শিরোনাম
প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:৩৮
প্রিন্ট করুন printer

ফরিদপুরে চোর আখ্যা দিয়ে স্কুলছাত্রকে বেদম প্রহার, হাসপাতালে ভর্তি

ফরিদপুর প্রতিনিধি

ফরিদপুরে চোর আখ্যা দিয়ে স্কুলছাত্রকে বেদম প্রহার, হাসপাতালে ভর্তি

ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার দাদপুর ইউনিয়নের কোন্দারদিয়া গ্রামে ৫ম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রকে চোর আখ্যা দিয়ে বেদম পিটুনী দিয়ে গুরুতর আহত করা হয়েছে। আহত অবস্থায় ওই স্কুলছাত্রকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ট্রমা সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে। সারা শরীরজুড়ে আঘাতের চিহ্ন নিয়ে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে ব্যাথায় কাতরাচ্ছে শিশুটি। এ ঘটনায় থানায় মামলার পুস্তুতি চলছে। স্কু ছাত্রকে চোর আখ্যা দিয়ে পিটুনীর ঘটনায় এলাকাজুড়ে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

 
স্থানীয় এলাকাবাসী ও প্রাপ্ত অভিযোগে জানা গেছে, দাদপুর ইউনিয়নের কোন্দারদিয়া গ্রামের দরিদ্র কৃষক রাজা মোল্যার পুত্র, স্থানীয় রাঙামুলারকান্দি স্কুলের ৫ম শ্রেণির ছাত্র মো. সাব্বির মোল্যা (১২) আজ সোমবার ফজর নামাজের জন্য বাড়ি থেকে বের হয়ে অদূরে মসজিদে যাচ্ছিল। মসজিদে যাবার পথে একটি গাছগাছালী ঘেরা বাগান পার হতে হয়। সাব্বির মোল্যা ভয়ের কারণে বাগানটি এড়িয়ে জনৈক মাজেদ মাস্টারের বাড়ির উঠানের সামনে দিয়ে যাচ্ছিল। এসময় বাড়ির লোকজন সাব্বিরকে ধরে ঘরের মধ্যে নিয়ে যায়। 

পরে মাজেদ মাস্টারের ছেলে ফারুক, জিয়াদ ও মাজেদ মাস্টারের নাতি হাসিব লাঠি দিয়ে সাব্বিরকে বেদমভাবে প্রহার করে। এসময় তারা তার হাতের নখ প্লাস দিয়ে তুলে ফেলার চেষ্টা করলে সে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। পরবর্তীতে খবর পেয়ে সাব্বিরের বাবা-মা সেখান থেকে স্থানীয়দের সহায়তায় হাসপাতালে নিয়ে যায়। 

সাব্বিরের বাবা রাজা মোল্যা অভিযোগ করে বলেন, আমার স্ত্রী মাজেদ মাস্টারের বাসায় দীর্ঘ ৬ বছর ধরে কাজ করে আসছিল। গত কয়েকমাস আগে অসুস্থ্যতার কারণে সে আর কাজ করতে পারবে না বলে জানায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে মাজেদ মাস্টার। বিভিন্ন সময় মাজেদ মাস্টার ও তার ছেলেরা আমার ছেলে সাব্বিরকে তাদের বাড়ির কাজ করে দিতে বলে। কিন্তু আমার ছেলে তাদের কাজ না করায় দেখে নেবার হুমকি দেয়। ভোরে আমার ছেলে মসজিদে নামাজ পড়তে গেলে মাজেদ মাস্টারের ছেলে ও নাতি মিলে তাকে বেদমভাবে প্রহার করে। মারপিটের কারণে আমার ছেলের সারাদেহে মোটা কালো দাগ হয়ে গেছে। আমার ছেলের নখ ভেঙ্গে গেছে। সে এখন ঠিকমতো দাঁড়াতে এবং শুতেও পারছেনা। আশংকাজনক অবস্থায় তাকে ট্রমা সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে। আমি আমার ছেলের উপর নির্মম নির্যাতনের বিচার চাই। 

সাব্বিরের মা মোসা. পানোয়ারা বেগম বলেন, আমার ছেলেকে যারা অমানুষিক নির্যাতন করেছে তাদের বিচার চাই। আমরা গরীব মানুষ বলে আমাদের উপর এমন অত্যাচার কেন করা হবে। 

এ বিষয়ে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ সেই মাজেদ মাস্টারের ছেলে ফারুকের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে সামনাসামনি কথা বলবো। আমি এখন ব্যস্ত আছি বলেই ফোনটি কেটে দেয়। 

বোয়ালমারী থানার ওসি জানান, এ বিষয়ে এখনো কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

 

বিডি-প্রতিদিন/সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর