শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ২৩:৪৭

ঐক্যফ্রন্ট কোনো ইস্যু খুঁজে পাচ্ছে না : তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঐক্যফ্রন্ট কোনো ইস্যু খুঁজে পাচ্ছে না : তথ্যমন্ত্রী

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ঐক্যফ্রন্টের উদ্দেশে বলেছেন, যে ইস্যুর সমাধান হয়ে গেছে, সেই ইস্যু নিয়ে মাঠে নেমে হালে পানি পাবেন না। তিনি বলেন, ঐক্যফ্রন্টের মধ্যে প্রচ-  অনৈক্য। আবরার হত্যা নিয়ে তারা একটু ঐক্যবদ্ধ হওয়ার চেষ্টা করছিল। কিন্তু আবরার হত্যার পর সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নেওয়া পদক্ষেপগুলোয় সন্তুষ্ট হয়ে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন স্থগিত ঘোষণা করেছে। তথ্যমন্ত্রী গতকাল সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন   কক্ষে দেশের কেবল নেটওয়ার্ককে ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় আনার লক্ষ্যে আয়োজিত সভার শুরুতে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ঐক্যফ্রন্টের ইস্যু প্রয়োজন, তারা কোনো ইস্যু পাচ্ছে না। তারা আবরার হত্যা নিয়ে পানি ঘোলা করার চেষ্টা করছে। কিন্তু এটি আবরার হত্যাকাে র প্রতিবাদের জন্য নয়, বরং নিজেদের রাজনীতি করার স্বার্থেই। যে কোনো ইস্যু নিয়ে তাদের ঐক্যটা ধরে রাখার চেষ্টা করছে। তিনি বলেন, আমি ঐক্যফ্রন্টকে বলব, যে ইস্যু সমাধান হয়ে গেছে, সেই ইস্যু নিয়ে মাঠে নেমে হালে পানি পাবেন না।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, কেবল নেটওয়ার্ক ডিজিটাল করা হবে। এটা ডিজিটাল না হওয়ার কারণে সম্প্রচার সঠিকমতো হয় না, একই সঙ্গে সরকার অনেক রাজস্ব হারাচ্ছে। এই নেটওয়ার্ক যারা পরিচালনা করেন তারা একটি সময়সীমার মধ্যে পুরো নেটওয়ার্ক ডিজিটাল করার যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, সম্প্রচারের ক্ষেত্রে বহু অনিয়ম ছিল, সেগুলো দূর করার ক্ষেত্রে অনেক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আগামী ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে অবৈধ ডিটিএইচ সরিয়ে নিতে হবে। বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায়, এমনকি অনেক বিত্তবান পরিবারেও দেখা যাচ্ছে, অবৈধ ডিটিএইচ সংযোগ লাগিয়ে সেগুলোর মাধ্যমে দেশি ও বিদেশি চ্যানেল দেখার এবং প্রদর্শন করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এটি সম্পূর্ণ অবৈধ। তিনি বলেন, বিদেশি কোনো ডিটিএইচকে বাংলাদেশে সম্প্রচার করার জন্য সরকার অনুমতি দেয়নি। এর জন্য হুন্ডি হয়ে বছরে ৭০০ থেকে ৮০০ কোটি টাকা বাংলাদেশ থেকে এ খাতে পাচার হচ্ছে। আমরা ইতিমধ্যেই নির্দেশনা জারি করেছি, আগামী ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে সব অবৈধ ডিটিএইচ সংযোগ সরিয়ে নিতে হবে। যারা এগুলো লাগিয়েছেন এবং যারা ব্যবহার করছেন, দুই পক্ষের ওপরই এ দায়িত্ব বর্তায়। এরপর আমরা যেখানে এ অবৈধ সংযোগ পাব তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

গতকালের বৈঠকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, বেক্সিমকো কমিউনিকেশন লিমিটেড, যাদু ভিশন লিমিটেড ও ন্যাশনওয়াইড মিডিয়া লিমিটেডের প্রতিনিধি, কেবল অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-কোয়াবের প্রতিনিধি এবং সরকার-নিযুক্ত কোয়াব প্রশাসক মোস্তফা জামাল হায়দার উপস্থিত ছিলেন।

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর