শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১১ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ মে, ২০১৯ ২২:৪৯

বিএনপি এখন কী করবে

পাঁচ এমপির শপথে দলের ভিতরে-বাইরে সংকট, জোট-ফ্রন্টে অস্থিরতা, খালেদার মুক্তি আইনি লড়াই না রাজপথে

মাহমুদ আজহার

বিএনপি এখন কী করবে

দলের পাঁচ এমপির শপথ নিয়ে দলের ভিতরে-বাইরের সংকট এখনো কাটেনি। এরপর দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকও হয়নি। দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারকদের এ বৈঠকে স্থায়ী কমিটির সদস্যদের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা চাওয়া হবে বলে জানা গেছে। এই ইস্যুতে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে যে আস্থার সংকট রয়েছে তা কাটাতে বিএনপিকে বেগ পেতে হবে। মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের বদ্ধমূল ধারণা, পরে একযোগে চার এমপির শপথের সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি প্রক্রিয়া জড়িত। কিন্তু সংশ্লিষ্ট তথ্যের খবরÑ বিএনপি এমপিদের শপথের সঙ্গে বেগম জিয়ার মুক্তির কোনো সম্পর্ক নেই। তৃণমূলকে বিএনপি কী জবাব দেবেÑ এ নিয়েও দলের ভিতরে-বাইরে চলছে নানামুখী আলোচনা। বিএনপির দায়িত্বশীল নেতারা অবশ্য বলছেন, দলের ভাঙন ঠেকাতেই এমপিদের শপথে রাজি হতে হয়েছে। এর সঙ্গে বেগম জিয়ার মুক্তির কোনো সম্পর্ক নেই। এদিকে শপথ ইস্যুতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টেও অস্থিরতা বিরাজ করছে। এ নিয়ে বিব্রত বিএনপির নীতিনির্ধারকরা। দুই পক্ষকে বুঝিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে দলের সিনিয়র কয়েকজন নেতা কাজ করছেন। তবে বিএনপি কোন প্রক্রিয়ায় সামনে  এগোবে, এখন কী করবে- সেই প্রশ্নই দায়িত্বশীল নেতাদের মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে বলে জানা গেছে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘চার এমপির শপথ ইস্যুতে দল ছাড়াও জোটফ্রন্টে কিছু প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। এটা তো আর অস্বীকার করা যাবে না। তবে পরিস্থিতি সম্পর্কে সবাই জানতে পারলে আশা করি সংকট থাকবে না। এ নিয়ে জোট ও ফ্রন্টের সঙ্গে শিগগিরই বৈঠক হবে।’ বিএনপি সূত্রে জানা যায়, আজ রাতে গুলশান কার্যালয়ে স্থায়ী কমিটির নিয়মিত বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। ওই বৈঠকে দলের চার এমপির শপথ ইস্যুতে বিএনপির একটি দিকনির্দেশনা দেওয়া হবে। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান নিজেই এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দেবেন। তা ছাড়া দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কেন শপথ নিলেন না সে বিষয়েও একটি স্পষ্ট ব্যাখ্যা দেওয়া হবে। এ ইস্যুতে ভবিষ্যতে যেন আর কোনো প্রশ্নের সৃষ্টি না হয় সে ব্যাপারেও স্থায়ী কমিটি একটি নীতিগত অবস্থান নেবে। কোনো কারণে আজ বৈঠক না হলে পরবর্তী বৈঠকেও শপথ ইস্যুটি এজেন্ডায় থাকবে বলে জানা গেছে। এদিকে বিএনপির তৃণমূল থেকে কেন্দ্রের অধিকাংশ নেতা-কর্মীর ধারণা, চার এমপির শপথের সঙ্গে বেগম জিয়ার মুক্তি ইস্যুটি জড়িত। তারা আশা করছেন, রমজান মাসের মধ্যেই মুক্তি মিলতে পারে দলীয় প্রধানের। তারা এখন বেগম জিয়ার মুক্তির প্রহর গুনছেন। এ ব্যাপারে সম্প্রতি স্থায়ী কমিটির এক সদস্য এই প্রতিবেদককে দিনক্ষণও বলতে চান। তার মতে, রমজানেই বেগম জিয়া মুক্তি পাবেন। এই বলে তিনি একজনকে ফোনও দেন। কিন্তুও ফোন রিসিভ না হওয়ায় তিনি দিনক্ষণ বলতে পারেননি। তবে তিনি জানান, রমজানেই বিএনপি প্রধানের মুক্তি মিলবে।  এদিকে বিএনপির আরেকটি ক্ষুদ্র অংশ বলছে, বেগম জিয়ার মুক্তি প্রক্রিয়া অনেক দূর এগিয়েছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী লন্ডনে যে কথা বলেছেন, তাতে রমজান কেন দুই চার মাসে মুক্তি মেলে কি না সন্দেহ রয়েছে। তাছাড়া আইনি প্রক্রিয়ায় বেগম জিয়াকে মুক্ত করা খুবই কঠিন। এ জন্য রাজপথ উত্তপ্ত করতে হবে। তাহলে বেগম জিয়ার জামিনও ত্বরান্বিত হবে। সরকারের ওপর চাপও সৃষ্টি হবে। এ প্রসঙ্গে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘রাজপথ উত্তপ্ত করতে না পারলে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও গণতন্ত্রের মুক্তি হবে না। তাকে মুক্ত করতে হলে আন্দোলনের কোনো বিকল্প নাই।’

যে কোনো প্রক্রিয়ায় খালেদার মুক্তি চায় বিএনপি : এত দিন বিএনপি নেতাদের বড় একটি অংশই বলে আসছিল, বেগম জিয়াকে জামিনে মুক্তি দিতে হবে। প্যারোলো মুক্তিতে রাজি নন তারা। কোনো কোনো নেতা একধাপ এগিয়ে এও বলেছেন, জামিনে মুক্তি না পেয়ে কারাগারে বেগম জিয়ার ‘অঘটন’ কিছু ঘটে গেলেও তা বিএনপির রাজনীতির জন্য লাভ। এতে যে বেগম জিয়া আপসহীন নেত্রী তা আরও প্রমাণিত হবে। কিন্তু তাদের সঙ্গে একমত ছিলেন না দলের ক্ষুদ্র একটি অংশ।  এখন দলটির নীতিনির্ধারকদের প্রায় সবাই এ বিষয়ে একমত, যেকোনো প্রক্রিয়ায় বেগম জিয়ার মুক্তি চায় তারা। কারণ, বেগম জিয়ার এ মুহূর্তে বেঁচে থাকাটাই জরুরি। তার সুচিকিৎসাও জরুরি। সরকারের পক্ষ থেকে সবুজ সংকেত পেলে বিএনপি বা বেগম জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে প্যারোলো মুক্তির আবেদন করতে পারে বলে জানা গেছে। এ প্রসঙ্গে বিএনপির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের এক নেতা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, বেগম জিয়ার স্বাস্থ্যের অবস্থা খুবই খারাপ। তাকে এখন বাঁচানোই জরুরি। তার সুচিকিৎসা দরকার। তিনি হাঁটতে পারেন না, বসতে পারেন না, দাঁড়াতে পারেন না। তাই প্যারোলো মুক্তি দিলেও বিএনপির কোনো আপত্তি নেই।

জোটফ্রন্টে অস্থিরতা : বিএনপি ও গণফোরামের সাত এমপির শপথের কারণে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০-দলীয় জোটে অস্থিরতা বিরাজ করছে। বিষয়টি এখন প্রকাশ্যে রূপ নিয়েছে। দুই জোটের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে বিএনপি। এ নিয়ে দলটি এখন অস্বস্তিতে। এত প্রতিকূল পরিস্থিতির ভিতরে দলের মধ্যে সংকট, জোটফ্রন্টে অস্থিরতা- সব মিলিয়ে বিএনপি চরম বেকায়দায় পড়েছে। এরই মধ্যে ২০-দলীয় জোট ছেড়েছেন বিএনপির পুরনো শরিক দল বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি- বিজেপি। জোটের আরেক ক্ষুদ্র দল লেবার পার্টি হুঙ্কার দিয়ে বলেছে, ২৩ মের মধ্যে ঐক্যফ্রন্ট না ছাড়লে তারা ২০ দলে থাকবে না। জোটের অন্যতম বড় শরিক জামায়াত নিজেই সংকটে। তাদের দলে সংস্কারপন্থিদের নিয়ে বেকায়দায় এ দলটি। তারাও এখন বিএনপি নিয়ে ভাবছে না। অন্যদিকে জামায়াত ছাড়তে দলের ভিতরে-বাইরের পাশাপাশি বহির্বিশ্ব থেকেও চাপ রয়েছে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির বড় অংশই চায় জামায়াতের সঙ্গ ছাড়তে। খুব শিগগিরই এ বিষয়ে বিএনপি নীতিগত সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানা গেছে।

তবে বিজেপির জোট ছাড়ার ঘোষণায় একমত জোটের অনেক নেতাই। প্রকাশ্যে এ নিয়ে কথা না বললেও তারা বলছেন, বিএনপি এখন ‘ডাবল স্ট্যার্ন্ডার্ড রোল প্লে’ করছে। এখন তারা  নৈতিকভাবে সংসদ বা সরকারকে অবৈধ বলতে পারবে না। কারণ, এই ভোটবিহীন সংসদে তাদের এমপিরা অংশ নিয়ে সরকার ও সংসদকে বৈধতা দিয়েছে। এদিকে বিজেপি জোট ছাড়ার তিন দিনের মাথায় ঐক্যফ্রন্ট ছাড়ার আল্টিমেটাম দিয়েছে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ।

গত বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর মতিঝিলে দলের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, আগামী এক মাসের মধ্যে ঐক্যফ্রন্টের মধ্যে যেসব অসঙ্গতি আছে, তা নিরসন করা না হলে ৮ জুন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করবে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘জোটে কিছু অসঙ্গতি রয়েছে। তা দূর করা জন্য বিএনপি ও গণফোরামকেই উদ্যোগ নিতে হবে। শপথ ইস্যুতে তাদের ব্যাখ্যা দিতে হবে। কোনো ভুলত্রুটি হলেও তা স্বীকার করে নিতে হবে। এতে সংকটের সমাধান হবে বলে আমি আশা করছি।’ কাদের সিদ্দিকীর বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়ে গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, ‘উনি (কাদের সিদ্দিকী) ওনার জায়গা  থেকে  তো বলতেই পারেন। আমি স্বাগত জানাই। আমরা সব সময় সরকারি দলের জবাবদিহির প্রশ্নে হইচই করেছি। আমাদেরও জবাবদিহি ও স্বচ্ছতা থাকতে হবে। জনগণও আমাদের দেখছে, কী করছি না করছি। আমরা এখন যার যার দল সামলাচ্ছি। প্রতিটা রাজনৈতিক দলের মধ্যে অস্বস্তি চলছে।’


আপনার মন্তব্য