শুক্রবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

বগুড়ায় নবান্নের মাছ মেলায় জমেছিল জামাই উৎসব

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া

বগুড়ায় নবান্নের মাছ মেলায় জমেছিল জামাই উৎসব

প্রতিবারের মতো এবারও নবান্ন উৎসবকে কেন্দ্র করে বগুড়ার শিবগঞ্জে জমেছিল মাছ মেলা। আর এ মেলার বিশেষ আকর্ষণ ছিল মেয়ে-জামাইদের উৎসব। কারণ মাছের মেলাকে কেন্দ্র করেই আগমন ঘটেছে মেয়ে-জামাইদের। তাদের জন্যই মাছ কেনার ধুম পড়ে যায়। গতকাল মহাস্থান ও উথলি, মোকামতলা, নন্দীগ্রাম উপজেলার রণবাঘা ও ওমরপুরে এবং কাহালু উপজেলা বাজারে এই মাছের মেলার আয়োজন করা হয়। কাকডাকা ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মাছ মেলা চলে। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের পদচারণায় মুখরিত থাকে পুরো দিন। মেলাকে কেন্দ্র করে গ্রামের ঘরে ঘরে রাত পর্যন্ত ছিল উৎসবের আমেজ। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের নবান্ন উৎসবকে ঘিরে শিবগঞ্জের উথলী মাছ মেলা প্রায় ২০০ বছরের ঐতিহ্য। শিবগঞ্জের আশপাশের ২২টি গ্রামের মানুষের ঘরে ঘরে উৎসবের আয়োজন ছিল মেলা ঘিরে। প্রতি বাড়িতেই মেয়ে-জামাইসহ স্বজনদের নবান্নের মেলা থেকে কেনা বড় মাছ ও নতুন সবজি দিয়ে আপ্যায়ন করা হয়। মেলায় ঘুরতে গিয়ে শ্বশুর ও জামাইরা কিনেছেন মাছ। যার মাছ যত বড় হয়েছে, সে তত সম্মানিত হয়েছেন। শুধু মাছ আর সবজিই নয়, মেলার আবহের জন্য সেখানে শিশু-কিশোরদের খেলনার দোকান বসে।

সেই সঙ্গে মিষ্টান্ন ও দইয়ের একটি বড় বাজারও বসে মেলা চত্বরে। ১ কেজি থেকে শুরু করে ২০ কেজি ওজনের বাঘাইড়, বোয়াল, রুই, কাতলা, চিতল, ব্ল্যাক কার্প, সিলভার কার্প, ব্রিগেড কার্পসহ নানা রকমের মাছ বিক্রি হয় মেলায়। বগুড়ার শিবগঞ্জসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে মেলায় নতুন আলুসহ শাক-সবজি, মিষ্টান্ন, দই, মাটির তৈরি খেলার দোকানসহ বিভিন্ন পণ্যের পসরাও সাজিয়ে বসেন বিক্রেতারা। এক দিনে মাছের বেচাকেনা হয় কোটি টাকার ওপরে।

শিবগঞ্জের উথলী বাজারের ইজারাদার শিশির জানান, আগে মেলাটি ক্ষুদ্র পরিসরে হলেও সাম্প্রতিক সময়ে তা ব্যাপকতা লাভ করেছে। শুধু আশপাশেরই নয় পুরো শিবগঞ্জ উপজেলার মানুষ এখানে নবান্নের বাজার করতে আসেন। মাছের মেলার খবর পেয়ে শহর থেকেও অনেকে সেখানে ছুটে যান মাছ কিনতে। এবার মেলায় দেড় হাজার মণের বেশি মাছ কেনাবেচা হয়েছে বলে তিনি জানান।

শিবগঞ্জ পৌরসভার মেয়র তৌহিদুর রহমান মানিক বলেন, নবান্নের মেলাকে কেন্দ্র করে বছরের এই দিনে এলাকার হিন্দু-মুসলিম সব বাড়িতে জামাই মেয়েসহ স্বজনদের অ্যাপায়ন করা হয়। সর্বত্র উৎসবের আমেজ বিরাজ করে। যুগ যুগ ধরে এই উৎসব চলে আসছে। আগে মাছ এতটা না থাকলেও কালক্রমে মাছের পসরা বেড়েছে। পৌরসভা থেকে মেলা কমিটিকে সহযোগিতা করা হয়।

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর