শিরোনাম
বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ টা
পিবিআইর মামলা

সাবেক এসপি বাবুলের বিরুদ্ধে ৬ নভেম্বর তদন্ত প্রতিবেদন

আদালত প্রতিবেদক

পুলিশের সাবেক এসপি বাবুল আকতারসহ চারজনের বিরুদ্ধে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) প্রধান বনজ কুমার মজুমদারের করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ৬ নভেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত। গতকাল ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আবু বক্কর সিদ্দিক মামলার এজাহার গ্রহণ করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য এই তারিখ ধার্য করেন। মামলার অন্য আসামিরা হলেন- বাবুল আকতারের ভাই মো. হাবিবুর রহমান লাবু (৪৫), বাবা মো. আবদুল ওয়াদুদ মিয়া (৭২) এবং অন্য একজন। এর আগে মঙ্গলবার রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদার বাদী হয়ে মামলাটি করেন। মামলায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে অভিযোগ করা হয়েছে। মামলায় অভিযোগ করা হয়, বনজ কুমার মজুমদারের নেতৃত্বাধীন তদন্ত সংস্থা পিবিআই, চট্টগ্রাম মেট্রো চাঞ্চল্যকর মিতু হত্যা মামলা তদন্তের সময় প্রধান আসামি হিসেবে সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আকতারের নাম বেরিয়ে আসে। এরপর তাকে গ্রেফতার করা হয়। জেলে থাকা বাবুল আকতার এবং দেশে ও বিদেশে অবস্থান করা অন্য আসামিরা মামলার তদন্ত ভিন্ন খাতে নেওয়ার জন্য বাংলাদেশ পুলিশ ও পিবিআইর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করতে অপরাধমূলক বিভিন্ন অপকৌশল এবং ষড়যন্ত্রের আশ্রয় নেন।

এরই ধারাবাহিকতায় বাবুল আকতারের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ প্ররোচনায় অন্য আসামিরা একটি ফেসবুক আইডি থেকে ইউটিউব অ্যাকাউন্টে ‘স্ত্রী খুন, স্বামী জেলে, খুনি পেয়েছে তদন্তের দায়িত্ব’ শিরোনামে একটি ভিডিও ক্লিপ আপলোড করেন।

এজাহারে আরও বলা হয়, আসামিরা বিভিন্ন মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্যের মাধ্যমে মিতু হত্যা মামলার তদন্ত বিতর্কিত, প্রশ্নবিদ্ধ ও ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার লক্ষ্যে উল্লিখিত ভিডিও প্রচার করেন। আসামিরা দেশের ভাবমূর্তি এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার উসকানিসহ বাংলাদেশ পুলিশ এবং পুলিশের বিশেষায়িত তদন্ত সংস্থা পিবিআই, বিশেষ করে বাদীর (বনজ কুমার মজুমদার) মানসম্মান ও সুনাম ক্ষুণ্ন করার জন্য মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচার করেছেন, যা দেশের সাধারণ মানুষের মধ্যে নেতিবাচক মনোভাব সৃষ্টি করে।

 

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর