শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:৫২

মামুনুল কাণ্ডে জাপা নেতাসহ আটক ৪

সোনারগাঁয়ে জাতীয় পার্টিকে নিয়ে বিব্রত ও ক্ষুব্ধ আওয়ামী লীগ

রোমান চৌধুরী সুমন, নারায়ণগঞ্জ

রিসোর্টে মামুনুল হককে নারীসহ ঘেরাওয়ের ঘটনায় সোনারগাঁয়ে জাতীয় পার্টিকে নিয়ে বিব্রত ও ক্ষুব্ধ নির্বাচনকালীন জোটপ্রধান আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বলছেন, নির্বাচনকালীন জোট বন্ধু জাতীয় পার্টির কাছ থেকে আমরা এমনটি আশা করিনি। আর জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীরা বলছেন, রিসোর্টে ঘটনার পর সরকারবাদী তিনটি মামলায় জাতীয় পার্টির মাত্র দুজন নেতার নাম ছিল। পরবর্তীতে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের কারণে পরবর্তী মামলায় জাপার ৭২ জনের নাম যোগ করা হয়েছে। গতকাল সোনারগাঁ উপজেলার শম্ভুপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সোনারগাঁ উপজেলার জাতীয় পার্টির সভাপতি আবদুল রউফকে আটক করে পুলিশ। তিনি সোনারগাঁ উপজেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি। এর আগে শনিবার দিবাগত রাতে সোনারগাঁ পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফারুক আহমেদ তপনকে আটক করা হয়েছিল। তিনিও জাতীয় পার্টির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তিনি উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক। এদিকে এভাবে জাপা নেতাদের আটক হওয়ার ঘটনায় পুরো উপজেলায় চলছে তুমুল আলোচনা। এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম জানান, আমাদের হাতে যথাযথ প্রমাণ আসার পরেই পুলিশ তাদের আটক করেছে। তিনি আরও জানান, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে ভাঙচুর করার ঘটনায় উপজেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক নাসির উদ্দীনের দায়ের করা মামলায় আবদুর রউফকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে দুটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। চারজনকে আটকের কথা নিশ্চিত করে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম জানান, রবিবার দিবাগত রাত ১টায় হাজীগঞ্জ এলাকায় নিজবাড়ি থেকে মাওলানা মাঈনুদ্দিনকে গ্রেফতার করা হয়। সেখানে উপস্থিত থাকা জামায়াতের আরেক সদস্য জনি ও বিএনপি নেতা ইসলামকেও গ্রেফতার করা হয়। মাঈনুদ্দিন আহমেদকে ২৮ মার্চ হরতালের ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানার নাশকতার মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। আর সোনারগাঁয়ে জাপা নেতাকে মামুনুল হক কাণ্ডে আটক করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর