Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৯ আগস্ট, ২০১৯ ১৪:২৭

ফরিদপুরে জোড়া খুনের সাথে জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

ফরিদপুর প্রতিনিধি:

ফরিদপুরে জোড়া খুনের সাথে জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

ফরিদপুরের নগরকান্দায় আলোচিত জোড়া খুনের সাথে জড়িতদের আটক ও ফাঁসির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন, মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ সুপারের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। আজ সোমবার বেলা ১১টায় ফরিদপুর প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে নিহতের পরিবারবর্গ। 

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কাইচাইল ইউপি চেয়ারম্যান কবির হোসেন ঠান্ডু। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা হানিফ মিয়া হৃদয় ও তার ভাই স্থানীয় যুবলীগ নেতা এনামুল হাসান পরিকল্পিতভাবে আমাদের বৈঠকে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে দুইজনকে হত্যা করে এবং আহত করে আরো ৮ জনকে। আহতরা বর্তমানে ঢাকাসহ ফরিদপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। 

তিনি বলেন, এ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের মধ্যে অন্যতম আসামি হানিফকে আটক করা হলেও বাকিরা ধরাছোঁয়ার বাইরে। ইতোমধ্যে আসামিরা মামলা তুলে নিতে হুমকি দিয়ে আসছে। আসামিদের অব্যাহত হুমকির কারণে মামলার বাদীসহ নিহতের স্বজনেরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। অবিলম্বে আসামিদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানানো হয়। 

সংবাদ সম্মেলন শেষে প্রেসক্লাবের সামনে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে এলাকাবাসী। এসময় বক্তব্য রাখেন কাইচাইল ইউপি চেয়ারম্যান কবির হোসেন, চরযশোরদী ইউপি চেয়ারম্যান আরিফুর রহমনা পথিক, নিহতের স্বজন আসমা শহিদ প্রমুখ। মানববন্ধন শেষে মিছিল সহকারে গিয়ে জেলা প্রশাসক অতুল সরকার ও পুলিশ সুপার আলিমুজ্জামানের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। 

গত ১০ আগষ্ট সন্ধ্যায় নগরকান্দার কাইচাইল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের উঠোন বৈঠকে হামলা চালায় দুবৃর্ত্তরা। হামলাকারীদের গুলিতে নিহত হয় অগ্রণী ব্যাংকের ক্যাশিয়ার রওশন মিয়া ও বিজিএমইএ বিশ্ববিদ্যালয়ের শেষ বর্ষের ছাত্র মিরাজুল ইসলাম তুহিন। এ ঘটনায় নিহত তুহিনের পিতা রায়হান মিয়া বাদী হয়ে নগরকান্দা থানায় একটি মামলা হয়েছে। মামলায় ২১ জনের নামউল্লেখ করে এবং ১০/১২ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত মূল হোতা যুবলীগ নেতা হানিফ মিয়া হৃদয়সহ ৫ জনকে আটক করতে সক্ষম হয়।

বিডি প্রতিদিন/মজুমদার


আপনার মন্তব্য