শিরোনাম
২৭ জানুয়ারি, ২০২২ ১২:৪৮

ঢাবিতে 'গেস্টরুম' নির্যাতন : বৈদ্যুতিক বাতির দিকে তাকিয়ে জ্ঞান হারালেন শিক্ষার্থী

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক:

ঢাবিতে 'গেস্টরুম' নির্যাতন : বৈদ্যুতিক বাতির দিকে তাকিয়ে জ্ঞান হারালেন শিক্ষার্থী

ফাইল ছবি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হলে কথিত 'গেস্টরুমে' নির্যাতনের শিকার হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের এক শিক্ষার্থী। নির্যাতনের এক পর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাও নিয়েছেন আকতারুল ইসলাম নামের ওই শিক্ষার্থী। বুধবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। 

এ ঘটনায় হল প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী। ভুক্তভোগী, প্রত্যক্ষদর্শী এবং অভিযোগপত্র থেকে জানা যায়, বুধবার রাতে ছাত্রলীগের প্রচলিত ‘নিয়মিত কৈফিয়ত’ কর্মসূচি গেস্টরুম ছিল। অসুস্থ থাকায় এতে অনুপস্থিত ছিল প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী আকতারুল। তবে দ্বিতীয় বর্ষের বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী তাকে জোরপূর্বক গেস্টরুমে ডেকে নেয় এবং অনুপস্থিত থাকার শাস্তিস্বরুপ তাকে জলন্ত বৈদ্যুতিক বাতির দিকে তাকিয়ে থাকতে নির্দেশ দেয়। 
কিছুক্ষণ তাকিয়ে থাকার পর আকতারুল আরও অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাকে রুমে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে চেতনা হারিয়ে ফেলে। অবস্থা বেগতিক দেখে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে ডাক্তাররা তার ইসিজি করান এবং প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে হলে পাঠান। 

জানা যায়, নির্যাতনের ঘটনায় নেতৃত্ব দেয় সমাজবিজ্ঞান বিভাগের কামরুজ্জামান রাজু, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সাইফুল ইসলাম, লোকপ্রশাসন বিভাগের সাইফুল ইসলাম রোহান, ইতিহাস বিভাগের হৃদয় আহমেদ কাজল, সমাজকল্যাণ বিভাগের ইয়ামিম ইসলাম, মনোবিজ্ঞান বিভাগের ওমর ফারুক শুভ। অভিযুক্তরা সকলেই ২০১৯-২০ সেশনের শিক্ষার্থী। জানা যায়, এরা সবাই হল ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশী আবু ইউনুস ও রবিউল ইসলমা রানার অনুসারী। ইউনুস এবং রানা উভয়ই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের অনুসারী। 

এদিকে, নির্যাতনের বিষয়টি জানাজানি হলে মধ্যরাতে হলে আসেন হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আব্দুল বাছির। এসময় তিনি ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর সাথে দেখা করে তাবে সার্বিক নিরাপত্তার আশ্বাস দেন। এসময় তিনি বলেন, এ বিষয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তিন কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিবে। সেই আলোকে অভিযোগ প্রমাণিত হলে অভিযুক্তদের সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হবে।

এদিকে, অভিযোগের বিষয়ে আবু ইউনুস বলেন, তারা (ছাত্রলীগের দ্বিতীয় বর্ষের কর্মীরা) যে গেস্টরুম নিচ্ছে, সে বিষয়ে আমরা কিছুই জানি না। হল প্রশাসনের প্রতি আহ্বান থাকবে যেন দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা হয়। একই কথা বলেছেন হল ছাত্রলীগের নেতা বরিউল ইসলাম রানা।

বিডি প্রতিদিন/এএম

এই রকম আরও টপিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর