৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:২৮

কিশোরগঞ্জে আরও ২৩ জনের করোনা শনাক্ত

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি:

কিশোরগঞ্জে আরও ২৩ জনের করোনা শনাক্ত

কিশোরগঞ্জে নতুন করে (বৃহস্পতিবার রাত ৯টা পর্যন্ত) ২৩ জনের করোনা শনাক্ত এবং মৃত্যু হয়েছে ২ জনের। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১১ হাজার ৬৭২ জনে এবং মোট মৃত্যুর সংখ্যা ২১২। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৯ জন, হোসেনপুরে ১ জন, করিমগঞ্জে ১ জন,  ভৈরবে ১১ জন ও নিকলীতে ১ জন।

সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমান বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি আরও জানান ৩১ আগস্ট ও ১ সেপ্টেম্বর (আংশিক) কিশোরগঞ্জ শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি পিসিআর ল্যাব হতে (প্রি আইসোলেশনে ভর্তিকৃত জরুরী রোগীসহ) ৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এদিকে, ১ সেপ্টেম্বর বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে ১২৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া কিশোরগঞ্জ শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৮ জন, কিশোরগঞ্জ বক্ষব্যাধি ক্লিনিকে ৩ জন, হোসেনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১০ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৪ জন, বাজিতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৮ জন, অষ্টগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৪ জন ও কিশোরগঞ্জ মেডিল্যাব হেলথ সেন্টারে মোট ১০ জনসহ মোট ৫৭ জনের রেপিড এন্টিজেন ও জিন এক্সপার্ট টেস্টে ৪ জনের করোনার উপসর্গ পাওয়া গেছে।

এদিকে, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নতুন রোগী ভর্তি হয়েছেন ৭ জন, সুস্থ হয়ে ছাড়পত্র পেয়েছেন ৯ জন এবং আইসিইউতে ভর্তি রয়েছেন ৫ জন। করোনায় এ হাসপাতালে মারা গেছেন ২ জন। করোনা শনাক্তকৃত নিকলী উপজেলার ৪৯ বছর বয়সী একজন পুরুষ ও ভৈরব উপজেলার ৬৫ বছর বয়সী একজন নারী গত বুধবার শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করেছেন ২১২ জন।

সিভিল সার্জন আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৯৭ জন। এ পর্যন্ত জেলায় মোট ৯ হাজার ৮০০ জন সুস্থ হয়েছেন। বর্তমানে জেলায় সর্বেমোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১ হাজার ৬৬০ জন। এরমধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৪৭১ জন, হোসেনপুরে ৩৬ জন, করিমগঞ্জে ৯ জন, তাড়াইলে ৬ জন, পাকুন্দিয়ায় ২৪২ জন, কটিয়াদীতে ২৮১ জন, কুলিয়ারচরে ১৫ জন, ভৈরবে ৩৮৪ জন, নিকলীতে ৩৮ জন, বাজিতপুরে ৯০ জন, ইটনায় ১২ জন, মিঠামইনে ৪ জন ও অষ্টগ্রামে ৭২ জন।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টাইনে / আইসোলেশনে রয়েছেন ১ হাজার ৬২৯ জন। আর হাসপাতাল আইসোলেশনে রয়েছেন ৩১ জন।

 

বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর