শিরোনাম
প্রকাশ : ২৬ নভেম্বর, ২০২০ ১৯:১২
প্রিন্ট করুন printer

আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

দ্বীপকে নদীতে ফেলে হত্যা করে বন্ধুরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

দ্বীপকে নদীতে ফেলে হত্যা করে বন্ধুরা

বরিশালের কীর্তনখোলা নদীতে ট্রলারে চড়ে বন্ধুর জন্মদিন পালনের সময় নদীতে পড়ে গিয়ে মৃত্যু হয়নি দ্বীপ ঘোষের (১৬)। তাকে ট্রলার থেকে নদীতে ফেলে দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। দ্বীপ ঘোষের মৃত্যুর ঘটনায় তার বাবার দায়ের হওয়া অপমৃত্যু মামলা তদন্ত করতে গিয়ে ভিডিও ফুটেজ দেখে পুলিশ হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে। হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে দ্বীপের বন্ধু রিয়াদ হোসেনকে (১৭) গত মঙ্গলবার গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

গ্রেফতারকৃত রিয়াদ হোসেন তার বন্ধু দ্বীপকে নদীতে ফেলে দেয়ার কথা স্বীকার করে গত বুধবার আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছে। রিয়াদ নগরীর আমানতগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা। অপমৃত্যু মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতয়ালী মডেল থানার উপ পরিদর্শক (এস.এই) মো. রুম্মান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

এসআই রুম্মান জানান, গত ৩ নভেম্বর কীর্তণখোলা নদী থেকে দ্বীপের লাশ উদ্ধারের পর তার বাবা মন্টু ঘোষ কোতয়ালী মডেল থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেন। অপমৃত্যু মামলা তদন্ত করতে গিয়ে ঘটনার সময়ে ট্রলারে জন্মদিন পালন উৎসবের মোবাইলে ধারন করা ভিডিও ফুটেজ গত ২৪ নভেম্বর সংগ্রহ করেন। ভিডিওতে ফুটেজে দেখা যায়, রিয়াদ নামে এক তরুণ তার বন্ধু দ্বীপকে কোলে তুলে নদীতে ফেলে দিচ্ছে। রিয়াদ ও তার বন্ধুরা যখন বুঝতে পারে দ্বীপ সাঁতার জানে না, তখন তারা দ্বীপকে উদ্ধারে নদীতে ঝাঁপ দেয়। কিন্তু স্রোতের টানে দ্বীপ ভেসে যাওয়ায় তাকে উদ্ধার করতে পারেনি বন্ধুরা। 

ভিডিও ফুটেজে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে দ্বীপের বাবা মন্টু ঘোষ রিয়াদ সহ ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। গত মঙ্গলবার রাতে রিয়াদকে তার বাসা থেকে পুলিশ গ্রেফতার করে। পরদিন গত বুধবার সে আদালতে স্বীকারোক্তীমূলক জবানবন্দী দিয়েছে। 

উল্লেখ্য, গত ২ নভেম্বর সন্ধ্যার পর ট্রলারে বন্ধুর জন্মদিন উৎসব পালনের সময় নগরী সংলগ্ন কীর্তণখোলা নদীতে পড়ে গিয়ে নিখোঁজ হয় দ্বীপ ঘোষ। পরদিন ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল তার লাশ উদ্ধার করে। দ্বীপ ঘোষ নগরীর আমানতগঞ্জ এলাকার মন্টু ঘোষের ছেলে।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর