শিরোনাম
প্রকাশ : ২৮ মার্চ, ২০২০ ২১:৩০

করোনা সম্পর্কে মানুষের মনে যে ভীতি পুঁতে দেয়া হয়েছে তা সরাবে কে?

শওগাত আলী সাগর

করোনা সম্পর্কে মানুষের মনে যে ভীতি পুঁতে দেয়া হয়েছে তা সরাবে কে?
শওগাত আলী সাগর

করোনাভাইরাসকে আমরা কোন পর্যায়ে নিয়ে গেছি। আতঙ্ক ছড়াতে ছড়াতে এই ভাইরাস সম্পর্কে মানুষের মনে কতটা ভীতি আর কুসংস্কার প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছি! করোনা আক্রান্তদের কোয়ারেন্টাইনের জন্য জায়গা নির্ধারণ করতে গেলে এলাকাবাসী বাধা দেন, হাসাপাতালে রোগী ভর্তি করতে গেলে মিছিল করে এসে হাসপাতাল অবরোধ করে রাখেন, কবরস্থানে ব্যানার টানিয়ে রাখেন। যাতে করোনায় মৃত কাউকে কবর দেয়া না হয়, করোনায় আক্রান্ত মৃতদেহ সন্দেহে ট্রলারে হামলা করেন। এখন আবার করোনা চিকিৎসা হাসপাতাল বানানোয় বাধা দেন!

কি আশ্চর্য! করোনার চিকিৎসায় বাধা দেবেন, মৃতদেহের সৎকারে বাধা দেবেন, হাসাপাতল বানানোয় বাধা দেবেন- করোনা সম্পর্কে এমন ভীতিকর ধারণা আপনাদের মনে কিভাবে তৈরি হলো? কারা তৈরি করলো? কাদের অপপ্রচারণা এমন একটি পরিস্থিতি তৈরি করলো!

সরকারি উদ্যোগে নয়, যে ব্যবসায়ীদের আমরা হরহামেশা মিডিয়ায় দেখি, যারা সরকারের নানা ধরনের সহযোগিতা পায় তাদের কেউ নয়- আকিজ গ্রুপ নিজের উদ্যোগে একটা হাসপাতাল বানাবে- তাতে যারা বাধা দিতে আসে- তারা কি আসলে মানুষ? তারা কেমন মানুষ? ধন্যবাদ দেই পুলিশকে, তাদের হস্তক্ষেপে হাসপাতালের বাধা সরেছে। কিন্তু করোনা সম্পর্কে মানুষের মনে যে ভীতি পুঁতে দেয়া হয়েছে তা সরাবে কে?

গবেষকরা প্রথম থেকেই করোনাভাইরাস সম্পর্কে তথ্য দিচ্ছেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা পরীক্ষিত এবং প্রমাণিত তথ্যগুলো প্রতিদিন প্রচার করছেন, সেগুলো মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া গেলে মানুষের মনে এমন ভুল ধারণা তৈরি হতো না। সেই কাজটি কেন করা হলো না? প্রতিদিন ফেসবুকে আপনি কত শত শত পোস্ট দেন, তার কোনটা সঠিক, কোনটা ভুল, কোনটা মানুষের মনে ভুল ধারণা তৈরি করছে- তা কি কখনো ভেবেছেন! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কটা তথ্য আপনি মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন? করোনার এই কঠিন সময়ে একদল অমানুষের মুখচ্ছবি কেন আমাদের দেখতে হচ্ছে! কেন!

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

লেখক : প্রকাশক ও সম্পাদক, নতুন দেশ ডটকম।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য