শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৩ নভেম্বর, ২০১৫ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ নভেম্বর, ২০১৫ ২৩:৩৫

আমরা সত্যিকার অর্থেই মর্মাহত

আমরা সত্যিকার অর্থেই মর্মাহত

ছেলে ফয়সাল আরেফিন দীপন হত্যার ঘটনায় বিচারব্যবস্থায় অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হকের আস্থা ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করবেন বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেন, ‘দীপনের বাবা আক্ষেপ ও দুঃখবোধ থেকে যে কথা বলেছেন, তাতে আমরা সত্যিকার অর্থেই মর্মাহত। আমরা এ ঘটনার দ্রুত বিচার করে বিচারের ওপর তার আস্থা ফিরিয়ে আনার জন্য চেষ্টা করব।’ গতকাল  সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে আয়োজিত ব্রিফিংয়ে আইনমন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। ছেলের হত্যাকাণ্ড নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হক বলেন, ‘আমি বিচার চাই না। যদি শুভবুদ্ধির উদয় হয়, তাহলেই সমস্যার সমাধান হবে। বিচার, পুলিশ ও আইন-আদালত দিয়ে তো শুধু আমরা একজনকে শাস্তি দিতে পারি। কিন্তু জাতীয় উন্নতি হবে না।’ চলতি মাসের মধ্যেই ব্লগার রাজীব হত্যা মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হবে বলে জানান আইনমন্ত্রী। এ পর্যন্ত যতজন ব্লগার নিহত হয়েছেন, প্রতিটি হত্যার ঘটনার অভিযোগপত্র দাখিলের পর মামলাগুলো যেন দ্রুত নিষ্পত্তি হয় এ জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে সর্বাত্মকভাবে কাজ করছে বলেও জানান তিনি। জেলহত্যা ও বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার পলাতক আসামিদের দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘দুই মামলার পাঁচজন আসামি বিদেশে পলাতক রয়েছেন। তাদের মধ্যে দুজনের অবস্থান আমরা শনাক্ত করতে পেরেছি। নূর চৌধুরী আছেন কানাডায় এবং রাশেদ চৌধুরী আছেন আমেরিকায়। আমরা ওই দুই দেশের সরকারের সঙ্গে তাদের ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে আলাপ-আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি।’ কানাডার নতুন সরকারের সঙ্গে নূর চৌধুরীকে ফেরত আনার বিষয়ে আলোচনা শুরু করা হবে বলেও জানান তিনি। দল হিসেবে জামায়াতের বিচার প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘এর জন্য আইসিটি অ্যাক্টের সংশোধনীর খসড়া আমরা মন্ত্রিপরিষদে জমা দিয়েছি। এটি সময়োপযোগী হলে এবং পর্যালোচনা শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ মন্ত্রিসভায় উত্থাপন করবে।’-নিজস্ব প্রতিবেদক


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর