শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২৩:৫৫

১০ গ্রামের মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো

নাটোর প্রতিনিধি

১০ গ্রামের মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো

একটি ব্রিজের আশায় কেটে গেছে দুই দশক। এরপরও কাক্সিক্ষত ব্রিজ না হওয়ায় এলাকাবাসীর চাঁদার টাকায় তৈরি হয় বাঁশের সাঁকো। এখন এই সাঁকোই ১০ গ্রামের মানুষের একমাত্র ভরসা। নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার চন্দ্রপুর ওয়াবদা বাজারের পাশে নন্দকুঁজা নদীতে অবস্থিত এ সাঁকো।  জানা যায়, নন্দকুঁজা নদীর পশ্চিম অংশে এই সাঁকোটি গুরুদাসপুর ও সিংড়া উপজেলাকে বিভক্ত করেছে। উভয় পাড়ের মানুষের পারাপারের জন্য নেই কোনো সেতু। এলাকাবাসীর উদ্যোগে নির্মিত সাঁকো দিয়েই ১০ গ্রামের মানুষ ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হন। সরেজমিন দেখা যায়, নন্দকুঁজা নদীর গুরুদাসপুর অংশের ওয়াবদা বাজারে বসেছে হাট। সপ্তাহে দুই দিন এই হাটে সীমান্তবর্তী দুই উপজেলার হাজার হাজার মানুষের সমাগম হয়। তারা নদী পারাপার হন সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করে। সেতু পরিচালনা কমিটির ক্যাশিয়ার আকতার হোসেন বলেন, ছোটবেলা থেকে শুনে আসছি এখানে ব্রিজ হবে। তা আর হচ্ছে না। ছেলে মেয়েদের স্কুল-কলেজে যাতায়াত, চলাফেরা, হাটে পণ্য আনা-নেওয়ায় অনেক কষ্ট হয়। সেতু পরিচালনা কমিটির সভাপতি শাজাহান আলী বলেন, এই এলাকায় একটি ব্রিজ না হওয়ায় আমরা পিছিয়ে যাচ্ছি। গুরুদাসপুর উপজেলা প্রকৌশলী আ.ন.ম ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, ‘সরেজমিন পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর