Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
প্রকাশ : শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩২

কাল সবাইকে নিয়ে সমাবেশের ডাক ড. কামালের

দেবেন নতুন ঘোষণা বিএনপি যুক্তফ্রন্ট বামসহ যোগ দেবে অনেকেই

মাহমুদ আজহার

কাল সবাইকে নিয়ে সমাবেশের ডাক ড. কামালের

আগামীকাল জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সমাবেশ। গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের ডাকে ঢাকা মহানগর নাট্যমঞ্চে (কাজী বশীর মিলনায়তন) এই সমাবেশে দেখা যাবে সরকারবিরোধী নেতাদের। বিকাল ৩টায় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। অধ্যাপক ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরী, আ স ম আবদুর রব ও মাহমুদুর রহমান মান্নার নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট ছাড়াও এতে যোগ দেবে বিএনপি। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্য এতে যোগ দিতে পারেন। এ ছাড়া কয়েকটি বাম দলও ড. কামালের সমাবেশে অংশ নিতে পারেন।

জানা যায়, যুক্তফ্রন্ট ও ঐক্য প্রক্রিয়া ঘোষিত পাঁচ দফা দাবি মেনে নিয়েছে বিএনপি। আগামী জাতীয় নির্বাচনেও সর্বোচ্চ ছাড় দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্তও রয়েছে দলটির। গত তিন দিন ধরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া নিয়ে বিশদ আলোচনা হয়। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও ছাড় দিয়ে হলেও ঐক্য প্রক্রিয়াকে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে বলেছেন। কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ারও এতে ‘সবুজ সংকেত’ রয়েছে বলে জানা গেছে। বিএনপির এখন মূল লক্ষ্যই হচ্ছে, শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার হটানোর যে কোনো গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার সঙ্গে তারা থাকবে। এ জন্য সর্বোচ্চ ছাড় দেওয়ার মানসিকতাও রয়েছে দলটির। এ প্রসঙ্গে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন গতকাল সন্ধ্যায় বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘সংবিধান অনুযায়ী দেশের মালিক জনগণ। এ লক্ষ্যেই আমাদের আন্দোলন। এখানে সবাই আমরা সমান। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা আর জনগণকে তার অধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার লড়াইয়ে আমরা আজ ঐক্যবদ্ধ। ২২ সেপ্টেম্বরের সমাবেশের অনুমতি পেয়েছি। বিএনপি, যুক্তফ্রন্ট, বামসহ সব দলকেই আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। আশা করি, এই সমাবেশের মাধ্যমেই জাতীয় বৃহত্তর ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হবে।’ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ড. কামাল একজন সিনিয়র রাজনীতিবিদ ও আইনজ্ঞ। তার সমাবেশে যোগ দেবে বিএনপি। গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় বিএনপি সর্বোচ্চ ছাড় দিতেও প্রস্তুত।’ জানা যায়, যুক্তফ্রন্ট ও ঐক্য প্রক্রিয়া ঘোষিত পাঁচ দফা নিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটিতে দীর্ঘ আলোচনা হয়। আলোচনায় স্থায়ী কমিটির সদস্যরা বলেন, তাদের দীর্ঘদিনের মৌলিক দাবির সঙ্গে পাঁচ দফার কোনো অমিল নেই। সুতরাং এই পাঁচ দফার সঙ্গে একমত পোষণ করে সামনের দিকে এগোতে চান স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। তবে বিএনপি বা ২০-দলীয় জোটের প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি ও দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাজার প্রতিবাদে বিএনপি পৃথকভাবে মাঠে থাকবে। সেখানে ২০-দলীয় জোটও বিএনপির পাশে থাকবে। বিএনপি নেতারা জানান, যুক্তফ্রন্ট প্রত্যক্ষভাবে না হলেও পরোক্ষভাবে বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তি দাবি করেছে। তারা তাদের দাবিতে বলেছে, নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরির জন্য বিরোধী দল-মতের নেতা-কর্মীদের মুক্তি দিতে হবে। নতুন করে কোনো মামলা দিয়ে হয়রানি বা গ্রেফতার করা যাবে না। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবির বিষয়ে ড. কামাল হোসেন, বি চৌধুরীসহ যুক্তফ্রন্ট নেতারাও একমত। নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘অধ্যাপক ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরী ও ড. কামাল হোসেন দুজনই বয়োজ্যেষ্ঠ ও শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি। তারা আমাদের সামনের সারিতেই থাকবেন। তাদেরকে সামনে রেখেই কর্মসূচি দেওয়া হবে। এখানে কারও একক নেতৃত্ব বলতে কিছু নেই। ড. কামাল হোসেনের ডাকা সমাবেশে আমরা যোগদান করব।’


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর