বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা

ব্যাংক থেকে টাকা তুলতে পারছেন না খুলনার পাটকল শ্রমিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

খুলনায় ব্যাংক হিসাব থেকে ২ হাজারের বেশি পাটকল শ্রমিক টাকা তুলতে পারছেন না। শ্রমিকদের এরিয়া বিলের বকেয়া টাকা তাদের পুরনো ব্যাংক হিসাবে দিলেও ‘এটিএম বুথ’ থেকে টাকা তুলতে গেলে ‘কার্ড ইনভ্যালিড’ (অচল) দেখাচ্ছে। সাপ্তাহিক মজুরির টাকা লেনদেনের জন্য চুক্তি অনুযায়ী শ্রমিকদের এসব ব্যাংক হিসাবের বিপরীতে চেকবইও দেওয়া হয়নি। জানা যায়, খালিশপুরের প্লাটিনাম জুবিলী, ক্রিসেন্ট ও স্টার জুট মিলের ৬ হাজার বদলি শ্রমিকের এরিয়া বিলের কয়েক কোটি টাকা ব্যাংকে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এক সপ্তাহে শ্রমিকরা সেই টাকা উত্তোলন করতে পারেননি। পাটকল বদলি শ্রমিক কমিটির উপদেষ্টা নুরুল ইসলাম জানান, ব্যাংকে যোগাযোগ করা হলে নতুন করে দুই কপি ছবি, জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, মিলের গেট পাসের কপিসহ নানা তথ্য দিতে বলছে। লকডাউনের মধ্যে কাগজপত্র জোগাড় করতে গিয়ে ভোগান্তিতে পড়ছেন শ্রমিকরা। ক্রিসেন্ট জুট মিলের জিএম খান মো. কামরুল ইসলাম জানান, মিলে ২ হাজার ৯৮৬ জন শ্রমিকের প্রায় ২৫ কোটি টাকা রূপালী ও এসআইবিএল ব্যাংকে দেওয়া হয়েছে। দীর্ঘদিন ব্যাংকে লেনদেন না থাকায় প্রায় ১ হাজার ১০০ শ্রমিকের অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা টাকা নিতে পারেননি। এসআইবিএল ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা দুই কর্মকর্তাকে পাঠাতে রাজি হয়েছেন। শ্রমিকদের সঙ্গে তারা সরাসরি কথা বলে সমস্যার সমাধান করবেন।

একইভাবে স্টার জুট মিলের জিএম আবুল কালাম আজাদ বলেন, মিলের ১ হাজার ৪০১ জন শ্রমিকের ২৩ কোটি টাকা ব্যাংকে পাঠানো হয়েছে। এটিএম কার্ড অচল থাকায় শ্রমিকরা টাকা তুলতে পারেননি। তিনি বলেন, রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সর্বশেষ এরিয়া বিলের টাকা লেনদেনের পর মজুরি প্রদানের জন্য বিশেষভাবে চালু করা কয়েক হাজার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যাবে। তবে দুয়েক দিনের মধ্যে জটিলতার অবসান হবে। এদিকে শ্রমিকরা বলছেন, ব্যাংক ও মিল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি সহজে সমাধান করতে পারে।