শিরোনাম
প্রকাশ : ৩০ মে, ২০২১ ১২:৩১
প্রিন্ট করুন printer

রায়পুরের মেঘনায় মিলছে না ইলিশ

রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি

রায়পুরের মেঘনায় মিলছে না ইলিশ
Google News
লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার মেঘনা নদীতে মিলছে না কাঙ্খিত রূপালী ইলিশ। ইলিশ শিকারের নিষেধাজ্ঞা শেষ হয়েছে এক মাস আগে। গত ১ মে থেকে নদীতে জাল, নৌকা, ট্রলার ও বিভিন্ন মাছ ধরার সরঞ্জামাদি নিয়ে এ উপজেলার প্রায় সাড়ে ৭ হাজার জেলে ইলিশ ধরতে মেঘনা নদীতে নামেন। এই এক মাস নদীতে জাল ফেলেও জেলেদের জালে মিলছে না রূপালী ইলিশ। ইলিশের ভরা মৌসুম শুরু হলেও রায়পুরের মেঘনায় চলছে ইলিশের চরম আকাল। এতে বিপাকে পড়েছেন জেলে সম্প্রদায়। অনেকে বলছেন, এবার ব্যাপক হারে জাটকা নিধন হওয়ায় জেলেদের জালে ইলিশ ধরা পড়ছে না। 
 
উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, চাঁদপুরের ষাটনল থেকে লক্ষ্মীপুরের আলেকজান্ডার পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটার নদী এলাকাকে ইলিশের অভয়াশ্রম ঘোষণা করা হয়েছে। ঐ এলাকায় ১মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত সব ধরণের জাল ও মাছ ধরা নিষিদ্ধ করেছিলো সরকার। কাঙ্খিত ইলিশের আশায় কোমড় বেঁধে নদীতে নামে জেলেরা। 
 
সরেজমিন ঘুরে কয়েকটি মাছঘাটে দেখা যায়, বিভিন্ন দূর-দুরান্ত থেকে মাছের পাইকাররা এসে ইলিশ কিনতে না পারায় খালি হাতে ফিরে যাচ্ছেন। মেঘনা নদীর জালিয়ার চর, চরবংশী ও চরলক্ষ্মী এলাকার জেলে আইনুদ্দিন, সেলিম বকাউল ও ছিডু মাঝি বলেন, গত এক মাস ধরে নদীতে লাখ লাখ টাকার জাল, নৌকা নিয়ে মাছ ধরতে নেমেছি। প্রতিদিন আমাদের সাড়ে ৬ থেকে ৭ হাজার টাকার বেশি খরচ হয়। কিন্তু দিন-রাত নদীতে জাল ফেলে মাত্র আড়াই থেকে ৩ হাজার টাকার মাছ পাই। এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে জাল, নৌকা তৈরি করেছি। ভেবেছিলাম ইলিশ শিকার করে দেনা পরিশোধ করবো। উল্টো নতুন করে বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিতে হচ্ছে। এ নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় রয়েছি। নদীতে ইলিশ ধরা না পড়লে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে চরম মানবেতর জীবনযাপন করতে হবে। অন্যদিকে, লোণ পরিশোধ করতে না পারায় রয়েছি চরম দুশ্চিন্তায়।
 
উপজেলা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ বেলায়েত হোসেন বলেন, এ বছর বৃষ্টিপাত শুরু না হওয়ায় নদীতে তেমন ইলিশ ধরা পড়ছে না। সামনে বৃষ্টিপাত হলে নদীতে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়বে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন তিনি।  
 
 
বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত
এই বিভাগের আরও খবর