শিরোনাম
প্রকাশ : ২১ এপ্রিল, ২০২১ ২০:২৮
প্রিন্ট করুন printer

আলফাডাঙ্গায় আওয়ামী লীগ নেতার ওপর হামলায় নেতৃবৃন্দের তীব্র নিন্দা

অনলাইন ডেস্ক

আলফাডাঙ্গায় আওয়ামী লীগ নেতার ওপর হামলায় নেতৃবৃন্দের তীব্র নিন্দা

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায় গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শফি ও তার পরিবারের ওপর হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। একই সঙ্গে হামলাকারীদের বিচার দাবি করেছেন তারা।

আজ বুধবার বিকেলে ২নং গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে প্রতিবাদ সভায় নেতাকর্মীরা এই দাবি জানান। 

গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোনায়েম খানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পরিচালনায় সভায় বক্তব্য দেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সুজা মিয়া, খান আমিরুল ইসলাম, আব্বাস উদ্দীন, দপ্তর সম্পাদক আনিচুর রহমান, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা আবু বকর সিদ্দিক, সিনিয়র সদস্য বাকিয়ার রহমান বাকা।

এছাড়াও সভায় আরও বক্তব্য রাখেন ১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন শেখ, ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি খান কামরুল ইসলাম ফজর, ৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি খান নবাব আলী, ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম কবীর শেখ, ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দীন আলী, ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম লাবু, গোপালপুর ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক মুশফিকুর রহমান উজ্জ্বল প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা মানে গোটা আওয়ামী লীগকে ব্যথিত করা। আমরা এ হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। একই সঙ্গে অবিলম্বে হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।  

প্রসঙ্গত, গত সোমবার (১৯ এপ্রিল) উপজেলার গোপালপুর গ্রামে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গোপালপুর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম বাবরের নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শফির বসতবাড়িতে ঢুকে শফিসহ তার ভাই রবিউল ইসলাম, চাচাতো ভাইয়ের ছেলে সুমন ও ভাইয়ের স্ত্রী রুমা বেগমকে মারপিট করে রক্তাক্ত জখম করে। অভিযুক্তরা তাদের বসতঘরে ঢুকে বিভিন্ন মালামাল ভাঙচুর ও মূল্যবান জিনিসপত্র লুটপাট করে। বর্তমানে তারা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর

এই বিভাগের আরও খবর