Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ, ২০১৭

প্রকাশ : শুক্রবার, ২২ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২১ জুলাই, ২০১৬ ২১:৪৬
সচেতনতা
বর্ষায় ডেঙ্গু সতর্কতা
অধ্যাপক ডা. খাজা নাজিম উদ্দিন
এমবিবিএস (ঢাকা), এফসিপিএস (মেড),
এফআরসিপি (গ্লাসগো), এফএসিপি (ইউএসএ)
অধ্যাপক, মেডিসিন বিভাগ, বারডেম
চেম্বার : ল্যাবএইড কার্ডিয়াক হাসপাতাল, ঢাকা
বর্ষায় ডেঙ্গু সতর্কতা

বৃষ্টি শুরু হয়েছে, ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব ঘটেছে। ডেঙ্গু এডিস মশাবাহিত ভাইরাস রোগ। জনসচেতনতা বৃদ্ধিই এর প্রতিরোধের প্রধান উপায়।

 

এডিস ইজিপ্টি মশা জঙ্গলে থাকে না। রাতে কামড়ায় না। গায়ে দাগকাটা এ মশা অনেককে কামড়ায়। এরা ঘরে থাকে, বংশ বিস্তার করে পানিতে। ৫ দিনের কম যে কোনো পাত্রে জমে থাকা পানিতে, ফুলের টবের জলকান্দার পানিতে, রাস্তায় জমে থাকা পানিতে।

 

উপসর্গ : জ্বরই প্রধান উপসর্গ। চামড়ায় দানা (র‌্যাশ), রক্তক্ষরণ হয়ে থাকে কারও কারও।

 

জ্বর : অন্য ভাইরাস জ্বরের মতো ডেঙ্গুজ্বর সাতদিনের বেশি থাকে না। প্রথমদিকে একটানা উচ্চ তাপমাত্রায় থেকে ছয়দিনের পর জ্বর চলে যেতে পারে। দুদিন পর একদিন জ্বর না থেকে আবার দুদিনের জ্বর থাকল তারপর জ্বর চলে গেল তাও হতে পারে।

 

অন্যান্য উপসর্গ : সব জ্বরে, বিশেষত ভাইরাস জ্বরে গা ম্যাজ ম্যাজ করে ব্যথা হয়। ডেঙ্গুতে ব্যথা বেশি হয়। অনেকের এত বেশি ব্যথা হয় যে, তারা হাড় ভাঙার সঙ্গে তুলনা করেন। এ ছাড়া রোগীর চোখের পেছনেও ব্যথা অনুভূত হয়।

 

রক্তক্ষরণ : চামড়ায়, মুখে, খাদ্যনালিতে, চোখে হতে পারে। তবে বেশি যা হয় তা হলো মেয়েদের মাসিক একবার হয়ে গেলেও একই মাসে আবার মাসিক হয়।

 

দানা (র‌্যাশ) : ডেঙ্গুর টিপিক্যাল র‌্যাশ বেরোয় জ্বরের ষষ্ঠ দিনে। তখন জ্বর থাকে না। দেখলেই চেনা যায়, খুঁজতে হয় না। এ ছাড়া জ্বরের প্রথমে গায়ে চাপ দিলে আঙ্গুলে ছাপ পড়ে। এটাকে তিনটা ফেইজে বলা হয়।

 

১. ফেব্রাইল ফেইজে জ্বর ও জ্বরের উপসর্গ থাকে।

২. এফেব্রাইল ফেইজে জ্বর চলে যায়। তবে এটাকে ক্রিটিক্যাল ফেসও বলে। ডেঙ্গু হিমোরেজিক জ্বরের স্টেজটা মারাত্মক জটিল হয়। এটা দুইদিন থাকে। জ্বর না থাকলেও এ সময় সতর্ক থাকতে হয়।

৩. কনভালেসেন্ট ফেইজে অধিকংশ সেরে উঠলেও কেউ কেউ ভীষণ দুর্বল হয়। বিষণ্নতায় ভোগেন।

 

ডেঙ্গু দুই ধরনের—

ক. ক্লাসিক্যাল ডেঙ্গু ফিভার : আর দশটা ভাইরাল ফিভারের মতো ভয় না পেলে কোনো সমস্যা নেই।

খ. ডেঙ্গু হিমোরেজিক ফিভার : ক্লাসিক্যাল ডেঙ্গুর সবকিছুই থাকে। রক্তনালির লিকিং হয় বলে বাড়তি কিছু সমস্যা হয়। জ্বরের সঙ্গে যদি প্লাটিলেট কাউন্ট এক লাখের কম হয় এবং হিমাটক্রিট ২০% ভেরিয়েশন হয় তবে সেটা ডেঙ্গু হিমোরেজিক ফিভার।

ডেঙ্গু হিমোরেজিক জ্বরের চারটি গ্রেড রয়েছে।

গ্রেড-১ : টুনিকেট টেস্ট পজিটিভ হওয়া ছাড়া রক্তক্ষরণের আর কোনো আলামত থাকে না।

গ্রেড-২ : দৃশ্যত, রক্তক্ষরণ থাকে।

গ্রেড-৩ : ১ বা ২ এর সঙ্গে যদি ব্লাড প্রেশার কমে, পালস বাড়ে।

গ্রেড-৪ : ১ বা ২ এর সাথে যদি ব্লাড প্রেশার, পালস রেকর্ড না করা যায় গ্রেড ৩ ও ৪-কে একসঙ্গে ডেঙ্গু শক সিনড্রোম বলে।

 

ল্যাবরেটরি পরীক্ষা : খুব টক্সিক না হলে কোনো জ্বরেরই তিনদিন আগে কোনো পরীক্ষার দরকার নেই।

 

টিসি ডিসি হিমোগ্লোবিন ইএসআর, এসজিপিটি : ভাইরাল ফিভারে কাউন্ট বাড়ে না। যদি কাউন্ট কমে, বিশেষ করে টিসি তিন হাজারের নিচে নামে তাহলে ডেঙ্গু নিশ্চিত।  

 

এনএস ১ জ্যান্টিজেন : এটাই জ্বরের প্রথম সপ্তাহের পরীক্ষা। জ্বর থাকাকালীন পজিটিভ হয়।

 

অ্যান্টিবডি পরীক্ষা : সাত দিন পর পজিটিভ হয় বলে এটা কার্যকরী নয়। এনএস ১ অ্যান্টিজেন করা গেলে এটার দরকার ও নেই।

 

প্লাটিলেট কাউন্ট ও হিমাটোক্রিট : প্লাটিলেট আতঙ্ক না থাকলে অত্যাবশ্যকীয় নয়। হিমোরেজক ফিভার ডায়াগনোসিস ও ফলোআপের জন্য করা লাগে। হিমোরেজিক ফিভার হলে পেটে ও ফুসফুসে পানি নিশ্চিত করার জন্য পেটের আল্ট্রাসনোগ্রাফি ও বুকের এক্স-রে করা লাগে।

 

চিকিৎসা ও প্রতিকার : অন্য জ্বরের মতো প্যারাসিটামল দিয়ে জ্বর নামিয়ে রাখতে হবে। জ্বর ১০০-এর নিচে রাখলেই চলবে। প্যারাসিটামল ছাড়া অন্য ওষুধ খাওয়া উচিত নয়। সাপোজিটরি নিলে শুধু প্যারাসিটামলই যথেষ্ট। কয়েকদিন তিন লিটার পানি পান করতে হবে। এটা খুবই দরকার। প্রয়োজনে স্যালাইন নিতে পারেন। আসলে প্যারাসিটামল ও পানিই প্রধান চিকিৎসা।

 

নিউট্রিশন : জ্বরের সময় ক্ষুধামন্দা হয়, বমি লাগে। এ সময় ফলের রস উপকারী। স্বাভাবিক খাবার খাওয়া যাবে। ক্লাসিক্যাল ডেঙ্গু এবং গ্রেড-১ হিমোরিজিকে এর চেয়ে বেশি কিছু লাগে না। গ্রেড-২ এ অতিরিক্ত সমস্যা হলো প্রথমে ধরতে না পারলে চিকিৎসা না দিলে গ্রেড-৩ বা গ্রেড-৪ অর্থাৎ শক সিনড্রোমে চলে যেতে পারে। পরিমিত পানি দিতে হবে জ্বর নামিয়ে রাখতে। গ্রেড-২ তে যদি পেটের ব্যথা কমছে না, বমি হচ্ছে অথবা প্রেশার ঠিক থাকছে না তাহলে হাসপাতালে নিতে হবে। বাচ্চাদের ক্ষেত্রে এটা বেশি হয়।

 

রক্ত দেওয়া (ব্লাড ট্রান্সফিউশন) : রক্তক্ষরণ হলে নিয়ম হলো রক্তবদল করতে হয়। সিস্টলিক ব্লাড প্রেশার ১০০-এর নিচে নামলে, পালস ১০০-এর বেশি হলে। হিমোগ্লোবিন ১০-এর নিচে নামলে ও হিমাটোক্রিট কমে গেলে রক্ত দিতে হবে।

 

প্রতিরোধ : মশা মারতে ঘরে স্প্রে ব্যবহার করুন। তা ছাড়া ফুল হাতা কাপড় এবং পা মোজা ব্যবহার করুন। দিনে মশারি দিয়ে ঘুমান। মশার ডিম থেকে লারভা হয়ে থাকে। তাই এই পাত্র মশার বংশ বিস্তার রোধ করতে জলকান্দায়, নির্মাণ সামগ্রীর পানি, বৃষ্টিতে জমে থাকা রাস্তার এবং পাত্রের পানিতে স্প্রে করুন।  

 

জনসচেতনতা : ডেঙ্গুর ভ্যাক্সিন নেই। ভাইরাস রোগ বিধায় প্রতিকারের ওষুধ নেই। ৬-৭ দিনের এই রোগে অযৌক্তিক ভীতির দরকার নেই। জ্বর নামিয়ে রাখুন, পরিমিত পানি পান করুন। জনসচেতনাই হবে ডেঙ্গু প্রতিরোধের প্রধান পথ।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow