শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:৩৫

দখল দূষণে নদী

আজ বিশ্ব নদী দিবস

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

দখল দূষণে নদী

দেশের অর্থনীতির প্রাণকেন্দ্র বন্দরের হৃৎপি-খ্যাত কর্ণফুলী নদী চরম মাত্রায় দখলের কবলে। পক্ষান্তরে উপমহাদেশের অন্যতম প্রাকৃতিক মৎস্যপ্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদী দূষণে বিপর্যন্ত। দেশের অন্যতম এ দুই নদীর এখন ত্রাহি অবস্থা। চট্টগ্রাম নগর ও জেলার ১৫টি উপজেলা দিয়ে পাঁচটি নদী বহমান। এর মধ্যে আছে ৩৬ দশমিক ৫০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে কর্ণফুলী নদী, ৭২ দশমিক ৫০ কিলোমিটার হালদা নদী, ২১৩ কিলোমিটারের সাঙ্গু নদী ২১৩ কিলোমিটার, ৪০ কিলোমিটারের ডলু নদী এবং ১৫ কিলোমিটারের ফেনী নদী। এর মধ্যে জাতীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে কর্ণফুলী ও হালদা নদী। সরেজমিন দেখা গেছে, আগের উচ্ছেদকৃত স্থানগুলো এখন ব্যবহার হচ্ছে ট্রাক-লরি এবং পণ্য লোড আন-লোডের ঘাট হিসেবে। এসব এলাকায় তৈরি হয়েছে ছোট ছোট টংয়ের দোকান। উচ্ছেদকৃত স্থানে রাখা হয়েছে লবণ, মসুর ডালের বস্তাসহ ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন পণ্য। আনু মাঝির ঘাট, মাঝির ঘাট, আদম ঘাট, লবণ ঘাট, বিবি মসজিদ লেন, বারিক বল্ডিং মোড়ের ঘাট, সদরঘাট লাইটারেজ জেটি ঘাট, কর্ণফুলী ঘাটসহ উচ্ছেদকৃত স্থানসমূহে অভিন্ন অবস্থা। অভিযোগ আছে, অভিযান বন্ধ থাকার সুবাধে উচ্ছেদকৃত স্থান ফের বেদখল হওয়া, পরিত্যক্ত অবস্থায় ফেলে রাখলে এবং উচ্ছেদ করতে বিলম্ব হলে আবারও বেদখল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। তাছাড়া অভিযানে লবণ মিলসহ ছোট ছোট অনেক স্থাপনা উচ্ছেদ করা হলেও বড় কিছু স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়নি। তাই দ্রুত উচ্ছেদ এবং মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা জরুরি।

দূষণ চলছে হালদায় : নানাভাবেই দূষণ হচ্ছে হালদা। হালদায় পড়ছে শিল্পকারখানা, গৃহস্থালি, কীটনাশকসহ নানা বর্জ্য। ফেলা হয় প্লাস্টিকের বোতল, পলিথিনের প্যাকেট, খাবারের উচ্ছিষ্ট। কারেন্ট জাল দিয়ে ধরা হচ্ছে মাছ। নিষিদ্ধ থাকলেও ইঞ্জিন বোট দিয়ে তোলা হয় বালি। ফলে দূষিত হয় হালদা নদী। মারা যায় মাছ। ধ্বংস হয় জীববৈচিত্র্য। তবে গত এক বছর ধরে হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ রুহুল আমীনের নিয়মিত অভিযানে এ উপজেলা অংশে দূষণ কমলেও পার্শ্ববর্তী দুই উপজেলার বর্জ্যে দূষণ চলছে। হাটহাজারী উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে দীর্ঘদিন ধরে দূষণ করে আসা এশিয়ান পেপার মিলস এবং ১০০ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতার হাটহাজারী পিকিং পাওয়ার প্লান্ট বন্ধ করে দেওয়া হয়। মুহাম্মদ রুহুল আমীন বলেন, ‘আমরা চাই হালদা নদী বর্জ্য মুক্ত থাকুক। এ ব্যাপারে সরকারের অবস্থানও স্পষ্ট। নদী দূষণে কাউকেই ছাড় দেওয়া যাবে না। কারণ এ নদী দেশেরই সম্পদ।’

আজ বিশ্ব নদী দিবস : বিশ্ব নদী দিবস আজ। প্রতি বছর সেপ্টেম্বরের শেষ রবিবার দিবসটি পালন করা হয়। নদী রক্ষায় নাগরিকদের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করতে বাংলাদেশসহ ৭০টির বেশি দেশে দিবসটি পালিত হচ্ছে। ব্রিটিশ কলম্বিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি ১৯৮০ সাল থেকে প্রতি বছর সেপ্টেম্বর মাসের শেষ রবিবার বিশ্ব নদী দিবস হিসেবে পালন করতে শুরু করে। ২০০৫ সাল থেকে জাতিসংঘের বিভিন্ন সহযোগী সংস্থা দিবসটি পালন করছে। বাংলাদেশে ২০১০ সাল থেকে দিবসটি পালন করে আসছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর