শিরোনাম
প্রকাশ : ৬ এপ্রিল, ২০২০ ১৫:৩৩

যশোরে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে কলেজছাত্রীকে বিষ খাইয়ে হত্যার চেষ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর

যশোরে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে কলেজছাত্রীকে বিষ খাইয়ে হত্যার চেষ্টা
প্রতীকী ছবি

যশোরের চৌগাছায় এক কলেজছাত্রীকে (১৭) ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে বিষ খাইয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বর্তমানে ওই ছাত্রী চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ব্যাপারে চৌগাছা থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। ওই ছাত্রী চৌগাছার একটি কলেজের এইচএসসি প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। 

ওই ছাত্রীর মা বলেন, ‘আমরা গরিব মানুষ, ঘরবাড়ির অবস্থা খুবই খারাপ। গতকাল রবিবার রাত ১১টার দিকে আমার মেয়ে বাড়ির বাইরে থাকা কাঁচা টয়লেটে গেলে এলাকার গরু ব্যবসায়ী মুসা ব্যাপারি তাকে পেছন থেকে জাপটে ধরে গামছা দিয়ে মুখ বেঁধে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এসময় আমার মেয়ে বাধা দিলে মুসা ব্যাপারি কোমল পানীয়ের বোতলে থাকা কীটনাশক জোর করে তার মুখে ঢেলে দেয়। মেয়ের চিৎকার শুনে আমরা বাইরে বের হলে মুসা পালিয়ে যায়। এসময় একটু দূরে মুখে গামছা বাঁধা দুইজন দাঁড়িয়ে ছিল, তারাও পালিয়ে যায়। আমরা মেয়েকে স্থানীয়দের সহায়তায় চৌগাছা হাসপাতালে ভর্তি করি’। 

মেয়েটির মা আরও বলেন, ‘এর আগেও মুসা আমার মেয়েকে একবার ধর্ষণের চেষ্টা করেছিল। সেবার মুসার বড়ভাই হাত-পা ধরে মাফ চাওয়ায় আমরা থানায় কোন অভিযোগ করিনি’। 

রবিবার রাতেই মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে চৌগাছা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়। চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. লুৎফুন্নাহার বলেন, গভীর রাতে একটি মেয়েকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার পাকস্থলি ওয়াশ করার পর বর্তমাসে কিছুটা সুস্থ আছে। মেয়েটি গায়ে বেশকিছু আঁচড়ের দাগ রয়েছে। 

চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব লিখিত অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, অভিযুক্তকে ধরতে অভিযান শুরু হয়েছে। 

এদিকে, ঘটনাতী জানার পর চৌগাছা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ড. মোস্তানিছুর রহমান সোমবার সকাল ১০টার দিকে মেয়েটির চিকিৎসার খোঁজ নিতে চৌগাছা হাসপাতালে যান। এসময় তিনি এ ঘটনায় অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেফতারের জন্য পুলিশ প্রশাসনকে বলেন। 

অভিযুক্ত মুসার বড় ভাই আইয়ুব হোসেন বলেন, ‘আগেও ও (মুসা) এরকম ঘটনা ঘটিয়েছিল। তখন আমি মাফ চেয়ে মীমাংসা করি। কিন্তু ও বেয়াদব হয়ে গেছে। আমাদের কথা শোনে না। কী করব বলেন? আমরাও এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই’।

বিডি-প্রতিদিন/সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য