শিরোনাম
প্রকাশ : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১০:১৫
আপডেট : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৫:০০

মাঠের লড়াই শুরু আজ

চোখ ধাঁধানো জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বঙ্গবন্ধু বিপিএল) পর্দা উঠেছে গত রবিবার। আর মাঠের লড়াই শুরু হচ্ছে আজ

মেজবাহ্-উল-হক

মাঠের লড়াই শুরু আজ

চোখ ধাঁধানো জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বঙ্গবন্ধু বিপিএল) পর্দা উঠেছে গত রবিবার। আর মাঠের লড়াই শুরু হচ্ছে আজ। প্রথম দিনে প্রথম খেলায় মাঠে নামছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ও সিলেট থান্ডার। দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হবে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স ও রংপুর রেঞ্জার্স।

উদ্বোধনী ম্যাচে অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে দলে পাচ্ছে না চট্টগ্রাম। ইনজুরির কারণে দ্বিতীয় ম্যাচেও খেলতে পারবেন না বলে জানালেন তিনি। সামনেই জাতীয় দলের পাকিস্তান সফর, তাই সতর্কতার জন্য কোনো ঝুঁকি নিচ্ছেন না মাহমুদুল্লাহ। তিনি বলেন, ‘হ্যামস্ট্রিংয়ের ইনজুরি বলেই একটু সতর্ক থাকতে হচ্ছে। তাড়াহুড়ো করে নেমে গেলে উল্টো ফল হতে পারে। টুর্নামেন্টের শুরুর দিকেই আমাদের অনেক ম্যাচ। সামনেই পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ। এই হ্যামস্ট্রিংয়ে আবার টান লাগলে লম্বা সময়ের জন্য বাইরে চলে যেতে হতে পারে। তাই ঝুঁকি নিতে চাচ্ছি না।’

জাতীয় দলের হয়ে ভারত সফরে টেস্টে ব্যাটিংয়ের সময় হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়েছিলেন তিনি। সেই ইনজুরির কারণেই প্রথম দুই ম্যাচ খেলতে পারছেন না মাহমুদুল্লাহ। মাহমুদুল্লাহ না থাকায় চট্টগ্রামকে নেতৃত্ব দেবেন ইমরুল কায়েস। 
তবে মাহমুদুল্লাহ না থাকলেও এবার তারকাসমৃদ্ধ দলই বানিয়েছে চট্টগ্রাম। আছেন রুবেল হোসেন, নাসির হোসেন, নূরুল হাসান সোহান। ওয়েস্ট ইন্ডিজের তারকা উইলিয়ামসও আছেন। ক্রিস গেইলকেও এবার দলে নিয়েছে বন্দরনগরীর দলটি। তবে ক্যারিবীয় তারকা খেলবেন কেবলমাত্র শেষের দুই ম্যাচ।

এবার দারুণ দল গড়ছে সিলেট থান্ডারও। দলটির মাঠে নামবে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের নেতৃত্বে। স্থানীয় তারকাদের মধ্যে রয়েছেন মোহাম্মদ মিথুন, নাঈম হাসান, সোহাগ গাজী, নাজমুল ইসলাম অপু। জাতীয় দলের তারকা পেসার ইবাদত হোসেনও খেলছেন সিলেটের জার্সিতে। বিদেশি তারকাদের মধ্যে রয়েছেন স্যান্টোকি, আন্দ্রে ফ্লেচার, মোহাম্মদ সামি ও জনসন চালর্সের মতো তারকা।

সিলেট থান্ডারের অধিনায়ক মোসাদ্দেক হোসেন বলেন, ‘প্রথম থেকেই সবাই জানি এটা চ্যালেঞ্জিং টুর্নামেন্ট। অধিনায়ক হিসেবে মনে করি আমাদের দলের জন্যও চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে। আমরা জেতার জন্যই নামব। জেতার চ্যালেঞ্জই আমার কাছে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।’

নিজের দলের শক্তিমত্তা সম্পর্কে মোসাদ্দেক বলেন, ‘আমরা ৩-৪ জন আছি যারা জাতীয় দলে বর্তমানে খেলছি। জাতীয় দলে ঢুকবে এমনও কয়েকজন আছে। এছাড়াও যারা আছেন তারাও একসময়  খেলেছেন। বিদেশিরাও নিজ দেশের জাতীয় দলের খেলোয়াড়। তাই আমি মনে করি টুর্নামেন্টে ফাইট করার মতো ভারসাম্যপূর্ণ দল আমাদের।’ বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচে অপেক্ষা করছে জমজমাট লড়াই।

রংপুর রাইডার্সকে নেতৃত্ব দেবেন আফগান তারকা মোহাম্মদ নবী। আফগান মারকুটে ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শাহজাদও খেলবেন উত্তরাঞ্চলের দলটির হয়ে। তবে রংপুরের বোলিং আক্রমণ বেশ শক্তিশালী। জাতীয় দলের দুই তারকা বোলার মুস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদ রয়েছেন। স্পিনে রয়েছেন আরাফাত সানি। টি-২০র তারকা ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ নাঈমও রয়েছেন রংপুরে। স্কোয়াড নিয়ে দারুণ খুশি অধিনায়ক। মোহাম্মদ নবী বলেন, ‘আমাদের দলটা বেশ ভারসাম্যপূর্ণ। বোলিং-ব্যাটিং দুই বিভাগেই। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্যই মাঠে নামব আমরা।’

তবে নেতৃত্ব পেয়ে বেশ খুশি আফগান তারকা। নবী বলেন, ‘বাংলাদেশ আমার কাছে খুবই পরিচিত। এখানে আমি ৯ বছর থেকে খেলি। প্রতিটি ভেন্যু আমার চেনা। ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট সব মাঠই আমার খুব ভালো করে চেনা। আশা করি, অধিনায়কত্ব করতে কোনো সমস্যাই হবে না।’

তবে রংপুর রেঞ্জার্সকে চ্যালেঞ্জ জানানোর জন্য প্রস্তুত কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সও। ব্যাটিং-বোলিং দুই বিভাগেই ভারসাম্যপূর্ণ। সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, কুশল পেরেরা, ডেভিড মালানের মতো তারকা রয়েছেন। আফগান ঘূর্ণি জাদুকর মুজিব-উর-রহমান থাকায় বোলিং সাইড বেশ শক্তিশালী। স্থানীয় স্পিনারদের মধ্যে রয়েছেন সানজামুল ইসলাম। পেস আক্রমণের নেতৃত্বে থাকবেন আবু হায়দার রনি। ঘরোয়া লিগে দুর্দান্ত বোলিং করেন তিনি।

কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স ও রংপুর রেঞ্জার্স ম্যাচটিও যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হতে যাচ্ছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য