শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২৩ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ মে, ২০২১ ২৩:৫২

খুলনায় প্রচণ্ড দাবদাহে দুর্বিষহ জনজীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

খুলনায় প্রচণ্ড দাবদাহে দুর্বিষহ জনজীবন
প্রচন্ড দাবদাহে অতিষ্ঠ প্রাণিকুল। চট্টগ্রামের চিড়িয়াখানায় একজোড়া বাঘ গরম থেকে বাঁচতে জলাধারে নামে -দিদারুল আলম
Google News

খুলনায় গরমের তীব্রতায় জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। প্রচন্ড দাবদাহে আকাশে মেঘ-বৃষ্টির দেখা নেই। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সূর্যের প্রখরতা বাড়তে থাকে। সর্বত্র বইতে থাকে লুন্ডহাওয়া। গরমে বিশেষ করে শ্রমজীবী মানুষ, শিশু ও বয়স্করা অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

খুলনা আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত কয়েক দিন ধরে খুলনা ও যশোর অঞ্চলের ওপর দিয়ে মাঝারি আকারের তাপমাত্রা বয়ে যাচ্ছে। গতকাল খুলনায় তাপমাত্রা ছিল ৩৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর মধ্যে গত সপ্তাহে খুলনায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৪০ দশমিক ২ ডিগ্রি। যা গত সাত বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য আজিজুল হোসেন জানান, প্রচ- গরমে কর্মজীবী মানুষজন পড়েছে সীমাহীন দুর্ভোগে। কোথাও স্বস্তি নেই। শরীর থেকে অতিরিক্ত ঘাম বের হচ্ছে। ফলে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। কিছুটা প্রশান্তির জন্য মানুষ ছুটছেন গাছের ছায়া কিংবা শীতল কোনো স্থানে। তারপরও দুপুরের পর থেকে রাস্তাঘাট ফাঁকা হতে শুরু করে। সারা দিনে টানা রোদের পর রাতের বেলায়ও উত্ত্যপ্ত থাকছে ঘরবাড়ি। গরমে ডায়রিয়ার পাশাপাশি জ্বর সর্দিসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। চিকিৎসকরা বলছেন, গরমের কারণে শিশুরা অসুস্থ হচ্ছে বেশি। হাসপাতালে রোগীর চাপ বাড়তে থাকায় হিমসিম খেতে হচ্ছে। এদিকে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি, মার্চ ও এপ্রিলে বৃষ্টি না হওয়ায় পানির স্তর আগের বছরের তুলনায় প্রায় চার ফুট বেশি নিচে নেমে গেছে।

এতে নগরীর ৮০-৯০ ভাগ নলকূপে পানি না ওঠায় পানির সংকটে ভুগছে নগরবাসী।     

খুলনা আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিসের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ মো. আমিরুল আজাদ বলেন, আরও দুই-তিন দিন এ অবস্থা থাকতে পারে। এরপর ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বড় বৃষ্টি হলে তাপমাত্রা কমতে পারে।

এই বিভাগের আরও খবর