শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১ অক্টোবর, ২০২০ ২৩:৫৪

অভিশাপ যখন শ্যামাসুন্দরী খাল

নজরুল মৃধা, রংপুর

অভিশাপ যখন শ্যামাসুন্দরী খাল
রংপুর মহানগরের প্রাণকেন্দ্র দিয়ে বয়ে যাওয়া শ্যামাসুন্দরী খাল উপচিয়ে অধিকাংশ এলাকা প্লাবিত -বাংলাদেশ প্রতিদিন

প্রবল বর্ষণে রংপুর নগরীর প্রাণকেন্দ্র দিয়ে বয়ে যাওয়া শ্যামাসুন্দরী খাল উপচিয়ে নগরের অধিকাংশ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। গত শনিবার রাতের প্রবল বর্ষণের পানি এখনো অনেক স্থান নিমজ্জিত রেখেছে। শ্যামাসুন্দরী খালের দুই পাশে ১৭০ জন অবৈধ দখলদার চিহ্নিত করা হয়। চলতি বছরের ৫ মার্চ উচ্ছেদের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। কিন্তু অবৈধ দখলে রাখা ১১ জন সিটি করপোরেশনের কাছে আপত্তি দেওয়ায় আটকে আছে শ্যামার সংস্কার ও পুনঃখননের কাজ। খালটি সংস্কার না হওয়ায় নগরবাসী এখন মাশুল দিচ্ছে। এছাড়া শ্যামাসুন্দরী সংস্কারে একজন কনসালট্যান্ট নিয়োগ করার কথা থাকলেও আজ অবধি তা হয়নি।  এদিকে ভয়াবহ জলাবদ্ধতার কবল থেকে নগরবাসীকে রক্ষা করতে শ্যামাসুন্দরী ও কে.ডি খাল খনন সংস্কার এবং অপরিকল্পিত নগরায়ণ নয়, মহাপরিকল্পনার আলোকে নগর সাজানোর দাবিতে বুধবার দুপুরে স্থানীয় প্রেস ক্লাব চত্বরে জলাবদ্ধতায় ভুক্তভোগী নগরবাসীর উদ্যোগে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সিটি করপোরেশন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, খালের হাল জরিপে ১৭০ জন অবৈধ দখলদারকে চিহ্নিত করা হয়। গত ৫ মার্চ উচ্ছেদ শুরু হয়। খালের উৎসমুখ থেকে মাহিগঞ্জ পাটবাড়ি পর্যন্ত খালের দুই পাশের প্রায় ১০ কিলোমিটার সংস্কার কাজ হাতে নেওয়া হয়। এর জন্য আগে রংপুর বিভাগীয় প্রশাসন, জেলা প্রশাসন, সিটি করপোরেশন, পানি উন্নয়ন বোর্ড ও সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় হাল জরিপ করা হয়েছে। মৌজাভিত্তিক কেল্লাবন্দ, রাধাবল্লভ, আলমনগর, রঘুনাথগঞ্জ ও ভগি এলাকার ১৭০ জনকে অবৈধ দখলদার হিসেবে চিহ্নিত করা হয়।  সিটি করপোরেশন বলছে ১৭০ অবৈধ দখলদারের মধ্যে ১১ জন আপত্তি দিয়েছে। তাদের আপত্তি শুনানির পর শ্যামাসুন্দরীর সংস্কার কাজ শুরু হবে। এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ড বলছে শ্যামাসুন্দরীর খনন ও সংস্কারের জন্য একজন কনসালট্যান্ট নিয়োগের দায়িত্ব দেওয়া হয় সিটি করপোরেশনকে। তারা এখনো কনসালট্যান্ট নিয়োগ দিতে পারেনি। তাই শ্যামার সংস্কার শুরু করা সম্ভব হয়নি।  সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র মাহামুদুর রহমান টিটু বলেন, দখলদারদের মধ্যে ১১ জন আপত্তি দিয়েছে। তাদের আপত্তির শুনানি শেষ হলে শ্যামাসুন্দরীর সংস্কার কাজ শুরু হবে। রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মেহেদী হাসান বলেন, শ্যামাসুন্দরী সংস্কারে একজন কনসালট্যান্ট নিয়োগের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সিটি করপোরেশনকে।

 কনসালট্যান্ট নিয়োগ হলে তিনি পরিকল্পনা জমা দেবেন। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ হবে।

নগরীর জলাবদ্ধতা দূর করতে রংপুর পৌরসভার প্রথম চেয়ারম্যান ও ডিমলার রাজা জানকী বল্লভ সেন ১৮৯০ সালে তার মা চৌধুরানী শ্যামাসুন্দরী দেবীর নামে খালটি পুনঃখনন করেন। এই খালটির আগের নাম ছিল ঘোষ খাল।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর