শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৪ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ আগস্ট, ২০২১ ২৩:৪৬

চট্টগ্রামে করোনা সংক্রমণ কমলেও শঙ্কা

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা মনে করেন আক্রান্তের হার কমলেও এখনই সন্তুষ্ট হওয়ার কিছু নেই

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

Google News

চট্টগ্রামে ১০ দিন আগেও করোনাভাইরাসে দৈনিক গড়ে আক্রান্ত হতো ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৪০০। নমুনা পরীক্ষায় আক্রান্তের হার ছিল ৩৩ থেকে ৩৭ শতাংশ। তবে কয়েকদিন ধরে এ হার কমছে। এক সপ্তাহ ধরে আক্রান্ত হচ্ছেন ৬০০ থেকে ৮০০ জন।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা মনে করেন আক্রান্তের হার কমলেও এখনই সন্তুষ্ট হওয়ার কিছু নেই। লকডাউনের সময় চলাফেরা সীমিত হওয়ায় আক্রান্ত কম ছিল। এখন সবকিছু খুলে দেওয়ায় ফের সংক্রমণ বৃদ্ধির শঙ্কা থেকে যাচ্ছে। সংক্রমণের অবস্থা কী দাঁড়ায় তা দেখার জন্য আরও অন্তত ১০ দিন অপেক্ষা করতে হবে।

জানা যায়, ৬ আগস্ট আক্রান্ত হন ১ হাজার ১১৪ জন, ৫ আগস্ট ১ হাজার ১১৭ জন, ৪ আগস্ট ১ হাজার ২৮৫ এবং ৩ আগস্ট ১ হাজার ২৭৩ জন। কিন্তু ১২ আগস্ট আক্রান্ত হন ৬১৬ জন, ১১ আগস্ট ৭৭২ জন, ১০ আগস্ট ৮৭৯ জন, ৯ আগস্ট ৫০৭ জন। অন্যদিকে চলতি মাসের প্রথম দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের ৩০০ শয্যার কভিড ওয়ার্ডে রোগী ভর্তি থাকতেন ৩২০ জনের বেশি। কিন্তু গতকাল সেখানে ভর্তি ছিলেন ২৩৯ জন। তা ছাড়া জেনারেল হাসপাতালেও ১৫৮ শয্যায় সর্বোচ্চ ১৮০ জন পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়েছেন। গতকাল সেখানে রোগী ভর্তি ছিলেন ১২৮ জন। চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে ১৫২ শয্যায় ১৭০ জন পর্যন্ত রোগী ভর্তি থাকতেন এবং প্রতিদিন অন্তত ২০-২৫ জনকে শয্যা সংকটে ফেরত দিতে হতো। সেখানে গতকাল রোগী ভর্তি ছিলেন ১৪২ জন।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ‘এক সপ্তাহ ধরে সংক্রমণ কমছে। আগে ৩৩ থেকে ৩৭ শতাংশ পর্যন্ত সংক্রমণের হার ছিল। এখন তা কমে ৩০ শতাংশে এসেছে। তা ছাড়া মাঝখানে কয়েকদিন ২১ শতাংশ পর্যন্ত হয়েছিল। তবে এখনই সন্তুষ্ট না হয়ে আমাদের আরও কিছুদিন বেশি সতর্ক থাকতে হবে। লকডাউনের সাফল্য ধরে রাখতে হবে।’

ইউএসটিসির মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোহাম্মদ জাবেদ বলেন, ‘লকডাউনে মানুষের চলাচল সীমিত থাকায় সংক্রমণও কম ছিল। একে আমরা লকডাউনের সুফল মনে করব। কিন্তু সে ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে হবে। সরকারি নির্দেশনামতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। সংক্রমণের হার নিয়ে এখনই সন্তুষ্ট হওয়ার কিছু নেই। স্বাভাবিক চলাফেরার সময়ও যদি সংক্রমণ এমন কমতে থাকে তাহলে কম বলা হবে।’

সিভিল সার্জন কার্যালয়সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রামে বৃহস্পতিবার ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আটজন এবং নতুন করে শনাক্ত হন ৬১৬ জন। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত চট্টগ্রামে মোট আক্রান্ত হন ৯৩ হাজার ৮৫০ জন। এর মধ্যে মহানগরে ৬৯ হাজার ৪১ আর উপজেলায় ২৪ হাজার ৮০৯ জন। ইতিমধ্যে মারা গেছেন ১ হাজার ১১১ জন। এর মধ্যে মহানগরে ৬৪৩ আর উপজেলায় ৪৬৮ জন। চট্টগ্রামে সরকারি-বেসরকারি ১১টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা চলছে।

এই বিভাগের আরও খবর