শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ জুলাই, ২০২০ ২০:১৬

জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

জামালপুর প্রতিনিধি

জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

যমুনাসহ শাখা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় জামালপুরের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে। বুধবার বিকালে বাহাদুরাবাদঘাট পয়েন্টে যমুনার পানি বিপদসীমার ১২৭ সেন্টিমিটার এবং জগন্নাথগঞ্জঘাট পয়েন্টে বিপদসীমার ৩২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।

পানিবন্দি হয়ে পড়েছে জেলার প্রায় ৫ লাখ মানুষ। রেল লাইনে পানি উঠায় বন্ধ হয়ে গেছে ইসলামপুর-দেওয়ানগঞ্জ লাইনের ট্রেন চলাচল। জামালপুরের মাদারগঞ্জের মহিষবাথান-মাহমুদপুর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ৫০ মিটার ভেঙে ১০টি গ্রামে প্রবল বেগে পানি প্রবেশ করছে। 

যমুনা, ব্রহ্মপুত্র, ঝিনাইসহ শাখা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় নতুন করে প্লাবিত হয়েছে সদরের মেষ্টা, কেন্দুয়া, তিতপল্ল্যা, মাদারগঞ্জের কড়ুইচুড়া, গুনারিতলা, সরিষাবাড়ির পিংনা, আওনা, কামারাবাদসহ বকশীগঞ্জ ও মাদারগঞ্জ উপজেলার বেশ কয়েকটি নিম্নাঞ্চল।

সবমিলিয়ে জেলার ৭ উপজেলার ৪৫টি ইউনিয়নের প্রায় ৫ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ইসলামপুর ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার আন্তঃইউনিয়ন সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। স্থানীয় বিভিন্ন বাজারগুলো পানিতে ডুবে যাওয়ায় দুর্ভোগ বেড়েছে দুর্গতদের। দুর্গত এলাকায় প্রকট হয়েছে ত্রাণ সংকট। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ত্রাণ বিতরণ শুরু হলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় একেবারে অপ্রতুল বলে অভিযোগ বন্যা দুর্গতদের। 

এদিকে দেওয়ানগঞ্জ স্টেশন এলাকায় রেল লাইনে পানি উঠায় মঙ্গলবার রাত থেকে ইসলামপুর থেকে দেওয়ানগঞ্জ পর্যন্ত রেল চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে ঢাকা- দেওয়ানগঞ্জ রুটে চলাচলকারী আন্তঃনগর তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র এক্সপ্রেস ট্রেন দুটি ইসলামপুর স্টেশন পর্যন্ত যাতায়াত করবে।

অপরদিকে বুধবার সকালে বন্যার পানিতে ডুবে ইসলামপুর উপজেলার কাসারিডুবা গ্রামে বাড়ির পাশে বন্যার পানিতে ডুবে কটা মন্ডল ( ৩৫) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। 

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য