৩ মার্চ, ২০২২ ২০:১১

ওয়ালটন মোবাইলের এসডিজি ফটোগ্রাফি প্রতিযোগিতায় বিজয়ীরা পেলেন ১.৭৫ লাখ টাকা

অনলাইন ডেস্ক

ওয়ালটন মোবাইলের এসডিজি ফটোগ্রাফি প্রতিযোগিতায় বিজয়ীরা পেলেন ১.৭৫ লাখ টাকা

ওয়ালটন মোবাইলের এসডিজি ফটোগ্রাফি প্রতিযোগিতায় ১.৭৫ লাখ টাকা পুরস্কার পেলেন তিনজন। ওয়ালটন ডিজি- টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের মোবাইল বিভাগের আয়োজনে প্রতিযোগিতাটি জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) প্রোমোটার ‘বেটার বাংলাদেশ টুমরো’র সৌজন্যে পরিচালিত হয়। সৃজনশীল ফটোগ্রাফির ওই প্রতিযোগিতায় বিজয়ী তিনজনের আলোকচিত্রে বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব প্রাধান্য পায়। বিজয়ীরা যথাক্রমে ১ লাখ, ৫০ হাজার এবং ২৫ হাজার টাকা পুরস্কার পেয়েছেন। 

ওয়ালটন মোবাইলের এসডিজি ফটোগ্রাফি কনটেস্টের তিন বিজয়ী হলেন চট্টগ্রামের আতিকুর রহমান, খুলনার রিশান আহমেদ এবং নারায়ণগঞ্জের জাহিদ অপু। পুরস্কৃত ছবি তিনটির শিরোনাম যথাক্রমে বনশ্রীর বিনাশ, লেট দ্যা আর্থ ব্রিথ এবং ফায়ারবোল্ট।

বুধবার রাজধানীর ওয়ালটন করপোরেট অফিসে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এসডিজি ফটোগ্রাফি প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কৃত করে কর্তৃপক্ষ। তাদের হাতে পুরস্কারের অর্থ ও সার্টিফিকেট তুলে দেন ওয়ালটন মোবাইলের চিফ বিজনেস অফিসার (সিবিও) এস এম রেজওয়ান আলম।

সে সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন মোবাইলের চিফ সেলস অফিসার এম. এ. হানিফ, হেড অব বিজনেস ইন্টেলিজেন্স রেজা হাসান, ক্রিয়েটিভ অ্যান্ড কমিউনিকেশন্সের ইনচার্জ হাবিবুর রহমান তুহিন, ব্র্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ইনচার্জ মাহবুব-উল-হাসান (মিল্টন), মার্কেটিং কো-অর্ডিনেটর ওয়াশিক জাহান ঈশান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ওয়ালটন মোবাইলের এসডিজি ফটোগ্রাফি কনটেস্টে ৪ হাজারের বেশি প্রতিযোগি অংশ নেন। তাদের মধ্য থেকে ৬০ জনকে প্রাথমিকভাবে বাছাই করা হয়। সেখান থেকে চূড়ান্তভাবে তিনজনকে বিজয়ী হিসেবে নির্বাচন করা হয়। প্রতিযোগিতার প্রধান বিচারক ছিলেন স্বনামধন্য ফটোগ্রাফার প্রিতু রেজা। সার্বিক তত্ত্বাবধান করেছেন ওয়ালটন গ্রুপের প্রধান বিপণন কর্মকর্তা (সিএমও) মোহাম্মদ ফিরোজ আলম।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি এস এম রেজওয়ান আলম বলেন, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এসডিজি অর্জনের বাস্তব বিষয়বস্তু নিয়েই ওয়ালটন মোবাইলের এই আয়োজন। এ ধরনের প্রতিযোগিতা আয়োজনের উদ্দেশ্য এসডিজি বিষয়ে মানুষকে সচেতন করা এবং তাদের ফটোগ্রাফিক সৃজনশীলতার বিকাশ ঘটানো। এ ফটোগ্রাফিক কনটেস্টে আমরা অভূতপূর্ব সাড়া পেয়েছি। ওয়ালটন মোবাইল ভবিষ্যতেও এ ধরনের সৃজনশীল কার্যক্রমে সম্পৃক্ত থাকবে।

পুরস্কারপ্রাপ্তির প্রতিক্রিয়ায় প্রথম বিজয়ী আতিকুর রহমান বলেন, ওয়ালটন মোবাইলের এ ফটোগ্রাফি প্রতিযোগিতায় অনেক মেধাবী ফটোগ্রাফারের ভালো ভালো ছবি ছিলো। তাদের মধ্য থেকে আমার তোলা ছবি প্রথম পুরস্কার পাওয়ায় খুবই আনন্দিত। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ভিন্নধর্মী এমন একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করায় ওয়ালটন মোবাইল কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ।

উল্লেখ্য, ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর বাংলাদেশি ইলেকট্রনিক্স ও টেক জায়ান্ট ওয়ালটন। এজন্য ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ পিএলসি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও গোলাম মুর্শেদ নিয়েছেন নানা কার্যক্রম। ‘বেটার বাংলাদেশ টুমরো’ শীর্ষক ওই উদ্যোগের মাধ্যমে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে পরিকল্পিতভাবে কাজ করছে ওয়ালটন। যার অংশ হিসেবে এসডিজি ফটোগ্রাফিক কনটেস্ট আয়োজন করে ওয়ালটন মোবাইল।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর