শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৪ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৪ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০

সোলার প্যানেলে সেচ সুবিধা

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

সোলার প্যানেলে সেচ সুবিধা
Google News

সোলার প্যানেল ব্যবহারে কম খরচে সেচ সুবিধা পাচ্ছে ঠাকুরগাঁও জেলার কৃষক। এ দেশ কৃষিপ্রধান। কৃষিতে সেচের জন্য ডিজেলের পরিবর্তে সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ ব্যবহার করে আসছিল কৃষকরা। আর বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে জমিতে সেচ দেওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকতে হতো এ জেলার কৃষকদের। অনেক সময় সেচ দিতে না পেরে জমিতেই নষ্ট হয়ে যেত ফসল। ধারদেনা করে ফসল উৎপাদন করতে গিয়ে বেড়ে যেত কৃষকদের  লোকসানের বোঝা। কালের বিবর্তনে আধুনিক হয়েছে সবকিছু। দেশের  বৈদ্যুতিক ব্যবস্থার আধুনিকায়নের সঙ্গে সঙ্গে ব্যবহার বেড়েছে সোলার প্যানেলের। বাড়তি খরচ না থাকায় সোলারের দিকে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের।

জেলা কৃষি বিভাগের সূত্রমতে, চলতি বছর ঠাকুরগাঁও জেলায় ৬২ হাজার ৩৫০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ৫৮ হাজার ৪৮০ হেক্টর জমিতে বোরো চারা লাগানো হয়েছে। সোলার প্যানেলের মাধ্যমে জমিতে সেচ দিয়ে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা। সেই সঙ্গে তাদের উৎপাদন খরচ কমে গেছে। ফলে বোরো ধান বিক্রি করে অনেকটাই লাভবান হবেন জেলার কৃষকরা। তারা জানান,  সোলারের মাধ্যমে পানি দিলে বিদ্যুতের মতোই স্বল্প সময়ে সেচ সুবিধা পাওয়া যায়। এ ছাড়া বাড়তি লোকের প্রয়োজন পড়ে না।

 কিন্তু আগে যখন শ্যালো মেশিন দিয়ে পানি দিতাম তখন বাড়তি লোক লাগত। খরচও বেশি হতো। এখন আমরা সোলারের মাধ্যমে জমিতে সেচ দিচ্ছি।

বর্তমানে এক বিঘা জমিতে সোলার প্যানেল দিয়ে সেচ দিতে খরচ হচ্ছে ২ হাজার টাকা। অন্যদিকে শ্যালো মেশিন দিয়ে সেচ দিতে খরচ হয় ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. আবু  হোসেন জানান, চলতি বোরো মৌসুমে সোলার প্যানেলের সাহায্যে জমিতে  সেচকাজ করছে কৃষক। সোলার প্যানেল ব্যবহারে কৃষকের খরচ এক-তৃতীয়াংশ কমে গেছে।

এই বিভাগের আরও খবর