শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৬:৫২

নানা সমস্যায় দিনাজপুর সরকারি কলেজ

দিনাজপুর প্রতিনিধি

নানা সমস্যায় দিনাজপুর সরকারি কলেজ

উত্তর জনপদের একটি প্রাচীনতম ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দিনাজপুর সরকারি কলেজ। ৭৮ বছর পেরোনো এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রবেশপথে গেটে আধুনিকতার ছোঁয়া  লেগেছে, তবে কলেজটি নানা সমস্যায় এখনও জর্জরিত। 
শিক্ষার্থীর সংখ্যা পর্যাপ্ত থাকলেও এখনও রয়েছে শিক্ষকসহ জনবল, পরিবহন, ছাত্রাবাস সংকট। নেই ল্যাব এটেনন্ডেন্ট। ৩য়-৪র্থ শ্রেণির কর্মচারিও প্রয়োজনের তুলনায় রয়েছে কম। প্রায় ২৮ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য ৬টি ছাত্রাবাস রয়েছে। পুরনো প্রশাসনিক ভবন ও অডিটোরিয়াম। 

শহরের সুহারীতে অবস্থিত দিনাজপুর সরকারি কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের ক্লাশ করতে হয় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার দূরে বালুবাড়ীতে। এতে এক জায়গায় ক্লাশ, আরেক জায়গায় অন্যান্য শিক্ষা কার্যক্রম। এতে নানা বিড়ম্বনায় পড়তে হয় শিক্ষকসহ শিক্ষার্থীদের। অপরিদিকে বিসিএস ক্যাডারে নিয়োগপ্রাপ্তরা বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা বঞ্চিত এবং সময়মত পদন্নতি না হওয়ায় ক্ষোভ রয়েছে শিক্ষকদের মাঝে। 

উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের মোসাদ্দেক হোসেনসহ কয়েক শিক্ষার্থী জানান, সরকারি কলেজে দ্বিতল ভবনের লাইব্রেরিতে রয়েছে ২২৭১৬টি বই। কিন্তু একশ আসনের লাইব্রেরি হলেও সেখানে কলেজ চলাকালীন সময়ে শুধুমাত্র লাইব্রেরি খোলা থাকে এবং ক্লাশের বই ছাড়া অন্য কোনো বই পড়ার সুযোগ নাই বা দেওয়া হয়না।

ক্লাশ শেষে কোনো বিভাগে সেমিনার কক্ষ নেই। থাকলেও সেটা সচল নেই। তারা আরও জানান, কলেজ সময়সূচির পর শিক্ষার্থীদের কলেজে অবস্থান করতে দেওয়া হয় না। এতে উচ্চতর শ্রেণির শিক্ষার্থীসহ সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো তাদের কার্যক্রমে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে।  

সহকারী অধ্যাপক দেলোয়ার হোসনসহ শিক্ষকরা জানান, কলেজে পর্যাপ্ত শিক্ষক নেই। ক্লাশ রুম সংকট রয়েছে। তবে বড় ক্লাশ রুম প্রয়োজন বেশি। ক্লাশ রুমের সঙ্গে সেমিনার কক্ষও প্রয়োজন। কলেজ ক্যাম্পাস থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার দূরে বালুবাড়ীতে কলেজের আরেকটি নিজস্ব ভবনে উচ্চ মাধ্যমিক ক্লাশ নিতে নিজ খরচ ও সময়ে শিক্ষকদের যাতায়াত করতে হয়। শিক্ষকদের কমনরুম থাকলেও এর পরিধি বাড়ানো জরুরি।

এই কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক ও স্নাতক (পাস) পর্যায়ে নিয়মিত পাঠদানসহ স্নাতক (সম্মান) পর্যায়ে ১৫টি, স্নাতকোত্তর প্রথম পর্বে আটটি এবং স্নাতকোত্তর শেষ পর্বে ১৫টি বিষয়ে পাঠদানের ব্যবস্থা রয়েছে, তাই আরও শিক্ষকের পদসৃষ্টি করে পদায়ন জরুরি হয়ে পড়েছে। 

উল্লেখ্য, দিনাজপুর সরকারি কলেজ ১৯৪২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর ১৯৬৮ সালে এটি সরকারি করা হয়। কলেজের নিজস্ব ভূমি ৬৬ একর। ক্যাম্পাসে একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবন রয়েছে ২৩টি ও প্রাচীন আমলের ২০০ আসন বিশিষ্ট একটি অডিটোরিয়াম। ছাত্রাবাস রয়েছে ছাত্রীদের ৩টি এবং ছাত্রদের ৩টি। শিক্ষক ডরমেটরি একটি। শিক্ষার্থী প্রায় ২৮হাজার।

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য