শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:৫৩

ইন্টারভিউ → অপূর্ব

আমি কোনো সিন্ডিকেটের হয়ে কাজ করি না

এ সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব। নানামাত্রিক চরিত্রে অভিনয় স্বকীয়তার স্বাক্ষর রেখেছেন। সম্প্রতি নাটকে জুটি নিয়ে বেশ কিছু অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। আর এসব বিষয় নিয়ে তিনি খোলামেলা কথা বলেছেন বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে। বিষয়টি তুলে ধরেছেন- আলী আফতাব

আমি কোনো সিন্ডিকেটের হয়ে কাজ করি না

ভালোবাসা দিবসে আপনাকে কতগুলো নাটকে দেখতে পাব?

আমি ঠিক করে বলতে পারছি না এবার ভালোবাসা দিবসে আমার কতগুলো নাটক প্রচার হবে। তবে ধারণা করছি ১০ থেকে ১৫টা নাটক এবার প্রচার হবে। এ ছাড়া আগে কিছু নাটকে অভিনয় করেছিলাম, সেখান থেকে কিছু নাটক এবার প্রচার হতে পারে।

 

ভালোবাসা দিবসের নাটকগুলোতে আপনার সহশিল্পী হিসেবে কোন কোন অভিনেত্রীকে দেখা যাবে?

আমার সহশিল্পী হিসেবে সব চেয়ে বেশি দেখা যাবে মেহজাবিন ও তানজিন তিশাকে।

 

আপনার সহশিল্পী হিসেবে ঘুরে-ফিরে সেই মেহজাবিন, তানজিন তিশা। এ বিষয়টি কেন?

কোন নাটকে কে অভিনয় করবে এটা তো আমি নির্ধারণ করি না। এটা নির্ধারণ করে প্রযোজক কিংবা এজেন্সি। আমি একজন অভিনেতা হিসেবে শুধু অভিনয় করি। এখন প্রযোজক কিংবা এজেন্সি যদি ভাবে এ নাটকে আমার সঙ্গে মেহজাবিন কিংবা তানজিন তিশা অভিনয় করবে, আমার কোনো অধিকার নেই যে বলব, আমি তাদের সঙ্গে আর অভিনয় করতে চাই না। আমি মনে করি এটি নির্ধারণ করে থাকে জনপ্রিয়তার ওপর। আমি কিন্তু মেহজাবিন, তানজিন তিশা ছড়াও আরও অনেক অভিনেত্রীর সঙ্গে অভিনয় করেছি। যেমন কিছু দিন আগে সাফা কবির, মমসহ আরও অনেকের সঙ্গে আমি বেশ কিছু নাটকে অভিনয় করেছি। আর সেই নাটকগুলোও বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। তবে এটা ঠিক মেহজাবিন, তানজিন তিশার সঙ্গে বেশি অভিনয় করা হয়।

 

কিন্তু অনেকে বলছে আপনার সঙ্গে মেহজাবিন কিংবা তানজিন তিশাকে দেখতে দেখতে দর্শক একঘেয়েমিতে ভুগছেন?

আপনি কি আমাকে বলতে পারবেন, এটি কত পারসেন দর্শকের মতামত। আপনার কাছে কি কোনো সঠিক তথ্য আছে। এখন মানুষ টিভি থেকে বেশি নাটক দেখে ইউটিউবে। আর ইউটিউবে লাইক-ডিজলাইক বলে দুটি অপশন আছে। এখন আমি বলি, ইউটিউবে আমি যখন দেখব আমার সঙ্গে মেহজাবিন কিংবা তানজিন তিশার সঙ্গে অভিনয় করা নাটক দর্শক দেখছে। আর ওই নাটকে লাইকের পরিমাণ বেশি। আপনি কি করে বলেন, আমাদের জুটি দর্শক গ্রহণ করছে না। আমি যখন দেখব ওই নাটকগুলোতে ডিজলাইকের পরিমাণ বেশি তখন আমি বুঝব এখন দর্শক আমাদের আর পছন্দ করছে না। আপনি আমাকে যে প্রশ্নটা করছেন এটা কিছু মানুষের ধারণা।

 

আরও একটি অভিযোগ আছে, আপনাদের পছন্দমতো সহশিল্পী না হলে আপনারা অভিনয় করতে চান না কিংবা শিডিউল দিতে চান না।

আমি অন্যদের কথা বলতে পরব না। আমি যদি আমার নিজের কথা বলি, এটা একটি ডাহা মিথ্যে অভিযোগ। কেউ এটার প্রমাণ দিতে পারবে না। এটা আমাদের বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা প্রচারণা।

 

তার মানে আপনি কোনো ‘সিন্ডিকেট’-এর হয়ে কাজ করছেন না?

‘সিন্ডিকেট’ কথাটা খুবই বাজে মনে হয় আমার কাছে। এই যে আমি এখন সিনেমাটির কাজ করব, এর জন্য এক মাস সময় লাগবে। তার মানে আমি যে এই এক মাস নাটক করব না এর জন্য কি মেহজাবিন কিংবা তিশা এরা কেউ বসে থাকবে? কাজ করবে না? আর নিশোর সঙ্গে সিন্ডিকেট করে আমার লাভ নেই। কারণ আমি কখনো তাকে বলব না যে দোস্ত এ কাজটা আমি করতে পারছি না, এটা তুই করে ফেল বা নিশো কখনো কোনো পরিচালককে বলবে না যে এটা আমি করতে পারব না, এটা অপূর্বকে দেন; অন্য কাউকে দেবেন না!  সিন্ডিকেট তখন হয় যখন কোনো কাজ আটকে দেওয়া হয়।

 

আমরা আগেও দেখেছি অনেক জনপ্রিয় জুটিকে। কিন্তু একটা সময় তারাও হারিয়ে গিয়েছে।

হ্যাঁ, এটা সত্য। একেক সময় একেক জুটি দাঁড়ায়, দর্শক-প্রিয়তা পায়। দর্শকরা গ্রহণ করছে বলেই তারা একসঙ্গে কাজ করছে; আর এটাই হয়ে আসছে। এক জুটি নিয়েই যে ইন্ডাস্ট্রি চলছে তা কিন্তু না। একের পর এক জুটি তৈরি হচ্ছে, কাজ করছে। আবার ফ্লপও করছে। এমনকি আমি নিজেও ফ্লপ হয়ে যেতে পারি। ছোট্ট একটা ইন্ডাস্ট্রি এখানে এত পলিটিক্স, এত কন্ট্রোভার্সি, এত কন্সপিরেসি করে কী লাভ! এখানে সবার মিলেমিশে থাকা উচিত।


আপনার মন্তব্য