শিরোনাম
প্রকাশ : ৬ মার্চ, ২০২১ ২২:৪২
আপডেট : ৬ মার্চ, ২০২১ ২২:৪৩
প্রিন্ট করুন printer

লাকসামে মশার উপদ্রবে জনজীবন অতিষ্ঠ

ফারুক আল শারাহ, লাকসাম:

লাকসামে মশার উপদ্রবে জনজীবন অতিষ্ঠ

কুমিল্লার লাকসাম পৌরশহরে মশার উপদ্রব বৃদ্ধিতে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। শহরবাসীকে মশার উপদ্রব থেকে রক্ষা করতে ওষুধ ছিটানো শুরু হলেও মশা নিয়ন্ত্রণে আসছে না। এতে মশাবাহিত নানা রোগব্যাধিতে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন পৌরবাসী।  

পৌর নাগরিকরা জানান, সম্প্রতি মশার উৎপাতে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে নাগরিক জীবন। বাসা-বাড়ি, শিক্ষা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, অফিসসহ সর্বত্র মশার আক্রমণ থেকে রক্ষা পাচ্ছেন না কেউই। মশার কয়েল, স্প্রে সবকিছুই মশার কাছে হার মানছে।

পৌরসভায় ময়লা আবর্জনা পরিষ্কারের জন্য প্রয়োজনীয় পরিচ্ছন্নকর্মী থাকলেও কতিপয় নাগরিক ও ব্যবসায়ী নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে যত্রতত্র ময়লা আবর্জন ফেলে পরিবেশ দূষণ করে করছে। এতে মশার উপদ্রব বৃদ্ধি পেয়েছে। 

শীত মৌসুমে মশার উপদ্রব কিছুটা কম থাকলেও গ্রীষ্মকালের শুরুতেই ব্যাপকহারে মশার উপদ্রব বৃদ্ধি পেয়েছে। সন্ধ্যা নামার সাথে সাথেই বাসা-বাড়িতে মশা প্রবেশ করে জনজীবন অতিষ্ঠ করে তুলছে। মশা নিয়ন্ত্রণে ইতোমধ্যে পৌর কর্তৃপক্ষ নালা-নর্দমাগুলোতে মশক নিধন স্প্রে ছিটানো কার্যক্রম শুরু করলেও মশা নিয়ন্ত্রণে আসছে না। বাড়ি-বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও অফিসে ইলেকট্রিক ব্যাট, অ্যারোসল, কয়েল জ্বালিয়েও মশার অত্যাচার থেকে নগরবাসী রক্ষা পাচ্ছে না। 

পৌর শহরের ক্লিনিক ব্যবসায়ী ডা. নাজমুল আহসান রিয়াজ জানান, মশার অত্যাচারে মানুষ অতিষ্ঠ। ঘরোয়াভাবে মশা নিধন করা যাচ্ছে না। এতে মশাবাহিত রোগের ঝুঁকি রয়েছে। 

দক্ষিণ লাকসামের বাসিন্দা রিংকু সাহা জানান, মশার উপদ্রব থেকে রক্ষায় দুপুরের পর থেকে বাসায় মশার কয়েল জ্বালিয়ে রাখতে হচ্ছে। তাতেও মশার অত্যাচার থেকে রক্ষা পাওয়া যাচ্ছে না। 

লাকসাম পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক মো. আবুল খায়ের বলেন, শহরবাসীকে মশার উপদ্রব থেকে রক্ষা করতে মশক নিধন স্প্রে ছিটানো শুরু হয়েছে। মশার উপদ্রব থেকে রক্ষা পেতে তিনি নাগরিকদের সচেতন হওয়ার আহবান জানিয়ে বলেন, যততত্র ময়লা-আবর্জনা না পেলে পরিচ্ছন্ন কর্মীদের মাধ্যমে তা নির্দিষ্ট জায়গায় ফেলার ব্যবস্থা করুক। উন্নত নাগরিক সেবায় পৌর কর্তৃপক্ষ সর্বদা তৎপর বলে তিনি জানান।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর