Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৬ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ মে, ২০১৯ ২২:৩৮

আধ্যাত্মিক উৎকর্ষতা দান করে রোজা

মাওলানা মুহম্মাদ সাহেব আলী

আধ্যাত্মিক উৎকর্ষতা দান করে রোজা

ইসলামের অন্যতম স্তম্ভ রোজা। নামাজ ও জাকাতের পর এটি অবশ্যপালনীয় বা ফরজ ইবাদত হিসেবে বিবেচিত। মাহে রমজান ও রোজার মাসের গুরুত্বও মুমিনদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এ মাসে আল কোরআন নাজিল হয়েছে। আগের অনেক আসমানি কিতাব রমজানে নাজিল হওয়ায় এ মাসের মর্যাদা সহজেই অনুমেয়। সর্বশক্তিমান আল্লাহ সূরা আল বাকারার ১৮৩ ও ১৮৪ নম্বর আয়াতে ইরশাদ করেছেন, ‘হে বিশ্ববাসীরা! তোমাদের ওপর রোজা ফরজ করা হয়েছে, যেমন ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তী লোকদের ওপর, যাতে তোমরা পরহেজগারি অর্জন করতে পারো। গণনার কয়েকটি দিন, এ সময় তোমাদের মধ্যে যে অসুস্থ কিংবা ভ্রমণে থাকবে, তাকে অন্য সময় রোজা পূরণ করে নিতে হবে।’ রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জবানেও রমজানের গুরুত্ব বর্ণিত হয়েছে নানাভাবে। বুখারি ও মুসলিমে বর্ণিত হয়েছে, রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘ইসলামের ভিত্তি পাঁচটি বিষয়ের ওপর প্রতিষ্ঠিত। আল্লাহ ছাড়া কোনো ইলাহ নেই এবং মুহাম্মদ তাঁর প্রেরিত রসুল- এ মর্মে সাক্ষ্য দেওয়া, নামাজ কায়েম, জাকাত প্রদান, হজ সম্পাদন, রমজানের রোজা পালন।’ রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আরও বলেছেন, ‘যে লোক ন্যায়সংগত কারণ ছাড়া রমজানের একটি রোজা ভেঙে ফেলবে, এরপর সে সারা জীবন রোজা রাখলেও তার ক্ষতি পূরণ হবে না।’ তিরমিজি, নাসায়ি, ইবনে মাজা, ইবনে খুজায়মা। হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) বর্ণনা করেন, ইসলামের শিকড় ও ধর্মের বুনিয়াদ তিনটি- আল্লাহ ছাড়া কোনো মাবুদ নেই এ সাক্ষ্য দেওয়া, নামাজ ও রোজা। যে লোক এর একটি পরিত্যাগ করবে, সে কাফির হিসেবে গণ্য হবে। রোজা অবশ্যই এমন একটি ইবাদত যা মুমিনদের আধ্যাত্মিক উৎকর্ষতা দান করে। শারীরিক, মানসিক ও আত্মিক দিক থেকেও রোজার বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। যে কারণে রোজা বান্দার জন্য মাবুদের রহমতবিশেষ। আল্লাহ আমাদের সহিভাবে রোজা পালনের তাওফিক দান করুন।

                লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক।


আপনার মন্তব্য