শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২৩:৪৪

শেষ হয়নি ২২ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার, দুর্ভোগে লাখো মানুষ

বাবুল আখতার রানা, নওগাঁ

শেষ হয়নি ২২ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার, দুর্ভোগে লাখো মানুষ
Google News

দুর্ভোগের আরেক নাম নওগাঁর রানীনগর থেকে কালীগঞ্জ পর্যন্ত ২২ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়ক। দীর্ঘ চার বছরেও প্রশস্তকরণ ও নির্মাণকাজ শেষ না হওয়ায় সড়কটি যেন মৃত্যুর ফাঁদে পরিণত হয়েছে। এ সড়কের কার্পেটিং উঠিয়ে কোনোরকমে রোলার দিয়ে ফেলে রাখায় খানাখন্দকের সৃষ্টি হয়েছে। এ ছাড়া বৃষ্টির পানি জমে পরিণত হয়েছে জলাশয়ে। ফলে দুর্ভোগে কয়েকটি উপজেলার কয়েক লাখ মানুষ। জানা গেছে, নওগাঁর জনগুরুত্বপূর্ণ রানীনগর-আবাদপুকুর-কালীগঞ্জ ২২ কিলোমিটার সড়কটি ছিল এলজিইডির আওতায়। সড়কে অতিরিক্ত যানবাহন চলাচল এবং দীর্ঘ এলাকাজুড়ে মানুষের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে এলজিইডি থেকে সড়ক ও জনপথ বিভাগে হস্তান্তর করা হয়। এই সড়কটি রানীনগর সদর থেকে আবাদপুকুর-কালীগঞ্জের মধ্য দিয়ে নাটোরের সিংড়ার ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের সঙ্গে মিলিত হয়েছে। সড়কটি প্রশস্ত এবং মজবুত পাকাকরণের জন্য ২০১৮ সালে দরপত্র আহ্বান করা হয়। দীর্ঘ ২২ কিলোমিটার সড়কে ২৬টি কালভার্ট ও চারটি সেতু নির্মাণে মোট ব্যয় ধরা হয় ১০৫ কোটি টাকা। সড়ক কালভার্ট ও সেতু নির্মাণে সময় দেওয়া হয় ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। কিন্তু ওই সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করতে না পারায় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদাররা একের পর এক অতিরিক্ত সময় চেয়ে আবেদন করতে থাকেন। অতিরিক্ত সময়েও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কাজ শেষ না করায় চলতি বছরের মে মাসে কাজের চুক্তিপত্র বাতিল করে ৪ কোটি টাকা আর্থিক জরিমানা করা হয়। ইতিমধ্যেই সেতু ও একটি কালভার্ট ছাড়া সব কালভার্ট নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। কিন্তু দীর্ঘ সময় সড়কের কার্পেটিং তুলে কোনোরকমে রোলার দিয়ে ফেলে রাখার কারণে সড়কজুড়ে ছোট-বড় খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। যানবাহনের চালক ও যাত্রীরা জানায়, ভারী মালামাল পরিবহন, জরুরি রোগী নিয়ে সড়কে চলাচল করা অত্যন্ত কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। একবার যাওয়া-আসা করলে সুস্থ মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়বে। ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করছে পথচারীরা। প্রতিদিনই সড়কের কোথাও না কোথাও ছোট-বড় যানবাহন উল্টে পড়ছে। নষ্ট হচ্ছে ছোট ছোট যানবাহনের যন্ত্রাংশ। নওগাঁ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সাজেদুর রহমান বলেন, পুরনো ঠিকাদার বাতিল করে নতুন ঠিকাদার নির্বাচন প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে। আগামী বছরের জুনের মধ্যে সড়কের যাবতীয় কাজ শেষ করার আশ্বাস দেন তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর