শিরোনাম
প্রকাশ : ২১ অক্টোবর, ২০২০ ০৩:৩৪
আপডেট : ২১ অক্টোবর, ২০২০ ০৪:৪৪

সুন্দরবনের জোংড়ায় হরিণের মাংস ও নৌকাসহ চোরা শিকারী আটক

বাগেরহাট প্রতিনিধি

সুন্দরবনের জোংড়ায় হরিণের মাংস ও নৌকাসহ চোরা শিকারী আটক
প্রতীকী ছবি

বাগেরহাটের সুন্দরবনের জোংড়া এলাকায় খাল থেকে হরিণের মাংসসহ নৌকা জব্দ করেছে বনবিভাগ। ওই সময় একজনকে আটকের খবর পাওয়া গেছে। 

মঙ্গলবার (২০ অক্টোব) সন্ধ্যার দিকে প্রায় ১০ কেজি হরিণের মাংসসহ দুইটি নৌকা জব্দ করে জোংড়া ফরেস্ট ক্যাম্পের টহল টিম। এসময় হরিণ শিকার ও মাংস পাচারের সাথে সম্পৃক্ততার দায়ে আটক করা হয় মোংলা উপজেলার চিলা ইউনিয়নের সুন্দরতলা এলাকার বাসিন্দা সামাদ মোসাল্লীকে। 

তবে সাড়ে ৩ ঘন্টা পর রাত সাড়ে ৯ টায় জোংড়া ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল হোসেন দাবী করেন, সামাদ মোসাল্লী বনবিভাগের সোর্স। সে আসামি নয়। 

তবে পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের আওতাধীন জোংড়া ফরেস্ট ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে হরিণের মাংস, নৌকা জব্দের বিষয়টি ওই রেঞ্জ কর্মকর্তা বা ঊর্ধতন কাউকেই না জানিয়ে আটক সামাদ মোসাল্লীর কাছ থেকে উৎকোচ নিয়ে তাকে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।  

মাংস ও নৌকা জব্দ বা আসামি আটকের বিষয়ে কিছুই জানেন না রেঞ্জ কর্মকর্তা বা বিভাগীয় বন কর্মকর্তা। প্রতিবেদকের ফোনে বিষয়টি জানতে পেরে দ্রুত ঘটনাস্থলে রেঞ্জ কর্মকর্তাকে গিয়ে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন। 

এ বিষয়ে জোংড়ার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল হোসেন বলেন, সামাদ মোসাল্লী তাদেরকে পাচারের সময় ওই হরিণের মাংস ধরিয়ে দেন। চিলা ইউনিয়নের বাসিন্দা সামাদ মোসাল্লী সুন্দরবনের জোংড়া খালে কি করেই পৌঁছালেন এবং সেখানে কি করতে ছিলেন তিনি? প্রতিবেদকের এমন প্রশ্নের জবাবে এই বন কর্মকর্তা কোন উত্তর দিতে পারেননি।

এদিকে, এ ঘটনায় তদন্ত পূর্বক কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়েছেন বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন। 

 

বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর