২৭ নভেম্বর, ২০২২ ১৫:৪৭
চাঁপাইনবাবগঞ্জ

মালচিং পদ্ধতিতে সবজি চাষে লাভবান হচ্ছে কৃষক

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

মালচিং পদ্ধতিতে সবজি চাষে লাভবান হচ্ছে কৃষক

চাঁপাইনবাবগঞ্জে মালচিং পদ্ধতিতে সবজি চাষ করে লাভবান হচ্ছে কৃষক। মূলত চীন ও জাপানের বিষমুক্ত সবজি চাষের একটি পরিবেশবান্ধব পদ্ধতির নাম হচ্ছে মালচিং। বিভিন্ন ধরনের বস্তু দিয়ে যখন গাছপালার গোড়া, সবজি ক্ষেত ও বাগানের বেডের জমি বিশেষ পদ্ধতিতে ঢেকে দেওয়া হয় তখন তাকে মালচিং পদ্ধতি বলা হয়। আর এ পদ্ধতিতে সবজি চাষ করলে উপকারী পোকা-মাকড়, মাছ, ব্যাঙ, পাখি ও গুই সাপ প্রভৃতি সংরক্ষণ করা সম্ভব হবে।

কৃষি বিভাগের মতে, বাংলাদেশের ৪৯২ টি উপজেলার মধ্যে ২০টি উপজেলাতে এ মালচিং পদ্ধতিতে বৈজ্ঞানিকভাবে সবজি চাষ হচ্ছে। আর এ পদ্ধতিটি চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমাস্তপুর উপজেলায় চলমান রয়েছে। উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের আলমপুর, সাহাপুর কালন ও বিলগুলদাহা মৌজাসহ বেশ কয়েকটি মৌজায় এ পদ্ধতিতে সবজি চাষ হচ্ছে। এতে করে কৃষকরা যেমন লাভবান হচ্ছেন, তেমনি ভোক্তারাও কীটনাশক মুক্ত সবজি পাচ্ছেন। এ পদ্ধতিতে জৈব সার প্রয়োগ করে সবজি চাষ করা হয়ে থাকে।

গোমস্তাপুর উপজেলার আলমপুর মৌজায় মালচিং পদ্ধতিতে চাষ করা সুমন মিয়া নামে এক কৃষক জানান, মালচিং পদ্ধতিতে এবার তিনি ৭ কাঠা জমিতে ২০ হাজার টাকা খরচ করে শসা চাষ করছেন। এ পদ্ধতিতে চাষ করলে গাছের পাশে ঘাস জন্মায় না, তাছাড়া এ সবজিতে পোকামাকড়েরও তেমন আক্রমণ হয় না এবং এ পদ্ধতিতে সবজি চাষ করে বেশ লাভবান হয়েছেন বলেও জানান তিনি।

অপর কৃষক তোজাম্মেল হক জানান, এবার মালচিং পদ্ধতিতে শসা প্রথম চাষ করেছেন। নতুন মালচিং পদ্ধতির মাধ্যমে ১৫ কাঠা জমিতে প্রায় ২৮ হাজার টাকা খরচ করে আশা করছেন প্রায় এক লাখ টাকা আয় করতে পারবেন তিনি।

মালচিং পদ্ধতিতে করোলা চাষকারী মতিউর রহমান জানান, এবার মালচিং পদ্ধতিতে ৬ কাঠা জমিতে করলা চাষ করে কৃষি অফিস থেকে বীজ, মালচিং শীট ও পোকামাকড় দমনের জন্য শীট পেয়েছেন।

এদিকে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তানভীর আহমেদ সরকার বলেন, সারা দেশের ২০টি উপজেলায় আইপিএম বা সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনা বলতে পরিবেশকে দূষণমুক্ত রেখে প্রয়োজনে এক বা একাধিক ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে ফসলের ক্ষতিকারক পোকা রোগ বালাইকে অর্থনৈতিক ক্ষতির সীমার নিচে রাখাকে বুঝায় যাতে করে পরিবেশ দূষিত না হয়। এ পদ্ধতিতে বাংলাদেশের ২০ টি উপজেলার ২০ টি মডেল ইউনিয়নে কৃষি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে সবজি চাষ করা হচ্ছে এবং গোমস্তাপুর উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন মৌজাই প্রয় ৩'শ বিঘা জমিতে ৫০০ জন কৃষককে ২০ টি গ্রুপে ভাগ করে প্রতি গ্রুপে ২৫ জন কৃষকের মাধ্যমে সবজি চাষ করা হচ্ছে। 

এই রকম আরও টপিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর