শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১২ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১১ মে, ২০২১ ২২:৫১

করোনা ভ্যাকসিন : অবিশ্বাসের গ্রাফ তুঙ্গে উঠল

তুষার কণা খোন্দকার

করোনা ভ্যাকসিন : অবিশ্বাসের গ্রাফ তুঙ্গে উঠল
Google News

প্রতি ১০০ বছর পরপর দুনিয়ার ওপর যে কোনো একটা মহামারী আসে। ১৯১৮-১৯২০ এ দুই বছর দুনিয়াটা স্প্যানিশ ফ্লুর দখলে ছিল। স্প্যানিশ ফ্লু রোগটিকে ইনফ্লুয়েঞ্জা প্যানডেমিক নামেও ডাকা হয়। রোগের নাম স্প্যানিশ ফ্লু হলেও রোগের জন্ম স্পেনে হয়নি। এর উৎপত্তিস্থল ছিল আমেরিকার কেনসাস। ওখান থেকে রোগটি সারা দুনিয়ায় ছড়িয়ে গেলে স্পেনের রাজা আলফনসো এতে আক্রান্ত হয়ে রোগে ভুগে বেঁচে গিয়েছিলেন। রাজা আলফনসো এ রোগে ভুগেছিলেন বলে একে স্প্যানিশ ফ্লু নামে ডাকা হয়। দুই বছর ধরে চলা রোগ স্প্যানিশ ফ্লু পৃথিবীর তিন ভাগের এক ভাগ মানুষকে আক্রান্ত করেছিল। স্প্যানিশ ফ্লু রোগে দুনিয়াজুড়ে ৫ কোটি মানুষ মারা গিয়েছিল বলে বলা হয়। তবে মৃতের সংখ্যা এর অনেক বেশিও হতে পারে কারণ সে সময় পৃথিবীর সব দেশে মৃত্যুর তথ্য-উপাত্ত সংরক্ষণ করা হয়নি। ১০০ বছর পার হতে একেবারে ঘড়ির কাঁটা ধরে ২০১৯ সালে দুনিয়ার ওপর করোনা প্যানডেমিক শুরু হয়ে গেল। করোনার আগমনের ধরন দেখে মনে হচ্ছে এ যেন কোনো নির্জন দ্বীপে কিংবা কোনো পাহাড়ের গুহায় লুকিয়ে বসে ক্যালেন্ডারের দিকে চেয়ে দুনিয়ার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ার জন্য ক্ষণ গুনছিল। ক্যালেন্ডারের পাতা ১০০ বছরের ঘর ছুঁয়ে দিতে করোনা তার নিজস্ব পরিকল্পনামাফিক দুনিয়ার বুকে খেল দেখাতে শুরু করেছে। করোনার কারণে পৃথিবীর ধনী-গরিব সব দেশ নাস্তানাবুদ। গণমাধ্যম কিংবা ব্যক্তিগত আলাপচারিতায় সর্বত্র এখন করোনার রাজত্ব। ব্যক্তিগত আলাপচারিতায় একজন জীববিজ্ঞানীর কাছে আমি প্যানডেমিকের কারণ জানতে চেয়েছিলাম। জবাবে তিনি যা বললেন তা আমাদের অনেকের মনঃপূত হবে না। জীববিজ্ঞানী ভদ্রলোক বললেন, প্রকৃতি তার নিজের নিয়মে নিজের ব্যালান্স রক্ষা করে। ১০০ বছর পরপর দুনিয়ার ওপর একটা প্যানডেমিকের ঝড় এলে তাতে মানুষ প্রজাতির বাড়বাড়ন্ত একটু ধাক্কা খায়। আমার করুণ মুখভঙ্গি দেখে জীববিজ্ঞানীর মনে বোধহয় দয়া হয়েছিল। সেজন্য তিনি শান্ত গলায় বললেন, আসলে প্যানডেমিকের কারণ সম্পর্কে বিজ্ঞানীরা আজও কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেননি। তবে আমার মনে হয়, মানুষ ভুলে যায় যে তারাও প্রকৃতির অমোঘ অংশ। উন্নত জীবন-জীবিকার জন্য মানুষ সৃষ্টির আদি থেকেই চেষ্টা করে যাচ্ছে এবং ভবিষ্যতেও তা করবে। কিন্তু দাও দাও খাই খাই রব তুলে সবকিছুর ওপর হামলে পড়ে ধ্বংসলীলায় মেতে ওঠা মোটেও ভালো নয়। ওতে প্রকৃতির নিজস্ব নিয়মরীতি বাধাগ্রস্ত হয়। তবে এটা মনে রেখ, এ প্যানডেমিক পৃথিবীর সব মানুষকে কষ্টে ফেলে দেবে কিন্তু এ বিপর্যয় থেকে মানুষ কিছুই শিখবে না। মানুষ যেমন ইতিহাস থেকে কিছু শেখে না তেমন মানুষের নিয়ম হচ্ছে তারা প্যানডেমিক থেকে কোনো কিছু শেখে না। মানুষ যদি ১৯১৮-২০ সালের স্প্যানিশ ফ্লু থেকে কিছু শিখত তাহলে ২০২০-২১ সালে করোনা পৃথিবীকে এমন অপ্রস্তুত অবস্থায় নাজেহাল করতে পারত না। স্প্যানিশ ফ্লুর শিক্ষা মাথায় থাকলে উন্নত দেশগুলো এবং হামবড়ামি করে যারা নিজেদের উন্নত বলে দাবি করে তাদের দুর্দশা এমন চরম সীমায় পৌঁছাতে পারত না। দুনিয়ার উন্নত দেশগুলো তাদের জনস্বাস্থ্যকে কতখানি হেলা করেছে করোনা তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে যাচ্ছে।

আমরা গরিব দেশে জন্মেছি। আমরা রোগে ভুগে বিনা চিকিৎসায় মরতে অভ্যস্ত। কিন্তু দুনিয়ার ওপর যারা মোড়লগিরি করে সেসব দেশের মানুষ করোনার ধাক্কায় এখন ডাঙায় তোলা মাছের মতো একটু শ্বাস নেওয়ার জন্য তড়পে মরছে এটা আমাদের চোখে বিস্ময়কর। এ বিস্ময় ছাপিয়ে বিস্মিত চোখে আমরা করোনা রাজনীতির একটি কুৎসিত রূপ দেখছি। বড় দেশগুলোর স্বার্থপর আচরণ দেখে বলতে বাধ্য হচ্ছি, স্বভাব যায় না মলে, ইল্লত যায় না ধুলে। দুনিয়ার মোড়লি নেওয়ার জন্য যারা মুখিয়ে থাকে তারা করোনা বিপদের গন্ধ পেয়ে গরিব দেশগুলোর স্বার্থ মাথায় পা দিয়ে ডুবিয়ে দিচ্ছে। করোনার ওষুধ, করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে বড় দেশগুলো যে পর্যায়ের নীচতার প্রমাণ দিচ্ছে তা সত্যি দুঃখজনক। মোড়ল দেশগুলোর রাজনীতিকদের কায়কারবার দেখে মনে হচ্ছে, প্রকৃতি চাইলে আমাদের সবার ফুসফুস অকেজো করে দিয়ে আমাদের প্রাণবায়ু কেড়ে নিতে পারে কিন্তু প্রকৃতি কি মানুষ নামের দোপেয়ে প্রাণীর মন-মগজের বিকৃতি ধুয়ে মুছে সাফ করে তাকে মানবিক করে তুলতে পারবে? করোনা এ কঠিন কাজটি করতে পারবে না তবে প্রকৃতি মোড়ল দেশগুলোর ভয়ংকর স্বার্থপরতার চেহারা দুনিয়াকে দেখিয়ে দিয়ে গেল। অনেক দিন ধরে দুনিয়ার রাজনীতি অবিশ্বাস ও কুটিলতার পাঁকে ডুবে আছে। দেশগুলোর ভিতর জমে ওঠা কুটিলতা একসময় প্রাকৃতিক নিয়মে দূর হয়ে গেলে সবাই সহজ পথে ফিরে আসবে এমন বিশ্বাস বাস্তবসম্মত ছিল না। তবু মানুষ মনের মধ্যে ইতিবাচক স্বপ্ন ধরে রেখেছিল। মানুষ ভাবত, দেশগুলোর ভিতর চলতে থাকা বিবাদ-বিসম্বাদ মিটে গিয়ে একসময় পৃথিবী শান্তির মুখ দেখবে। তবে এবারের প্যানডেমিকের সময় দেশে দেশে রাজনীতিবিদদের স্বার্থপরতার প্রতিযোগিতা দেখে মানুষের মনের ইতিবাচক স্বপ্ন হাওয়ায় মিলিয়ে গেছে। করোনা চিকিৎসার ওষুধ, করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে পৃথিবীর বড় দেশগুলোর বেহায়া স্বার্থপরতা দেখে কি মনে হচ্ছে দুই দিন আগেও সারা দুনিয়ার মানুষের কল্যাণের জন্য, প্রতিবেশী দেশগুলোর ভালোর জন্য বড় দেশের নেতারা চোখের পানিতে বুক ভাসাচ্ছিলেন। দুনিয়ার স্বঘোষিত মোড়ল আমেরিকার কথা ধরুন। মাত্র কদিন আগে ও দেশে যখন নির্বাচন হলো তখন জো বাইডেনের কথা শুনে আমাদের মনে শান্তির সুবাতাস বয়ে যাচ্ছিল। মনে হচ্ছিল আমেরিকাবাসী যদি এমন মানবতাবাদী মানুষটিকে ক্ষমতায় না আনে তাহলে আমরাই গিয়ে তাঁর হাত ধরে হোয়াইট হাউসে ঢুকিয়ে রেখে আসব। এখন জো বাইডেন হোয়াইট হাউসে বসে যা করছেন তাতে হিটলারের আত্মাও লজ্জা পাবে। ভ্যাকসিন আবিষ্কার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দুনিয়ার সব ভ্যাকসিন তিনি একা কুক্ষিগত করে ফেললেন। গরিব দেশের কথা বাদ দিলাম আমেরিকার একান্ত অনুগত বন্ধু ইউরোপের কথাও তিনি ভাবতে রাজি নন। সব ভ্যাকসিন আমেরিকার দখলে চলে যাওয়ায় ইউরোপ এখনো ভ্যাকসিনের জন্য হাহাকার করে ফিরছে। আমেরিকার প্রাণবন্ধু ইসরায়েল তার সব নাগরিককে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করে এপ্রিলের শেষ সপ্তাহে সে দেশে করোনায় মৃত্যু শূন্যের কোঠায় নামিয়ে এনেছে। এ সপ্তাহে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মানবতার খোলসের তলে লুকিয়ে রাখা বিষাক্ত থাবা বের করে দুনিয়াকে দেখিয়ে দিয়ে প্রমাণ করলেন আমেরিকা মানবতার ভেক ধরতে পারে তাই বলে আমেরিকার কাছে মানবিক কোনো আচরণ আশা করা যায় না। বিভিন্ন কোম্পানির উৎপাদিত ভ্যাকসিন জো বাইডেন পৃথিবীর কোনো দেশকে অবাধে নিতে দিচ্ছেন না। জবরদস্তি খাটিয়ে সব ভ্যাকসিন তিনি তাঁর দেশের মানুষের জন্য ঝেড়ে পুঁছে নিয়ে যাচ্ছেন। বিকল্প পথ হিসেবে পৃথিবীর অন্য দেশগুলো যে যার সামর্থ্যমাফিক ভ্যাকসিন উৎপাদন করে বাঁচতে চাইলে আমেরিকা তাতেও বাগড়া দিয়ে বসছে। ভ্যাকসিন তৈরির কাঁচামালের জন্য পৃথিবীর বহু দেশ আমেরিকার ওপর নির্ভরশীল। বাইডেন প্রশাসন আমেরিকায় উৎপাদিত ভ্যাকসিন তৈরির কাঁচামাল রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। ভ্যাকসিন তৈরির কাঁচামালের ওপর রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে তিনি নির্লজ্জের মতো তাঁর পূর্ববর্তী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভাষায় বললেন, ভ্যাকসিনের কাঁচামালের ব্যাপারে আমেরিকার নীতি ‘আমেরিকা ফার্স্ট’। গত বছর নভেম্বরে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় জো বাইডেন তাঁর প্রতিদ্ব›দ্বী ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘আমেরিকা ফার্স্ট’ স্লোগানের কত সমালোচনা করলেন। এখন দেখুন হোয়াইট হাউসে ঢুকে আরাম করে বসে তিনি নিজেই আমেরিকা ফার্স্ট নীতি অনুসরণ করছেন এবং গর্বভরে স্লোগান উচ্চারণ করতে তিনি এতটুকু লজ্জা বোধ করছেন না।

এদিকে আমাদের পাশের একটি দেশের কোম্পানি সেরাম ইনস্টিটিউট আমাদের ভ্যাকসিন দেবে বলে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের সঙ্গে চুক্তি করে দাম অগ্রিম নিয়ে নিয়েছে। এখন ওই কোম্পানিটি আমাদের চরম সংকটে ফেলে দিয়ে নির্বিকার চিত্তে চোখ উল্টে দিয়ে বসে আছে। সেরাম ইনস্টিটিউট আমাদের ঠিকঠাক ভ্যাকসিন সরবরাহ করবে এমন বিশ্বাস আমাদের দেশের মানুষের ছিল না। আমরা যেসব সাধারণ পণ্য প্রতিবেশী দেশটি থেকে আমদানি করি বাজারে সেসব পণ্যের অভাব দেখা দেওয়া মাত্র তারা আমাদের দেশে সেসব পণ্য রপ্তানি বন্ধ করে দেয়। কয়েক বছর আগে দুনিয়াব্যাপী তুলা সংকটের কথা স্মরণ করে দেখুন। দুনিয়াজুড়ে তুলার দাম বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সে বছর প্রতিবেশী দেশটি ধাই করে আমাদের দেশে তুলা রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল। পরপর কয়েক বছর দেশটি পিঁয়াজ নিয়ে আমাদের সঙ্গে কেমন খেলা খেলল তা আমাদের টাটকা স্মৃতি। দেশটির প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ সফরে এসে নিজ মুখে আমাদের আশ্বাসের বাণী শুনিয়ে গিয়েছেন। বন্ধু দেশকে বিশ্বাস করে আমরা ভ্যাকসিনের মূল্য বাবদ আমাদের কষ্টার্জিত অনেক ডলার সেরাম ইনস্টিটিউটকে দিয়ে বসে আছি অথচ এখন তারা বলছে তাদের দেশবাসীর টিকা নেওয়া শেষ হলে সেরাম আমাদের টিকা সাপ্লাই করবে। তুলা ও পিঁয়াজের তিক্ত অভিজ্ঞতা স্মরণ করে দেশের অভিজ্ঞজনেরা করোনার টিকার জন্য সঠিক সূত্রের মুখাপেক্ষী হতে পরামর্শ দিয়েছিলেন। তাঁরা বলেছিলেন, করোনার দ্বিতীয় ডোজের টিকা হাতে রেখে ভ্যাকসিনেশন পরিকল্পনা সাজানো উচিত। তা না হলে যে কোনো সময়  বিপদ দেখা দিতে পারে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে অভিজ্ঞজনদের আশঙ্কা সত্যে পরিণত হলো। বিকল্প উৎস খুঁজে বের করে মানুষের টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা সরকারের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ। সরকার এ কাজটি কত দিন সময় নিয়ে কীভাবে সম্পন্ন করবে তো দেখার জন্য আমরা অপেক্ষায় রইলাম।

লেখক : কথাসাহিত্যিক।