১ জুন, ২০২২ ১৬:৩৬

প্রধান শিক্ষককে পেটালেন নৈশপ্রহরী

নরসিংদী প্রতিনিধি

প্রধান শিক্ষককে পেটালেন নৈশপ্রহরী

ফাইল ছবি

নরসিংদীতে স্কুলে না আসার কারণ জানতে চাওয়ায় প্রধান শিক্ষককে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরীর বিরুদ্ধে। এতে গুরুতর আহত হয়েছেন স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা। খবর পেয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাসহ শিক্ষা বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা স্কুল পরিদর্শন করেন। বিষয়টি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও জেলা প্রশাসককে অবহিত করা হয়েছে।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় দপ্তরির বিরুদ্ধে মাধবদী থানায় মামলা দায়ের করেছেন আলগী মনোহরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। এদিকে শিক্ষককে পেটানোর কথা স্বীকার করেছেন দপ্তরি। তবে এখনো তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

মামলা সূত্রে জানা যায়, নরসিংদীর সদর উপজেলার ৮৬ নম্বর আলগী মনোহরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োজিত আছেন কামরুন নাহার মাহামুদা। একই স্কুলে আউটসোর্সিং দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরী হিসেবে নিয়োজিত আছেন মো. শরিফ মিয়া। স্কুল এলাকায় বাড়ি হওয়ার সুবাদে দপ্তরি শরীফ মিয়া নিজের ইচ্ছে মতো স্কুলের ডিউটি করেন। এতে স্কুল পরিচালনায় ব্যাহত হচ্ছিল। একধিক বার মৌখিকভাবে নোটিশ দেওয়া হলেও তিনি কর্ণপাত করেননি। তাই বাধ্য হয়ে প্রধান শিক্ষিকা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে অবহিত করেন। পরে শিক্ষা কর্মকর্তার পরামর্শে দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরীকে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে শোকজ করা হয়।

এতে দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরী শরীফ মিয়া প্রধান শিক্ষকের ওপর ক্ষিপ্ত হন। একপর্যায়ে স্কুলে প্রধান শিক্ষককে গালিগালাজসহ অশালীন মন্তব্য করেন। এরই মধ্যে গত ১৮ মে মো. শরীফ মিয়া সকাল ৯টায় স্কুলে আসার স্থলে সকাল সাড়ে ১০টায় স্কুলে আসেন। ওই সময় প্রধান শিক্ষক তার কাছে দেরিতে স্কুলে আসার কারণ জানতে চান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে যায় দপ্তরি। ওই সময় দপ্তরি শরীফ মিয়া প্রধান শিক্ষককে গালিগালাজ শুরু করেন। এর কিছুক্ষণ পর দপ্তরি তার স্ত্রী ও শাশুড়িকে স্কুলে নিয়ে আসে। ওই সময় দপ্তরির স্ত্রী ও শাশুড়ি প্রধান শিক্ষক কামরুন নাহারকে চুল ধরে টেনেহিঁচড়ে তার রুম থেকে বের করে স্কুলের আঙিনায় নিয়ে আসেন। একপর্যায়ে তাকে আঘাত করেন।

প্রধান শিক্ষিকার ডাক চিৎকারে স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যান। খবর পেয়ে জেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাসহ শিক্ষা বিভাগের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ঘটনার একদিন পর স্কুলের প্রধান শিক্ষক বাদী হয়ে দপ্তরি, তার স্ত্রী ও শাশুড়ির বিরুদ্ধে মাধবদী থানায় মামলা দায়ের করেন।

এদিকে, চুক্তিভিত্তিতে নিয়োগপ্রাপ্ত দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ম্যানেজিং কমিটিকে নির্দেশ দিয়েছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. বায়জিদ খান। কিন্তু অদৃশ্য কারণে দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরীর বিরুদ্ধে এখনো কোনো ব্যবস্থা নেয়নি স্কুল ম্যানেজিং কমিটি।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক কামরুন নাহার মাহামুদা বলেন, দপ্তরি যদি প্রধান শিক্ষকের কথা অমান্য করে, তাহলে স্কুল পরিচালনায় ব্যাহত হয়। সে তার ইচ্ছে মতো স্কুলে আসা যাওয়া করেন। তাই তাকে একাধিকবার শোকজ করা হয়। ১৮ তারিখও স্কুলে দেরিতে আসার কারণ জানতে চাইলে, সে আমার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে হামলা চালিয়েছে। তাছাড়া স্কুলের পাশে দপ্তরির বাড়ি। তাই সব সময় সে এলাকায় দাপট দেখায়।

সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান খান বলেন, প্রধান শিক্ষকের ওপর হামলার খবর পেয়ে স্কুলে ছুটে যাই। এবং তার সত্যতা পাই। প্রধান শিক্ষক যদি অপরাধও করে, তাহলে দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরী স্কুলের কমিটি, উপজেলা শিক্ষা অফিস বা জেলা শিক্ষা অফিসে অভিযোগ করতে পারেন। কিন্তু কোনো ক্রমেই প্রধান শিক্ষকের ওপর হাত তুলতে পারে না। তাছাড়া এই দপ্তরিকে চুক্তিভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। সে শিক্ষা পরিবারেরও কেউ না। এটার বিচার হবে।

প্রধান শিক্ষককে মারধরের কথা স্বীকার করেছেন স্কুলের দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরী শরীফ মিয়া। তিনি বলেন, মে মাসের ১৭ তারিখ প্রধান শিক্ষক মিটিংয়ে চলে যায়। ১৮ তারিখ আমি স্কুল খুলে বাড়িতে যাই। ম্যাডাম এসে আমাকে ডেকে আনেন। তখন তিনি বলছেন আমি ১৭ মে স্কুলে আসিনি। তখন আমি স্কুলের ছাত্রদের কাছে জানতে বলি। এই কথা বলার সাথে সাথে তিনি আমার শরীরের ওপর স্ট্যাপলার ছুড়ে মারেন। এই খবর আমার পরিবার শুনে ছুটে আসেন। তখন আমার পরিবারের সাথে ম্যাডামের কথা-কাটাকাটি হয় এবং হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। দপ্তরি আরও বলেন, ম্যাডাম স্কুলের বই বিক্রি করে দেয়। আমি যেন এসব না বলি, সে কারণে তিনি আমাকে চাপে রাখতো।

স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ফারুক মিয়া কলেন, শিক্ষা অফিসের চিঠি পাওয়ার পর মিটিং কল করা হয়েছিল। ম্যানেজিং কমিটির ১১ সদস্যের মধ্যে দুজন উপস্থিত হয়েছিল। তাই সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়নি।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর