২৫ জুলাই, ২০২২ ২২:২৪

রূপালী ইলিশে পটুয়াখালীর মৎস্য বন্দরে কর্মচাঞ্চল্য

পটুয়াখালী প্রতিনিধি:

রূপালী ইলিশে পটুয়াখালীর মৎস্য বন্দরে কর্মচাঞ্চল্য

নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পর দ্বিতীয় দিনে অর্ধশত মাছধরা ট্রলার রূপালী ইলিশ নিয়ে সাগর থেকে বন্দরে ফিরেছে জেলেরা। সোমবার দিনভর পটুয়াখালীর মহিপুর থানার মৎস্য বন্দর আলীপুর ও মহিপুরে প্রায় পঞ্চাশটি ট্রলার ইলিশ নিয়ে পৌঁছেছে। তাই মৎস্য বন্দরগুলোতে এখন কর্মচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে ব্যবসায়ী ও মৎস্য শ্রমিকদের মাঝে। আনন্দের জোয়ার বইছে জেলে পল্লীতে। এ বছর গভীর সাগরে বেশ বড় সাইজের প্রচুর ইলিশ পাওয়া যাবে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ী ও জেলেরা।

গভীর সাগরে ইলিশ শিকারি জেলে আজমল হোসেন জানান, গভীর সাগরে লাল জালে প্রচুর বড় সাইজের ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। সামনে অমাবস্যার জোঁ তাই দু’তিন দিন একটু কম পাওয়া যাবে ইলিশ। তার পরও গভীর সাগরে বড় ট্রলারে ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। জোঁ কেটে গেলে গভীর সাগরে প্রচুর ইলিশ পাওয়া যাবে।

আলীপুর মৎস্য বন্দরের ব্যবসায়ী আবুল হোসেন জানান, ঘাটে বেশ কিছু ট্রলার এসেছে। এরমধ্যে কিছু ট্রলারে অনেক মাছ পেয়েছে। আবার কিছু ট্রলারে ১৬ হাজার টাকার মাছও পেয়েছে। যার ভাগ্যে আছে সে পেয়েছে। 

আলীপুর মৎস্য বন্দর সমবায় সমিতির সভাপতি ও লতাচাপলি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আনছার মোল্লা জানান, আলীপুর ও মহিপুর দুই বন্দর মিলিয়ে প্রায় পঞ্চাটি ট্রলার সাগর থেকে ইলিশ মাছ নিয়ে ফিরে এসেছে জেলেরা। কোন ট্রলারে একশ মন পর্যন্ত ইলিশ পেয়েছে। এর একেকটি ট্রলার ৩০-৪০ লাখ টাকার মাছ বিক্রি করেছে। বেশীর ভাগই গভীর সাগরে লাল জালে প্রচুর মাছ পেয়েছে। গতকালের চেয়ে দাম একটু কম। ৮০০ গ্রাম থেকে কেজির উপরে মাছের প্রতি মন ইলিশ ৫৫-৬০ হাজার টাকা। ৮০০ গ্রাম সাইজের ছোট ইলিশ প্রতি মন ২৯-৩০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে। তিনি আরও জানান, এ বছর গভীর সাগরে বেশ বড় সাইজের প্রচুর ইলিশ পাওয়া যাবে। 

বিডি প্রতিদিন/এএম

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর