Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ৪ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ জুন, ২০১৬ ২২:২৪
হবিগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধের দুর্লভ স্মৃতিস্মারক
সংরক্ষণের অভাবে মলিন লাল জিপ
স্মৃতিচিহ্ন
সংরক্ষণের অভাবে মলিন লাল জিপ

হবিগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত সেই লাল জিপ ব্যবহৃত হতো মুক্তিযোদ্ধাদের যাতায়াত, অস্ত্র আদান-প্রদান এবং খাদ্য সরবরাহের কাজে। যুদ্ধের পর সেই জিপটির স্থান হয় হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে। কিন্তু সেখানে যথাযথ সংরক্ষণের অভাবে রোদ-বৃষ্টিতে নষ্ট হয়েছে শুধু। এরপর সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে এই জিপটি সংরক্ষণের জন্য দৌড়ঝাঁপ হলেও সবকিছুই আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় বাধাগ্রস্ত হয়েছে। একইভাবে সংরক্ষণের উদ্যোগ নেই মুক্তিযুদ্ধের সময় ব্যবহৃত অস্ত্রাগারটিও।

হবিগঞ্জ। মুক্তিযুদ্ধের নানা স্মৃতি সেখানে জমা রয়েছে। সে স্মৃতি কথায় জড়িয়ে আছে কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর নাম।  ভাষা আন্দোলনসহ ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে সক্রিয় অংশগ্রহণের জন্য তিনি কারাভোগ করেন। তিনি ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে চুনারুঘাট-বাহুবল-শ্রীমঙ্গল আসন থেকে তদানীন্তন জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৭০। ১৯৭০-এর ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক ওয়ারলেসে প্রেরিত স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রটি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মানিক চৌধুরী সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ শুরু করেন। বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের পর এই বীর মুক্তিযোদ্ধা হবিগঞ্জে প্রতিরোধ যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে থাকেন। এ সময় তার নির্বাচনী এলাকার চা-শ্রমিকদের নিয়ে তিনি গঠন করেন বিশাল ‘তীরন্দাজ বাহিনী’। এ লক্ষ্যে হবিগঞ্জ সরকারি অস্ত্রাগার থেকে অস্ত্র-গোলা বারুদ সংগ্রহ করে সিলেটের প্রথম ও দীর্ঘস্থায়ী শেরপুর-সাদীপুর যুদ্ধের নেতৃত্ব দেন। মুক্তিযুদ্ধের চার নম্বর সেক্টরে অসামান্য সাহসিকতার সঙ্গে যুদ্ধ পরিচালনা, মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ প্রদান, খাদ্য সংগ্রহ এবং ভারত থেকে অস্ত্র সংগ্রহের ক্ষেত্রে মানিক চৌধুরী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তার বহুমুখী সাহসী ভূমিকার জন্য মুক্তিযুদ্ধকালীন চিফ অফ স্টাফ মেজর জেনারেল এম এ রব, বীর উত্তম তাকে ‘কমান্ড্যান্ট’ উপাধিতে ভূষিত করেন। কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী কন্যা অ্যাডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী বর্তমান জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অসাধারণ সাহসিকতা ও বীরত্বের স্বীকৃতি স্বরূপ কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীকে স্বাধীনতা পুরস্কার (মরণোত্তর) ২০১৫ প্রদান করা হয়েছে। হবিগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত লাল জিপের গল্পটা আলাদা করেই বলতে হয়। হবিগঞ্জ জেলা প্রকাশক কার্যালয়ে এখনো পড়ে আছে সেই লাল জিপটি। যার সঙ্গে জড়িয়ে মুক্তিযুদ্ধের অনেক ঘটনাবহুল স্মৃতি। কড়া লাল রঙের জিপটি রোদ-বৃষ্টির ঝাপটা সইতে সইতে এখন বিবর্ণ। এখন একটি পলিথিনের ছাউনি দিয়ে কোনোমতে অবকাঠামো টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। দীর্ঘ প্রায় ৯ মাস যুদ্ধে দেশ স্বাধীন হয়। তারপর পেরিয়ে গেছে ৪৫ বছর। এর মধ্যেও সংরক্ষণের ব্যবস্থা হয়নি মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত লাল জিপটির। খোলা আকাশের নিচে পরিচর্যাবিহীন ও অযত্ন- অবহেলায় জিপটি আজ জীর্ণদশায়। মুক্তিযুদ্ধকালীন ফোর হুইলার আট আসন বিশিষ্ট লাল টকটকে এ ‘টয়োটা’ জিপটি কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী ব্যবহার করে মুক্তিযোদ্ধাদের নানাভাবে সহায়তা দিয়েছেন। শুধু তাই নয়, এ জিপটিতে আরোহণ করেছেন মুক্তিযুদ্ধের উপ-অধিনায়ক জেনারেল এম এ রব, সাবেক সমাজকল্যাণমন্ত্রী এনামুল হক মোস্তফা শহীদসহ অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধারাও। তৎকালীন সময়ে জিপটি মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল, সাদিপুর, শেরপুর রণক্ষেত্র, ভারতের খোয়াই, আগরতলা ও কৈলাশ শহরসহ বিভিন্নস্থানে মুক্তিযোদ্ধাদের যাতায়াত, অস্ত্র আদান-প্রদান এবং খাদ্য সরবরাহের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়েছিল। যুদ্ধের পর সেই জিপের স্থান হয় জেলার প্রশাসকের গ্যারেজে। সেখানে অবহেলায় নষ্ট হচ্ছিল এটি। তারপর ‘চেতনায় ৭১ হবিগঞ্জ’ এর সদস্য সচিব বর্তমান মহিলা আসনের এমপি কেয়া চৌধুরীর চেষ্টায় জিপটি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের ছাদে সংরক্ষণের ব্যবস্থা হয়। এরপর এর উপরে কোনো শেড না থাকায় রোদ-বৃষ্টিতে নষ্টই হয়েছে শুধু। এরপর দফায় দফায় এটি সংরক্ষণের জন্য জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে অনেকবার বলেছেন কেয়া চৌধুরী। লাভ হয়নি। সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে এই লাল জিপটি সংরক্ষণের জন্য দৌড়ঝাঁপ হলেও সবকিছুই যেন আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় আটকে যাচ্ছে বারবার। এদিকে অবহেলায় নষ্ট হতে বসেছে এই মুক্তিযুদ্ধের দুর্লভ স্মৃতি স্মারকটি। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি স্মারকের মধ্যে একইভাবে সংরক্ষণের অভাবে অরক্ষিত রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের সময় ব্যবহৃত অস্ত্রাগারটি। মুক্তিযুদ্ধকালীন টেজারি অস্ত্রাগার বর্তমানে জেলা তথ্য অফিস। এমপি কেয়া চৌধুরী এ নিয়ে বলেন, ২৫ মার্চ রাতে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র (তার বার্তা) আসে তার পিতার কাছে। এ ঘোষণাপত্রসহ সংরক্ষণের অভাবে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে থাকা মুক্তিযুদ্ধে ব্যবহৃত জিপ, মুক্তিযুদ্ধের বহু স্মারক পড়ে রয়েছে হবিগঞ্জে। তাই তার পিতা কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী কর্তৃক রেখে যাওয়া জমিতে জাদুঘর নির্মাণের উদ্যোগ সফল করতে পরিকল্পনামন্ত্রী ও সংস্কৃতিমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করলে তারা ইতিবাচক সাড়া দেন। এই জাদুঘরে স্মৃতিগুলো সংরক্ষণ করা সম্ভব। আর নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের অনেক ইতিহাস জানতে পারবে। জাদুঘরে মুক্তিযুদ্ধের স্মারক সংরক্ষণ হবে। লাইব্রেরি, সেমিনার হল, কয়েকটি গ্যালারি। এ ছাড়া হবিগঞ্জের পুরাতন হাসপাতাল সড়কের পাশে গড়ে উঠেছে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবাহী সামগ্রীর দুর্লভ এক সংগ্রহশালা।

অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, এখানে রয়েছে বঙ্গবন্ধুর হাতে লেখা স্বাধীনতা ঘোষণার মূল দলিল। রয়েছে যুদ্ধকালে বিভিন্ন সেক্টরের নীতি-নির্ধারণী বৈঠকের নথি, মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যবহৃত রেডিও, গুলিবিদ্ধ গ্লাস, টিন, কাঠের টুকরো, গুলির ব্যাগ, পোশাক, বীরাঙ্গনা ও ভাষাসৈনিকদের ব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিস, ১৯৬৫ সালে পাকিস্তান-ভারত যুদ্ধের সময়কার বিভিন্ন চিঠিসহ নানাবিধ স্মারক। পৌনে দুই শতক জায়গার ওপর দীর্ঘদিনের চেষ্টায় জাদুঘরটি গড়ে তুলেছেন সংসদ সদস্য আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী। ১০ বছর ধরে গ্রাম থেকে গ্রামে ঘরে ঘরে গিয়ে খুঁজে বের করছেন মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন। এ ছাড়া জাদুঘরে বিভিন্ন সেক্টরের নীতিনির্ধারণী বৈঠকের নথি, ’৭২ সালে যুগভেরী পত্রিকায় মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আব্বার সাক্ষাৎকার, প্রতিরোধযুদ্ধে তীরন্দাজবাহিনীর তীর-ধনুক, যুদ্ধের সময় হলদারপুর গ্রামে বিমান হামলায় গুলিবিদ্ধ বিভিন্ন জিনিস, মুছাপাড়া গ্রামের শহীদদের ব্যবহৃত আসবাব, গ্লাস, টাকার ব্যাগ, পাসপোর্ট, যুদ্ধকালীন আব্বার ব্যবহৃত দুরবিন, গুলির ব্যাগ, পোশাক, মুজিবকোট, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের সময়কার বিভিন্ন মিটিংয়ের ছবি, বীরাঙ্গনা ও ভাষাসৈনিকদের ব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিস, ’৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধের সময়কার মেয়েকে লেখা বাবার চিঠি, স্ত্রীকে লেখা স্বামীর চিঠি, যুদ্ধের সময় লুট হওয়া কাঁসার বাসন-কোসন, খড়ম, হুক্কা, মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যবহৃত রেডিও, ১৯২৬ সালের এক বিয়ের শাড়ির টুকরোসহ অনেক কিছু আছে। এখনো খুঁজে যাচ্ছি।’ এমপি কেয়া চৌধুরী ২০০৬ সালে বীরাঙ্গনাদের নিয়ে কাজ শুরু করেন। ছয়জন বীরাঙ্গনাকে খুঁজে বের করে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতির জন্য আবেদন করেন। তারা এখন  গেজেটভুক্ত। তাদের কাছে মুক্তিযুদ্ধের অনেক স্মারক  পেয়েছেন। তিনি বলেন, ‘২০০৯ সালে হবিগঞ্জে “চেতনায় ৭১” নামে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিই। সংগঠনটি ২০১০ সালে নিবন্ধিত হয়। এ সংগঠনের মাধ্যমে জাদুঘর স্থাপনের উদ্যোগ নিলাম।’ কেয়া চৌধুরীর দাবি, এ জাদুঘরে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার যে মূল দলিল আছে তা আর কারও কাছে নেই। হবিগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধের এই স্মৃতিস্মারকগুলো সংরক্ষণের অভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এখনই কর্তৃপক্ষ সচেষ্ট না হলে এ সবই হারিয়ে যাবে কালের গহ্বরে।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow