শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ২৩:৫৮

চট্টগ্রামে ৭১ শতাংশ করোনা রোগীই নগরের

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১৮ হাজার ১৮৪ জন। এর মধ্যে চট্টগ্রাম মহানগরে ১৩ হাজার এবং ১৫ উপজেলায় পাঁচ হাজার ১৮৪ জন। ফলে আক্রান্তের ৭১ শতাংশ রোগীই চট্টগ্রাম মহানগরের বাসিন্দা। তবে নগরের মানুষ বেশি সচেতন এবং উপজেলার মানুষ কম সচেতন হওয়ায় কম শনাক্ত হচ্ছে, নাকি উপজেলা পর্যায়ে নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থা অপ্রতুলতাই কম হচ্ছে- এ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। অভিযোগ আছে, উপজেলা পর্যায়ে কেবলমাত্র উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেই করোনার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ফলে অনেক প্রত্যন্ত এলাকার মানুষ নমুনা দিতে যায় না। তাছাড়া করোনার প্রথম দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দৈনিক সর্বোচ্চ ২০টি পর্যন্ত নমুনা সংগ্রহ করা হতো। তাই অনেকে উপসর্গ দেখা দিলে পরীক্ষা না করে চিকিৎসা নিচ্ছেন। পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ জাবেদ বলেন, ‘করোনাকালের প্রথম দিকে দৈনিক ২০টি নমুনা পরীক্ষা করা হতো। তবে এখন করোনার প্রকোপ কমছে। রোগীরাও আসছে না। গত বৃহস্পতিবার নমুনা সংগ্রহ করা হয় সাতটি, বুধবার করা হয় নয়টি। এখন অনেকেই উপসর্গ দেখা দিলে ঘরে থেকে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে সেবা গ্রহণ করছেন।’ চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ‘নগরে ছয়টি ল্যাব ছাড়াও আরও একাধিক বুথের মাধ্যমে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। সে হিসেবে নগরে নমুনা সংগ্রহ উপজেলার তুলনায় বেশি। তাছাড়া উপজেলার তৃণমূল পর্যায়ের মানুষরা সহজে নমুনা প্রদান করতে আসেন না। তাই হয়তো আক্রান্তের সংখ্যা নগরের তুলনায় উপজেলায় কম।’ চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকাল পর্যন্ত সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ৮৬৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৬৪ জন নতুন করে শনাক্ত হয়। এর মধ্যে নগরে ৫০ জন ও ১৫ উপজেলায় ১৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রামে একজনের মৃত্যু হয়। এখন পর্যন্ত মোট মারা যান ২৮৩ জন। এর মধ্যে মহানগরে ১৯৫ জন এবং উপজেলায় ৮৮ জন। ইতিমধ্যে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৪ হাজার ৩৬১ জন। চট্টগ্রাম নগরে বর্তমানে নমুনার পরীক্ষা করা হচ্ছে ফৌজদারহাট বিআইটিআইডি ল্যাব, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ল্যাব, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাব, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাব এবং বেসরকারি ইমপেরিয়াল হাসপাতাল ও শেভরণের ল্যাবে।

তবে গত বৃহস্পতিবার থেকে নতুন করে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে পিসিআর ল্যাবের যাত্রা শুরু হয়।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর