শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ এপ্রিল, ২০১৯ ১০:২৯
আপডেট : ২০ এপ্রিল, ২০১৯ ১৪:০৩
প্রিন্ট করুন printer

শহীদ বেদিতে হিন্দি গানের সাথে অশ্লীল নৃত্য, তদন্ত কমিটি গঠন

পটুয়াখালী প্রতিনিধি

শহীদ বেদিতে হিন্দি গানের সাথে অশ্লীল নৃত্য, তদন্ত কমিটি গঠন

পটুয়াখালী কলাপাড়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বৈশাখী উৎসবের অংশ হিসেবে আয়োজিত 'মেয়র নাইট' অনুষ্ঠানে হিন্দিগানের সাথে এক তরুণীর অশ্লীল নাচের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে উপজেলা প্রশাসন। গত বৃহস্পতিবার রাতে পৌর শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন পৌর মেয়র।

এ ঘটনায় জেলা প্রশাসকের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসন তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। কমিটির সদস্যরা হলেন উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও সহকারী পরিচালক সি. পি. পি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেখা যায়, এক তরুণী হিন্দি গানের তালে তালে শহীদ মিনারের বেদীতে অশ্লীল নৃত্য পরিবেশন করছে। এ সময় উপস্থিত দর্শকরা করতালি ও শিস বাজিয়ে এবং বিভিন্ন অশ্লীল কটুক্তি করে। তারাও ওই তরুণীর সাথে নাচে মেতে উঠে। উপস্থিত দর্শক ও উত্তেজিত যুবকরা তাদের মোবাইল ফোনে এই ভিডিও ধারণ করেছেন।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তানভীর রহমান জানান, আগামী মঙ্গলবারের মধ্যে ওই কমিটি একটি প্রতিবেদন দাখিল করবেন। তারপর যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিষয়ে জানতে কলাপাড়া পৌর মেয়র বিপুল হালদারের মোবাইলে ফোন দিলেও তিনি ধরেননি।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৩:৫৩
প্রিন্ট করুন printer

গাঁজা ব্যবসার প্রতিবাদ করায় খুন হন মাহতাব: পিবিআই

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

গাঁজা ব্যবসার প্রতিবাদ করায় খুন হন মাহতাব: পিবিআই
আসামি ফরহাদ ও সেলিম

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে মাহতাব উদ্দিন মাতু (৬০) হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। গাঁজা ব্যবসার প্রতিবাদ করায় তাকে খুন করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত এক আসামির আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির পরিপ্রেক্ষিতে এ তথ্য জানিয়েছে পিবিআই। হত্যাকাণ্ডের ৫৫ দিন পর এ হত্যারহস্য উদঘাটন করেছে পিবিআই।

পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার শাহাদাত হোসেন পিপিএম জানান, গ্রেফতারকৃত আসামিসহ অন্যান্য আসামীদের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। আসামিরা ফিশারীর মাছের খাবারের সাথে গাঁজা এনে এলাকায় ব্যবসা করতো। গাঁজা ব্যবসার প্রতিবাদ করায় মাহতাবকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। সে অনুযায়ী পাহারা দেওয়ার জন্য ফিশারীতে গেলে আসামীরা প্রথমে মাহতাবকে ফিশারির টিনসেড ঘরে নিয়ে যায়। সেখানে দা দিয়ে মাহতাবের মাথায় আঘাত করলে তিনি মাটিতে পড়ে যান। মৃত্যু নিশ্চিত হলে লাশ ফিশারির নৌকায় করে নিয়ে রেললাইনের পাশে ফেলে রাখে। 

পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার আরও জানান, কটিয়াদী উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামের মাহতাব একই গ্রামের একটি ফিশারিতে পাহারাদারের কাজ করতেন। গত ৩ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ৭টার দিকে তিনি বাড়ি থেকে ফিশারিতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে নিখোঁজ হন। রাত ১০টার দিকে ফিশারির মালিকপক্ষের শহিদুজ্জামান সেলিম মোবাইল ফোনে মাহতাবের বাড়ির লোকজনকে জানান যে, মাহতাব ফিশারিতে যায়নি। রাত ১২টার দিকে মাহতাবের স্ত্রী বানেছা খাতুনসহ পরিবারের অন্যরা ফিশারির মালিকপক্ষের আব্দুর রহমানের বড়িতে গিয়ে মাহতাবের কথা জিজ্ঞাসা করলে তিনি আশপাশে খুঁজতে বলেন। পরদিন ভোর ৬টার দিকে পার্শ্ববর্তী দশ কাহনিয়া বন্দের রেল লাইনের পশ্চিম পার্শ্বের একটি জমিতে মাতুর লাশ পাওয়া যায়। পরে মাহতাবের ছেলে নূর উদ্দিন বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে কটিয়াদী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে কটিয়াদী থানার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আনোয়ার হোসেন গত ৭ ডিসেম্বর দুজনকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করেন। তারা হলেন কটিয়াদী উপজেলার নিমক পুরুড়া গ্রামের কাছুম আলীর ছেলে বোরহান (২৫) ও বনগ্রাম কর্মকার পাড়ার মৃত আলী হোসেনের ছেলে আব্দুর রহমান।

অপরদিকে লাশ পাওয়ার পর পিবিআই কিশোরগঞ্জের ক্রাইম সিন ইউনিট ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এ হত্যার বিষয়ে ছায়া তদন্ত শুরু করে। ১৭ জানুয়ারি পিবিআই মামলাটি স্ব উদ্যোগে গ্রহণ করে এসআই সুমন মিয়াকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়। এসআই সুমন ভিকটিম মাহতাবের মোবাইল ফোন নম্বর সংগ্রহ করে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় গত ২৫ জানুয়ারি সন্দেহজনক হিসেবে কটিয়াদী উপজেলা দুর্গাপুর গ্রামের আব্দুল লফিতের ছেলে ফরহাদকে (২৫) গ্রেফতার করেন। পরদিন একই গ্রামের ফালু মিয়ার ছেলে শহিদুজ্জামান সেলিমকেও (৪৪) গ্রেফতার করা হয়। ফরহাদ গত মঙ্গলবার বিকালে কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তাসলিমা আক্তারের আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। তার দেওয়া তথ্যমতে মঙ্গলবার একই গ্রামের মৃত খেলু মিয়ার ছেলে রইস উদ্দিন ওরফে লাইসুকে (৩৫) গ্রেফতার করা হয়।

এ মামলার পলাতক আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে বলে পিবিআই জানায়।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৩:৫২
প্রিন্ট করুন printer

কিশোরগঞ্জে আসছে করোনার ডোজ, প্রস্তুত সিভিল সার্জনের কার্যালয়

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

কিশোরগঞ্জে আসছে করোনার ডোজ, প্রস্তুত সিভিল সার্জনের কার্যালয়

কিশোরগঞ্জে ৯ হাজার ৬০০ ডোজ করোনার টিকা আসছে। প্রতিটি ভায়াল ১০ ডোজ করে মোট ৯৬ হাজার ডোজ। আগামী শুক্রবার এগুলো কিশোরগঞ্জে আসার কথা রয়েছে বলে সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমান জানিয়েছেন।

সিভিল সার্জন জানান, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের কোল্ডরুমে টিকার ভায়াল বা ডোজ রাখা হবে। ইতোমধ্যে টিকা সংগ্রহের যাবতীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। নির্দেশনা অনুযায়ী প্রথমদিকে চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের এ টিকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এ টিকা নেওয়ার বিষয়ে অনলাইনে নিবন্ধনের প্রক্রিয়াও চলছে বলে তিনি জানান।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৩:২৫
প্রিন্ট করুন printer

ভাঙ্গায় ছাগল পালন করে স্বাবলম্বী গৃহবধূ সুমী

ভাঙ্গায় ছাগল পালন করে স্বাবলম্বী গৃহবধূ সুমী

ভাঙ্গার হামিরদী ইউনিয়নের হামিরদী গ্রামের গৃহবধূ সুমী বেগম (৩৫)। হত দরিদ্র পরিবারের বধূ হিসাবে পারিবারিক দীনতা মোকাবেলা করতে হচ্ছে তাকে দীর্ঘ দিন। স্বামী লালন শেখ (৪২) পেশায় ভ্যানচালক। স্বামীর আয়ে এক ছেলে, এক মেয়ে নিয়ে সংসারে যখন অন্ধকার দেখছিলেন, তখন সুমী বেগম ছাগল পালন করার সিদ্ধান্ত নেয়। ছাগলের পাশাপাশি হাঁস, মুরগী, রাজহাঁস পালন করেন তিনি। গত ৬ মাসে হাঁস, মুরগী ও ছাগল পালন করে বেশ কিছু টাকা আয়ও করেছেন। সংসারের দীনতা অনেকটাই ঘুচে গিয়েছে। 

সুমী বেগম জানান, গত ৬ মাসে দুটি ছাগল বিক্রি করে ১৩ হাজার টাকা, মুরগী বিক্রি করে ৩ হাজার ৬শত টাকা, তিনটি রাজ হাঁস বিক্রি করে আড়াই হাজার টাকা, মুরগীর ডিম বিক্রি করে ৩ হাজার টাকা আয় করেছেন। 

সুমী বেগম আরও বলেন, বর্তমানে আমার ৯টি ছাগল, ১০টি মুরগী, ৮টি হাঁস রয়েছে। সংসারে মোটামুটি স্বচ্ছলতা ফিরে এসেছে।  ভবিষ্যতে ছাগলের একটি খামার করার ইচ্ছা রয়েছে।  

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৩:০০
প্রিন্ট করুন printer

টেকনাফ হাসপাতাল পরিদর্শনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক

আব্দুস সালাম,টেকনাফ (কক্সবাজর)

টেকনাফ হাসপাতাল পরিদর্শনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক

টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহা-পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) ড. মোঃ শাহাদাৎ হোসেন মাহমুদ।

মঙ্গলবার বিকালে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শনে আসলে অতিথিদেরকে ফুল দিয়ে বরণ করা হয়। এরপর ইনফ্লুয়েঞ্জা (ফ্লু) কর্ণার, বঙ্গবন্ধু গার্ডেন ও কিডস্ কর্ণার (শিশুদের জন্য) উদ্বোধন করা হয়। 

এছাড়া ১০ জন প্রতিবন্ধী রোগীকে ৫টি হুইল চেয়ার, ২ টি কমেট চেয়ার, ২টি ক্রাস, ১টি স্পাইনাল চেয়ার প্রদান ও শিশু রোগীদের ওয়ার্ড ঘুরে দেখেন। শেষে কর্মরত চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন।

এ সময় প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহা-পরিচালক, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. মোঃ শাহাদাৎ হোসেন মাহমুদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগের বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডাঃ হাসান শাহরিয়ার কবীর। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউএনএফপিএ টেকনিক্যাল অফিসার রাহাতআরা নুর।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মোঃ শাহাদাৎ হোসেন মাহমুদ সারাদেশে ৪৯২টি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মধ্যে এইচএসএস স্কুলে টেকনাফ হাসপাতাল প্রথম হওয়ায় এবং টেলিমেডিসিন সেবায় সারাদেশের মধ্যে প্রথম অবস্থানে থাকায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ টিটু চন্দ্র শীল এবং  সকল চিকিৎসক ও কর্মচারীবৃন্দকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। বঙ্গবন্ধু কর্ণার ও ভেষজ বাগান একসাথে হওয়ায় টেকনাফ কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান তিনি। এছাড়া মানসম্মত সেবা প্রদান অক্ষুন্ন রাখতে বিভিন্ন দিক নির্দেশনামূলক পরামর্শ প্রদান করেন।

টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডাক্তার টিটু চন্দ্র শীল।

স্বাগত বক্তব্যে টিটু চন্দ্র শীল বলেন, জাতীয়ভাবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে প্রকাশ করা এইচএসএস ফলাফলে সারা বাংলাদেশে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১ম হয়েছে। গত নভেম্বর মাসে সারাদেশে ৪৯২টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে র‌্যাংকিংয়ের মধ্যে ৭৯ নম্বরে থাকলেও ডিসেম্বর মাসে ১ম স্থান অর্জন করতে পেরে আমি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সকল কর্মকর্তা কর্মচারীগণকে ও টেকনাফ উপজেলার সকল জনসাধারণকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ ও সাধুবাদ জানায়। সেই সফলতার ধারাবাহিকতা যাতে অব্যাহত থাকে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।

তিনি আরো বলেন, কক্সবাজার জেলার মধ্যে উপজেলা পর্যায়ে সবচেয়ে বেশী অপারেশন হয় টেকনাফ উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্সে। এরসাথে টেলিমেডিসিন সেবাতেও প্রতি সপ্তাহে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১ম স্থান অধিকার করেন। এই হাসপাতালের সেবার মান নিয়ে সবদিক দিয়ে রোগীরা সন্তুষ্ট। 

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সার্বিক বিষয়ে বক্তব্য উপস্থাপন করেন মেডিকেল অফিসার ডাঃ সাকিয়া হক।

মতবিনিময় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাঃ এনামুল হক, মেডিকেল অফিসার (এমওসিএস) ডা. প্রণয় রুদ্র, এসিএফ এর ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার মোঃ মোতাহের হোসেন, শেড এর প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর মোঃ মাসুদ রানা ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মরত সকল মেডিকেল অফিসার, সিনিয়র স্টাফ নার্স, মিডওয়াইফ এবং অন্যান্য কর্মকর্তা / কর্মচারীবৃন্দ এবং সহযোগী সংস্থা এর কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক উখিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেন ।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১২:১৪
আপডেট : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৩:৫০
প্রিন্ট করুন printer

দিনাজপুরে ট্রাকপাচায় মোটরসাইকেলের তিন আরোহী নিহত

দিনাজপুর প্রতিনিধি

দিনাজপুরে ট্রাকপাচায় মোটরসাইকেলের তিন আরোহী নিহত

দিনাজপুরের বিরলে ধান বোঝাই ট্রাকের সাথে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে তিন মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে বিরল উপজেলার ফরক্কাবাদ জয়নুল মুদিখানা এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় নিহত হন তারা।

নিহতরা হলেন, বিরল উপজেলার ফরক্কাবাদ ইউপির ফরক্কাবাদ ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের শরিফ উদ্দীনের ছেলে মামুনুর রশীদ (২৫), মোজাম আলীর ছেলে আনোয়ার হোসেন (২৫) এবং দুলাল হোসেনের ছেলে নাজমুল হোসেন (২৩)। তারা সকলে একটি মোটরসাইকেলে করে দিনাজপুর থেকে নিজ বাড়িতে ফিরছিল।

বিরল ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজাহারুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে বোচাগঞ্জ অভিমুখ থেকে ছেড়ে আসা ট্রাকের সঙ্গে একটি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেলের ৩ জন আরোহী নিহত হয়। ঘটনার পর স্থানীয় জনতা ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। পরে ফায়ার সার্ভিস দিনাজপুর ও বিরল স্টেশনের কর্মীরা এবং বিরল পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে এবং যান চলাচল স্বাভাবিক করে।     

বিরল থানার ওসি শেখ নাসিম হাবিব এর সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, রাত ১০টার দিকে বোচাগঞ্জ অভিমুখ থেকে ছেড়ে আসা ট্রাকের সঙ্গে একটি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে মোটরসাইকেলের তিন আরোহী নিহত হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ট্রাক ও মোটরসাইকেল হেফাজতে নিয়ে পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তানান্তর করেছে।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এই বিভাগের আরও খবর