শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৪ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ আগস্ট, ২০২০ ২৩:২৭

করোনায় লোকসানে পুড়ছে রেল

ছয় মাসে পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলের আয় কমেছে ২৩০ কোটি টাকা

নজরুল মৃধা, রংপুর

করোনায় লোকসানে পুড়ছে রেল

করোনার ছয় মাসে পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলের আয় কমেছে ২৩০ কোটি টাকা। করোনা পরিস্থিতির আগে আন্তনগর, লোকালসহ ট্রেন চলত ১০২টি। এখন চলছে মাত্র ২০টি। যাত্রীও কমেছে অর্ধেকের মতো। সেই সঙ্গে রেলের অধিকাংশ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে আলস সময় কাটাতে হচ্ছে।

পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলের বাণিজ্যিক বিভাগসূত্রে জানা গেছে, করোনার আগে রংপুর এক্সপ্রেস, লালমনি এক্সপ্রেস, কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস, পঞ্চগড় এক্সপ্রেস, একতা, দ্রুতযান, দোলনচাঁপা, করতোয়া এক্সপ্রেসসহ ৫২টি আন্তনগর ট্রেন ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে চলত। এ ছাড়া লোকাল ট্রেন চলত ৫০টি। এসব ট্রেনে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রী বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করত। কিন্তু করোনা প্রকোপের প্রথম দিকে সড়ক পরিবহনের পাশাপাশি রেলে যাত্রী পরিবহনও বন্ধ হয় যায়। ফলে যাত্রীরা রেল ভ্রমণের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়। সেই সঙ্গে রেল বিভাগের শত শত কর্মী অলস সময় কাটাতে শুরু করে।

ট্রেন বন্ধ থাকায় অনেক কর্মকর্তা ও কর্র্মচারীর চোখেমুখে অনিশ্চয়তার ছায়া নেমেছে। সূত্রমতে, প্রতি মাসে এ অঞ্চলের রেলের আয় হতো গড়ে ৪২ থেকে ৪৩ কোটি টাকা। এখন হয় মাত্র ৪ কোটি টাকা। করোনায় প্রতি মাসে এ অঞ্চলের রেলে আয় কমেছে ৩৮ কোটি টাকা। সে হিসেবে করোনার ছয় মাসে রেলের আয় কমেছে ২৩০ কোটি টাকা।

রেলসূত্র জানান, ১৬ আগস্ট থেকে আরও ৬টি আন্তনগর ট্রেন চালু হওয়ার কথা রয়েছে। করোনার কারণে ট্রেন বন্ধ হয়ে গেলেও কিছু কিছু ট্রেন সীমিত আকারে চালু করা হয়। এখন আন্তনগর ও লোকাল মিলে ২০টি ট্রেন পশ্চিমাঞ্চলে চলছে। তবে যাত্রীসংখ্যা অর্ধেকের কম বলে দাবি করছে রেল বিভাগ।

এদিকে রেলপথে ভ্রমণকারি হুমায়ুন কবিরসহ কয়েকজন যাত্রী জানান, সরকার সড়ক পথে যোগাযোগ ব্যবস্থা অনেকটা স্বাভাবিক করেছে। রেল পথের যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক হলে হাজার হাজার যাত্রী রেল পথে যাতায়াতের সুবিধা পেত। 

কয়েকজন রেল কর্মী জানান, করোনার কারণে ট্রেন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা বাড়িতে অলস সময় কাটাচ্ছেন। পরিস্থিতি কবে স্বাভাবিক হবে, কবে নাগাদ সব ট্রেন আগের মতো চলবে এ বিষয়ে তারা চিন্তিত। অনেকের ঘরে খাবার নেই। আছে শুধুই দুশ্চিন্তা।

পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলের চিফ কমার্শিয়াল ম্যানেজার (সিসিএম) আহসান উল্লাহ ভুইয়া জানান, করোনার কারণে রেলের আয় অস্বাভাবিক কমে গেছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পশ্চিমাঞ্চলীয় রেল আবারও ঘুরে দাঁড়াবে বলে তিনি প্রত্যাশা করেন।

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর