শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৫ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ জুলাই, ২০২১ ০০:০০

অক্সিজেন সংকট

সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে

Google News

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর থেকেই সবার দৃষ্টি জরুরি স্বাস্থ্য অবস্থা মোকাবিলায় দেশের স্বাস্থ্য অবকাঠামো ঠিক কতটা প্রস্তুত সেদিকে। ঢাকার বাইরে প্রতিটি জেলা শহরের হাসপাতালে আইসোলেশন ইউনিট খোলা হলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তাদের প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ও প্রস্তুতির অভাব রয়েছে। করোনাভাইরাসে যারা গুরুতরভাবে সংক্রমিত তাদের প্রয়োজন ভেন্টিলেটর। অথচ সারা দেশে ভেন্টিলেটরের প্রচ- অভাব। ভেন্টিলেটর না থাকায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত অনেকের জীবন হুমকির মুখে। যেসব রোগীর শ্বাসকষ্ট সহনীয় মাত্রায় থাকে তাদের শ্বাস গ্রহণের জন্য অক্সিজেন নেওয়ার প্রয়োজন হয় না। কিন্তু যাদের শ্বাসকষ্টের মাত্রা অনেক বেড়ে যায় তাদের শ্বাসযন্ত্র সচল রাখতে বাইরে থেকে অক্সিজেন সরবরাহ করতে হয়। কেবল করোনা আক্রান্ত নন আরও অনেক গুরুতর রোগীর জন্য অক্সিজেন জরুরি হয়ে পড়ে। হাসপাতালগুলোয় অক্সিজেন চাহিদা বহুগুণ বেড়েছে। অক্সিজেন সরবরাহের কেন্দ্রীয় ব্যবস্থা আছে এমনসব হাসপাতালে সমস্যা কম। কিন্তু আমাদের সরকারি-বেসরকারি বেশির ভাগ হাসপাতালে তো কেন্দ্রীয়ভাবে অক্সিজেন সরবরাহের সুযোগই নেই। ফলে সিলিন্ডারের মাধ্যমে রোগীকে অক্সিজেন দিতে হয়। বাংলাদেশে করোনায় আক্রান্ত ৩ হাজারের বেশি রোগীর আইসিইউ সহায়তা দরকার, কিন্তু শয্যা আছে চাহিদারও কম। আছে অক্সিজেন সরঞ্জামের চূড়ান্ত অভাব। খুলনা, সাতক্ষীরা, রাজশাহী, চট্টগ্রামে প্রতিদিনই করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে প্রচুর মানুষ। আক্রান্তের পর অধিকাংশই মুখোমুখি হচ্ছেন সংকটাপন্ন অবস্থার। রোগীর মুমূর্ষু অবস্থা তৈরি হলে চিকিৎসার অন্যতম জরুরি উপকরণ অক্সিজেন। অথচ বিভিন্ন জেলায় অক্সিজেন সিলিন্ডারের সংকট দেখা দিয়েছে। বর্ধিত চাহিদার কারণে অসাধু ব্যবসায়ীরা বাড়িয়েছে সিলিন্ডারের দাম। ঢাকার বাইরের হাসপাতালগুলোয় অক্সিজেন সরবরাহ না বাড়ালে এবং সামনে সংক্রমণ আরও বাড়লে পরিস্থিতি জটিল আকার ধারণ করবে।