতে হয়েছে। সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড চাঙ্গা করতে ও নির্বাচনে চমক হিসেবে নতুন প্রার্র্থীদের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। এদিকে ‘নতুন প্রার্থী নির্বাচনের মাঠে বড় চ্যালেঞ্জ’ উল্লেখ করে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) খুলনার সম্পাদক অ্যাডভোকেট কুদরত-ই খুদা বলেন, রাজনীতিতে নতুন নেতৃত্বের দিকে তরুণ ভোটাররা আকৃষ্ট হন বেশি। পাশাপাশি প্রবীণরাও তাদের কাছে অনেক কিছুই প্রত্যাশা করেন। যেহেতু খুলনার নতুন প্রার্থীরা ক্লিন ইমেজের সে কারণে তারা বাড়তি সুবিধা পাবেন। একইভাবে প্রত্যাশা পূরণের আশ্বাস ও ভোটারদের মন জয় করতে পারলে তারাই হবেন রাজনৈতিক দলগুলোর ‘তুরুপের তাস’।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর